ঢাকা, সোমবার 9 July 2018, ২৫ আষাঢ় ১৪২৫, ২৪ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

খুমেক হাসপাতালে থেরাপীর আড়ালে প্রতারণা

খুলনা অফিস : খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালে ফিজিও থেরাপীর পাশাপাশি প্রতারণা করা হচ্ছে। খুমেক হাসপাতালে রোগীর মেয়েকে ডাক্তার দেখানোর কথা বলে স্বর্ণালংকার নেয়ার বিষয়টি জানাজানি হয়। এ সময় সেখান থেকে বেদেনা আক্তার (৫২) নামের এক মহিলাকে গ্রেফতার করা হয়।
হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, গত সোমবার স্ট্রোকজনিত কারণে আকলিমা নামে এক রোগী ৫-৬ ওয়ার্ডে ভর্তি হন। মঙ্গলবার রোগীর মেয়ে মেরিনের সাথে প্রতারক বেদেনার  সাক্ষাৎ হয় ওয়ার্ডে। ওই সময় বেদেনা তার মাকে সৌদি থেকে আসা এক ডাক্তারকে দেখানোর কথা বলেন। বুধবার তাকে নিয়ে যাবেন এ কথা বলেন।
বুধবার ওই মহিলা আসলে রোগীর মেয়ে মেরিনাকে বলেন, ফ্রি কম্বল ও শাড়ি দুঃস্থ রোগীদের দেয়া হয়। এ হাসপাতালে ৩য় তলায় ওই ডাক্তার বসেন। ওই দিন রোগীর মেয়ে মেরিনাকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়ার আগে তার গলার স্বর্ণের চেইন ও কানের দুল খুলে রাখতে বলেন। এ সময় অলঙ্কারগুলো ওই মেয়েটির শাড়ির আঁচলে বাঁধতে গেলে প্রতারক মহিলা বেদেনা নিজে বেঁধে দেয়ার কথা বলে সুকৌশলে স্বর্ণালঙ্কার বদলে ইটের চাড়া বেঁধে দেন। এ সময় প্রতারক মহিলা ডাক্তার ডেকে আনার কথা বলে আর ফিরে আসেননি। ওই দিন তাকে আর পাওয়া যায়নি। শনিবার সকালে খুমেক হাসপাতালে ওই মহিলাটি আসলে প্রতারণার শিকার মেরিনা তাকে চিনে ফেলেন। এ সময় তাকে ধরে ফেলে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কের কাছে নিয়ে যায়। পরে হাসপাতালের কর্তৃপক্ষ পুলিশকে খবর দিলে প্রতারককে আটক করে সোনাডাঙ্গা থানায় নিয়ে যায়।
এ ব্যাপারে সোনাডাঙ্গা মডেল থানার এসআই পল্লব কুমার সরকার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ ঘটনায় মহিলার বিরুদ্ধে চুরির অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়েছে। ভুক্তভোগীর পরিবার মামলাটি দায়ের করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ