ঢাকা, শুক্রবার 6 July 2018, ২২ আষাঢ় ১৪২৫, ২১ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

আলমডাঙ্গায় পল্লী বিদ্যুতের ভৌতিক বিলে গ্রাহকরা বিপাকে

চুয়াডাঙ্গা সংবাদদাতা: চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় পল্লী বিদ্যুতের ভৌতিক বিলে দিশেহারা হয়ে পড়েছে একই গ্রামের শতাধিক গ্রাহক। গত মাসের ৭শ টাকার বিল থেকে চলতি মাসে লাফিয়ে বিল উঠেছে ১৭শ টাকা হারে। অবিশ্বাস্য এই বিলে তারা প্রতিবাদী হয়ে উঠেছে। গ্রাহকদের প্রতিবাদের মুখে পড়েছে আলমডাঙ্গা পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের কর্মকর্তারা। আলমডাঙ্গা পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের ডিজিএম রমেন্দ্র চন্দ্র রায় বলেন, রোজার মাস ও বিশ্বকাপ ফুটবলের কারণে বিল বেশি হতে পারে। কিন্তু তিনিও অতিরিক্ত এই বিল মেনে নিতে পারছেন না। তিনি জানান, খোঁজ নিয়ে ভুল হলে সংশোধন করে দেওয়া হবে।

বিলিং সুপারভাইজার আনোয়ারা বেগম জানান, রিডিং রিডারের কারণে শতাধিক গ্রাহকের যদি অতিরিক্ত বিল এসে থাকে তাহলে আমরা সংশোধন করে দেব। গ্রাম ঘুরে জানা গেছে, পারদূর্গাপুরের ইন্দারাপাড়ার প্রায় একশ গ্রাহক চলতি মাসে কারো দ্বিগুণ, কারো তিনগুণের অধিক বিল এসেছে। বিল হাতে পেয়ে গ্রাহকরা হতবাক। একে অপরের সঙ্গে বিল নিয়ে কথা বলে গ্রাহকরা জানতে পারেন বিপাকে পড়া গ্রাহকের সংখ্যা শতাধিক।

পারদূর্গাপুর গ্রামের ইন্দারাপাড়ার ইউসুফ আলীর ছেলে ইলিয়াছ আলী জানান, তার আগের মাসের বিল এসেছিল ৭শ টাকা। এবার বিল পেয়েছেন ১৭শ টাকা। গঞ্জের আলীর ছেলে সাদেক আলী পূর্বের মাসের বিল পান ২শ ৮০ টাকা। এবার পেয়েছেন ৮শ টাকা। জিয়ারউদ্দিনের ছেলে বদরুদ্দিন আগের মাসের বিল পান ৩শ ৫০ টাকা। এবার পেয়েছেন ১১শ টাকা। মহাব্বত আলীর ছেলে আতিয়ারেরও একই ঘটনা। গত মাসের বিল ছিল ৪শ টাকা। এ মাসে বিল হাতে পেয়েছেন ১ হাজার। হানেফ আলীর ছেলে আজিবরের বিল গত মাসের ৩শ ৬০ থেকে লাফিয়ে ১০ হাজার ৬০ টাকায় উঠে গেছে। মজিবর মাস্টারের বিল ২শ ৭০ টাকা থেকে এক লাফে গিয়ে দাড়িয়েছে ১২শ ৭০ টাকায়। পল্লী বিদ্যুতের ভৌতিক বিলের কারনে পারদূর্গাপুর গ্রামের হয়রানির শিকার শতাধিক গ্রাহক এর প্রতিকার চেয়েছেন। তা না হলে তারা বিল পরিশোধ করবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ