ঢাকা, বৃহস্পতিবার 5 July 2018, ২১ আষাঢ় ১৪২৫, ২০ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

এবার শেষ চারে ওঠার প্রস্তুতি নিচ্ছে বিশ্বকাপের শীর্ষ আট দল

নেইমার এমবাপ্পে সুয়ারেজ হ্যারি ক্যানে

স্পোর্টস রিপোর্টার : ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে রাশিয়া বিশ্বকাপের দ্বিতীয় পর্ব। আগামীকাল শুক্রবার থেকে শুরু হবে কোয়ার্টারর ফাইনাল পর্ব। দ্বিতীয় পর্বের কঠির লড়াই শেষে ইতোমধ্যে সেরা আটটি দল যোগ্যতার প্রমাণ দিয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে। বিশ্বকাপের শেষ দল হিসেবে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে ইংল্যান্ড। মঙ্গলবার রাতে অনুষ্ঠিত নকআউট পর্বের শেষ ম্যাচে ইংল্যান্ড টাইব্রেকারে নাটকীয়ভাবে কলম্বিয়াকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করে। এর আগে ফেভারিট হিসেবে কোয়ার্টার ফাইনালে পৌঁছেছে ব্রাজিল ও ফ্রান্স। মঙ্গলবার রাতে অনুষ্ঠিত শেষ ষোলর আরেক ম্যাচে সুইডেন ১-০ গোলে সুইজারল্যান্ডকে হারিয়ে শেষ আটে জায়গা করে নিয়েছে। কোয়ার্টার ফাইনালে ইংল্যান্ডের মোকাবিলা করবে সুইডেন। এ ছাড়া টুর্নামেন্টের হেভিওয়েট হিসেবে পরিচিতি পাওয়া ১৯৯৮ সালের চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স সেমি-ফাইনালে উঠার লড়াইয়ে প্রতিপক্ষ হিসেবে পাচ্ছে দুইবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন উরুগুয়েকে। আর ব্রাজিল মোকাবিলা করবে বেলজিয়ামের। চার বারের প্রচেষ্টায় ইংল্যান্ড শেষ ষোলর বৈতরণী পার হয়েছে। তাদের এই অসাধ্য সাধনে ভূমিকা রেখেছে এরিক ডায়ারের স্পট কিক। এখন আগামী শনিবার সুইডেনের বাঁধা পেরুতে পারলে গ্যারেথ সাউথ গেটের দলটি সেমফিাইনালে প্রতিপক্ষ হিসেবে পাবে ক্রেয়েশিয়া অথবা রাশিয়াকে। কোয়ার্টার ফাইনালে পরস্পরকে প্রতিপক্ষ হিসেবে পেয়েছে দল দু’টি। ইংলিশ কোচ বলেন, ‘এই অর্জনটি ছিল বিশেষ কিছু। তবে এখন আমরা এগিয়ে যেতে চাই। সুইডেন এমন একটা দল যাদের বিপক্ষে আমাদের অতীত রেকর্ড খুব একটা ভাল নয়। অথচ বছরের পর বছর আমরা তাদেরকে অবহেলা করে এসেছি। এখন নিজেদের মত করেই ইতিহাস রচনার মাধ্যমে তারা নতুন গল্প তৈরি করেছে। তবে এখনই আমি ঘরে ফিরে যেতে চাইনা।’ এদিকে গ্রুপ পর্বে জার্মানীর কাছে দু:খজনকভাবে হারের ক্ষত কাটিয়ে উঠেছে জানে এন্ডারসনের সুইডেন। শোষ ষোলর লড়াইয়ে সুইজারল্যান্ডকে ১-০ গোলে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে নাম লেখায় দলটি। যাদের হয়ে জয়সুচক একমাত্র গোলটি করেছেন আরবি লিপজিগের মিডফিল্ডার এমিল ফোর্সবার্গ। এর ফলে ১৯৯৪ সালের পর প্রথম কোয়ার্টার ফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জন করল সুইডেন। ১৯৯৪ সালে যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপে অবশ্য তৃতীয় স্থান লাভ করেছিল সুইডিশরা। কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম দিন কাজানে বেলজিয়ামের গোল্ডেন জেনারেশনের মুখোমুখি হবে বিশ্বকাপের অন্যতম ফেভারিট ব্রাজিল। এর আগে নিজনি নভগোরদে উরুগুয়ের মোকাবিলা করবে তারুণ্যে ভরপুর ফ্রান্স। যে দলের প্রাণভোমরা হিসেবে সবার দুটি থাকবে টিনএজ তারকা কিলিয়ান এমবাপের ওপড়। তবে বেশি আলোচনায় থাকবে ষষ্ঠ বারের মত বিশ্বকাপের শিরোপা জয়ের পথে থাকা ব্রাজিলের দিকে। যে দলের কেন্দ্রীয় চরিত্রে আছেন নেইমার। বিশ্বের সবচেয়ে দামী এই ফুটবল তারকা ইতোমধ্যে সংবাদের শিরোনাম হয়েছে মাঠে অতিরিক্ত অভিনয়ের কারণে। যদিও এর মাধ্যমে বড় কোনো সমস্যার মুখে না পড়েই শেষ আটে পৌছে গেছে পাঁচ বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। মেক্সিকোর কোচ হুয়ান কার্লোস ওসারিও ব্রাজিলের কাছে ২-০ গোলে হারের পর নেইমারের সমালোচনা করে বলেন, প্যারিস সেন্ট জার্মেইয়ের (পিএসজি) এই স্ট্রাইকার মিগুয়েল লেওনের পায়ের চাপা খাওয়ার পর যা করেছেন, সেটি ‘ফুটবলের জন্য লজ্জাস্কর’। এদিকে জাপানের সঙ্গে ২-০ গোলে পিছিয়ে পড়ে বেলজিয়াম টুর্নামেন্ট থেকে বিদায়ের প্রায় দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গিয়েছিল। কিন্তু শেষ ২১ মিনিটের রোমঞ্চকর এক খেলা তাদের ফিরিয়ে আনে। ইনজুরি টাইমের চতুর্থ মিনিটে নাসের চাডলির গোল তাদেরকে এনে দেয় ৩-২ গোলের এক রোমঞ্চকর জয়। কোয়ার্টার ফাইনালে এডেন হ্যাজার্ড, রোমেলু লুকাকু, দ্রিস মার্টেনস এবং কেভিন ডি ব্রুইয়ান যে ব্রাজিলীয় রক্ষণের কঠিন পরীক্ষা নিবে সেটি নিশ্চিত। অবশ্য দক্ষিণ আমেরিকার দলটি বিশ্বকাপের চার ম্যাচে একটি মাত্র গোল হজম করেছে। বেলজিয়ামের কোচ রবার্তো মার্টিনেজ বলেন, ‘এটি এমন একটি খেলা যেটি আপনাকে ছোট বচ্চার মত স্বপ্ন দেখায়। তবে প্রথম সেকেন্ড থেকেই আমরা ম্যাচটি উপভোগ করার চেষ্টা করব।’ টুর্নামেন্টের গ্রুপ পর্বে ফ্রান্স অবশ্য শুরু থেকে নিজেদের সেইভাবে মেলে ধরতে পারেনি। কিন্তু আর্জেন্টিনার বিপক্ষে শেষ ষোলর লড়াইয়ে এমবাপের নজর কাড়া পারফর্মেন্সে ভর করে তারা ৪-৩ গোলের এক ক্লাসিক জয় পায়। ওই জয়টিই কোয়ার্টার ফাইনালে তাদেরকে উরুগুয়ের প্রতিপক্ষ বানিয়ে দিয়েছে। ফ্রান্সের কোচ দিদিয়ের দেশ্যম বলেন, ‘এমন একটি ম্যাচের জন্য আমরা মাসের পর মাস প্রস্তুতি নিয়েছি, সপ্তাহের পর সপ্তাহ অপেক্ষা করেছি।’ এদিকে উরুগুয়ের সফলতা এসেছে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের ডিফেন্ডার জুটি হোসে মারিয়া গিমেনেজ ও দিয়েগো গোডিনের নিখাদ রক্ষণে। অপরদিকে আক্রমণভাগে প্রতিপক্ষের শিবিরকে তছনছ করেছেন লুইস সুয়ারেজ ও এডিনসন কাভানির জুটিবদ্ধ আগ্রাসন। দলের হয়ে এই জুটি করেছেন ৫টি মূল্যবান গোল। পরিসংখ্যান অনুযায়ী ৬০ বছর আগে পেলের অনুপ্রেরণায় অনুপ্রাণীত ব্রাজিল ছাড়া ইউরোপের মাটি থেকে ল্যাতিন আমেরিকার কোন দল বিশ্বকাপের শিরোপা জয় করতে পারেনি। যদিও মাঠের লড়াইয়ে এইসব পরিসংখ্যানের কোন গ্যারান্টি থাকেনা। এদিকে বিশ্বকাপের প্রথম কোয়ার্টার ফাইনালে কাল প্রথম ম্যাচে ফ্রান্সের মুখোমুখি হবে উরুগুয়ে। এই ম্যাচকে সামনে রেখে ফ্রান্সের তরুণ সেনসেশন কাইলিয়ান এমবাপেকে রুখে দেবার ব্যপারে আত্মবিশ্বাসী মনোভাব দেখিয়েছেন উরুগুয়ের তারকা লুইস সুয়ারেজ। নিজনি নোভগোরাদে দক্ষিণ আমেরিকান দলটির অনুশীলন ক্যাম্পে গণমাধ্যমের সামনে সুযারেজ বলেছেন, ফ্রান্সকে আটকানোর জন্য দলের রক্ষনভাগের ওপর তার আস্থা আছে। এ পর্যন্ত টুর্নামেন্টে মাত্র একটি গোল হজম করেছে উরুগুয়ে। বার্সেলোনার এই স্ট্রাইকার বলেন, ‘সবাই জানে এমবাপে একজন ভাল খেলোয়াড়। কিন্তু আমি মনে করি তাকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য আমাদের দুর্দান্ত একটি রক্ষণভাগ আছে।’ আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ফ্রান্সের শেষ ১৬’র উত্তেজনাকর লড়াইয়ে ১৯ বছর বয়সী এমবাপে ছিলেন জয়ের নায়ক। এই ম্যাচে দুই গোল করেন প্যারিস সেইন্ট-জার্মেইর এই তরুণ তুর্কি। তার গতি ও দক্ষতার কারণে আদায় করা পেনাল্টি থেকে ফ্রান্স ম্যাচে প্রথমে এগিয়ে গিয়েছিল। যদিও সুয়ারেজ বলেছেন শুধুমাত্র এমবাপে না ফ্রান্সের পক্ষ থেকে তাদের জন্য আরো হুমকি অপেক্ষা করছে। বিশেষ করে এন্টোনিও গ্রিজম্যানের বিষয়ে সকলকে সতর্ক থাকতে হবে। উরুগুয়ের অভিজ্ঞ কোচ ওস্কার তাবারেজও এই দুই খেলোয়াড়ের ব্যাপারে পুরো দলকে সতর্ক থাকতে পরামর্শ দিয়েছেন। যদিও উরুগুয়ের বিপক্ষে ফ্রান্স একইভাবে আক্রমণের সুযোগ পাবে না বলেও তাবারেজ জানিয়ে দিয়েছেন। সম্প্রতী গ্রিজম্যান দাবি করেছেন ফ্রান্সের জাতীয় দলের জার্সি গায়ে খেললেও তিনি মনে প্রাণে অর্ধেক উরুগুইয়ান। এর পিছনে তিনি এ্যাথলেটিকো মাদ্রিদে দীর্ঘদিন দিয়েগো গোডিন, হোসে গিমেনেজের সাথে খেলার অভিজ্ঞতাকে সামনে এনেছেন। যদিও সুয়ারেজ বলেছেন, ‘এন্টোনিও যতই এই কথা বলুক না কেন উরুগুইয়ান অনুভূতি সম্পর্কে তার কোন ধারণা নেই। ফুটবলে সাফল্য পাবার জন্য যে ধরনের চেষ্টা ও প্রতিশ্রুতি উরুগুয়ের খেলোয়াড়দের মধ্যে আছে তা তার পক্ষে অনুভব করা সম্ভব নয়।’ 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ