ঢাকা, সোমবার 9 July 2018, ২৫ আষাঢ় ১৪২৫, ২৪ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বাগমারায় এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

বাগমারা (রাজশাহী) সংবাদদাতা : রাজশাহীর বাগমারায় শারমিন আক্তার ওরফে নাহার (২৫) নামের এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে উপজেলার শুভডাঙ্গা ইউনিয়নের বানাইপুর বিঘপাড়া গ্রামে। ঘটনার পর থেকেই স্বামী রফিকুল ইসলাম পলাতক রয়েছেন।
এলাকাবাসী ও নিহতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার শুভডাঙ্গা ইউনিয়নের সুজন পালশা গ্রামের আব্দুস সামাদের কন্যা শারমিন আক্তার ওরফে নাহারের প্রায় ১২ বছর পূর্বে একই ইউনিয়নের বানাইপুর বিঘপাড়া গ্রামের আব্বাস আলীর মাদকাশক্ত ছেলে রফিকুল ইসলামের সাথে বিবাহ হয়। বিয়ের পর থেকেই মাদকাশক্ত স্বামী রফিকুল ইসলাম স্ত্রী শারমিন আক্তারকে বিভিন্ন ভাবে নির্যাতন করত।
 নির্যাতনের এক পর্যায়ে স্ত্রী শারমিনের গর্ভে একটি পুত্র সন্তান জম্মলাভ করে। শিশু সন্তানটির মুখের দিকে তাকিয়ে স্ত্রী শারমিন আক্তার স্বামী রফিকুল ইসলামের সকল নির্যাতন সহ্য করে স্বামীর সংসার করতেন। গতকাল রোববার গভীর রাতের কোন এক সময়ে নেশাখোর স্বামী রফিকুল ইসলাম স্ত্রী শারমিন আক্তার নাহারকে হত্যা করে পালিয়ে যায়। সকালে পরিবারের সদস্যরা বিষয়টি জানতে পারেন এবং বিদ্যুতের শক সার্কিটে গৃহবধূ শারমিন আক্তারের মৃত্যু হয়েছে বলে খবরটি এলাকায় ছড়িয়ে দেয়।
খবর পেয়ে শারমিন আক্তারের পিতার পরিবারের সদস্যরা ঘটনাস্থলে যায় এবং লাশটি দেখে তাদের সন্দহের সৃষ্টি হয়। বিষয়টি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও এলাকার লোকজনকে অবহিত করেন। এলাকার লোকজন বিষয়টি বাগমারা থানার পুলিশকে অবহিত করেন। খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে যান এবং লাশটি উদ্ধারের চেষ্টা করছেন বলে জানা গেছে।
ওই ঘটনার পর থেকেই এলাকারসাধারণ মানুষের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। নিহত শারমিনের বাবার পরিবারের লোকজনের দাবী জামাই রফিকুল ইসলাম তাদের মেয়েকে হত্যা করে পালিয়ে গেছে। তারা এই নির্মম হত্যার বিচার দাবি করেছেন।
এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে বাগমারা থানার ওসি নাছিম আহম্মেদ জানান, খবর পেয়ে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে গেছে। তারা ফিরে আসলেই বিস্তারিত সব জানা যাবে। তবে পরিবারের পক্ষে একটি মামলা করার প্রক্রিয়া ইতি মধ্যে শুরু হয়েছে বলে জানা গেছে।
অনুদান দিলেন উপজেলা সমাজসেবা অফিস
রাজশাহীর বাগমারায় গত রমজান মাসে রাস্তার উপরে ছিড়ে পড়া বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে আহত ঘটনায় উপজেলা সমাজসেবা অফিস হতে নগদ ১০ হাজার টাকা আর্থিক অনুদান প্রদান করা হয়েছে। আহত শাহারিয়ার কবির শিশিরের পিতা আব্দুল হান্নান ওই ঘটনায় নিহত হন। তাদের বাড়ি উপজেলার যোগিপাড়া ইউনিয়নের দোঘলপাড়া গ্রামে। বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে আহত শাহারিয়ার কবির শিশিরের চিকিৎসার জন্য তার পরিবারের নিকট এই অনুদানের অর্থ প্রদান করা হয়। বর্তমানে শাহারিয়ার কবির শিশিরের অবস্থা গুরুতর। আহত শাহারিয়ার কবির শিশির রাজশাহী মেডিকেলে চিকিৎসাধীন রয়েছে। গতকাল রোববার দুপুর ১২ টার দিকে উপজেলা সমাজসেবা অফিসারের কার্যালয়ে আহত শাহারিয়ার কবির শিশিরের মা শিরিন শিলার হাতে নগদ দশ হাজার টাকা প্রদান করেন সমাজসেবা অফিসার আব্দুল মমিন। এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি অনিল কুমার সরকার, সহকারী সমাজসেবা অফিসার আব্দুল মতিন সহ অন্যান্য কর্মকর্তাগণ।
এদিকে বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে ছেলে আহত এবং পিতা নিহতের ঘটনায় নাটোর পল্লী বিদুৎ বাগমারা জোনাল অফিসের পক্ষ থেকে ঘটনার পর পরই ১০ হাজার টাকা দিয়ে দায় এড়িয়ে গেছেন। পরিকল্পিত পার্শ্ব সংযোগের বিদ্যুতের ঝুলন্ত তারে মর্মান্তিক মৃত্যু ও আহত ঘটনায় অফিস কর্তৃপক্ষের অবহেলায় হলেও নিহত পরিবারের প্রতি তেমন কোন সহযোগিতা করেননি। এছাড়া গুরুত্বর আহত মেডিকেলে চিকিৎসাধীন ছেলে শিশিরের কোন খোঁজ খবর না নেয়ায়  এলাকাবাসীর মধ্যে চরম  ক্ষোভ বিরাজ করছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ