ঢাকা, বৃহস্পতিবার 5 July 2018, ২১ আষাঢ় ১৪২৫, ২০ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

নাটোরে আদালতের নির্দেশে চার মাস পর কবর থেকে মহিলার লাশ উত্তোলণ

নাটোর সংবাদদাতা: নাটোরে আদালতের নির্দেশে কবর থেকে প্রায় চার মাস পরে জেলেখা বেওয়া (৮০) নামে এক মহিলার লাশ উত্তোলণ করা হয়েছে। নাটোরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেটের নির্দেশে সোমবার সকালে পুলিশের তত্ত্বাবধানে নাটোর সদর উপজেলা একডালা বনবেলঘড়িয়া কবরস্থান থেকে উত্তোলণ করে নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে মামলা তদন্তের জন্য পরীক্ষা-নিরিক্ষার করা হয়। দুপুরের পরে ধর্মীয় বিধান মতে আবারও জেলেখা বেওয়ার লাশ একই কবরস্থানে দাফন করা হয়। মামলার আর্জিতে বলা হয়, জেলেখা বেওয়ার মেয়ে নিগার সুলতানা, নুরুন্নাহার নুরু, ফাহিমা আখতার মিঠু এবং নিগার সুলতার স্বামী মোঃ ইসমাইল হোসেন দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ থাকা জেলেখা বেওয়ার নিজ নামীয় সম্পত্তি লিখিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে আসছিলেন। জেলেখা বেওয়া রাজশাহী মেডিকেলে চিকিৎসা নিয়ে নাটোরের বনবেলঘড়িয়া একালায় ছেলে আবুল কাশেমের বাড়িতে ফিরে আসেন। আবুল কাশেম বাড়িতে না থাকার সুযোগে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি সকালে মৃত্যু শয্যায় থাকা মাকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধেই চিকিৎসার নাম করে ওই বাড়ি থেকে বের করে নিয়ে গিয়ে তাদের নামে জমি লিখে দিতে চাপ দেন। জমি রেজিষ্ট্রি করতে অস্বীকৃতি জানালে তারা অসুস্থ জেলেখা বেওয়াকে গালিগালাজ করে এবং শেষ পর্যন্ত রাজি না হওয়ায় তাকে হত্যা করে অন্য এক মহিলাকে মা সাজিয়ে একই দিনে নাটোর সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে গিয়ে জমি রেজিষ্ট্রি করিয়ে নেন। তেবাড়িয়া ইউনিয়নের বনবেলঘড়িয়া মৌজার ৬৫ শতাংশ আবাদি ওই জমি নিগার সুলতান নিপাা, নুরুন্নাহার নুরু, ফাহিমা আখতার মিঠু এবং নাজমা খাতুন ফেন্সি (ভাগ্নী) নিজেদের নামে রেজিষ্ট্রি করে নেয়। ও
ই জমির মূল্য দেখানো হয়েছে প্রায় ২৬ লাখ ৯০ হাজার টাকা। মাকে হত্যার পর অসুস্থ হয়ে নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালে মারা গেছে এমন খবর জানতে পেরে ছেলে আবুল কাশেম ও মোঃ মোজাম্মেল নাটোর হাসপাতালে গিয়ে তার মাকে দেখতে না পেয়ে বাড়িতে ফিরে এসে বিকেলে জানতে পারেন তার ওইসব বোন, তাদের স্বামী এবং স্থানীয় দু’কয়েকজন যোগসাজস করে তার মা জেলেখা বেওয়াকে হাসপাতালে না নিয়ে এবং তাদের না জানিয়েই তড়িঘড়ি করে একডালা বনবেলঘড়িয়া কবরস্থানে দাফন করেছে। এসব খবর জানার পর জোলেখা বেওয়ার ছেলে আবুল কাশেম বাদী হয়ে নাটোরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ১ এপ্রিল একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্তের প্রয়োজনে লাশ উত্তোলণের আদেশ চাওয়া হলে নাটোরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট লাশ উত্তোলণের নির্দেশ দেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ