ঢাকা, বুধবার 11 July 2018, ২৭ আষাঢ় ১৪২৫, ২৬ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

অক্টোবরের শেষে সংসদ নির্বাচনের তফসিল

স্টাফ রিপোর্টার : জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল আগামী অক্টোবরের শেষের দিকে ঘোষণা করা হতে পারে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশন (ইসি)সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ। এবছর বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোটার তালিকা হালনাগাদ না করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলেও তিনি জানান।
গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে সভা শেষে হেলালুদ্দীন আহমদ এ কথা বলেন।
হেলালুদ্দীন বলেন, 'তফসিল ঘোষণার আগেই যাতে ৩০০টি আসনের সব ধরনের ভোটার তালিকা এবং ভোটার তালিকার সিডি প্রস্তুত থাকে সেজন্য প্রধান নির্বাচন কমিশন কে এম নুরুর হুদা সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি নির্দেশনা প্রদান করেছেন।'
সচিব বলেন, 'হিজড়া জনগোষ্ঠীকে তৃতীয় লিঙ্গ হিসেবে ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন নির্বাচন কমিশন। যেহেতু বিদ্যমান ভোটার তালিকায় তারা পুরুষ অথবা নারী ভোটার হিসেবে আছেন। এই মুহূর্তে আমরা এই বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ কিংবা আলাদা কবো না। তবে কেউ যদি আবেদন করে তার আবেদনের পরিপেক্ষিতে আমরা তাদের তৃতীয় লিঙ্গ হিসেবে ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করব। তবে আগামী বছর থেকে যখন ভোটার তালিকা হালনাগাদ করা হবে তখন থেকেই কিন্তু তাদের তৃতীয় লিংগ হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হবে।
তিনি বলেন, আগামী বছর ১ মার্চ থেকে জাতীয় ভোটার দিবস পালনের জন্য সরকার অনুমোদন করেছে। সেজন্য আগামী বছর থেকে জাঁকজমকপূর্ণভাবে উদযাপনের জন্য প্রধান নির্বাচন কমিশনার নির্দেশনা দিয়েছেন। দিবসটি উদযাপনের জন্য জেলা এবং উপজেলা পর্যায়ে কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা এখন থেকেই দিবসটি পালনের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করবেন।
ইসি সচিব আরো জানান, বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ১০টি, সিলেট ও রাজশাহীর দুটি করে কেন্দ্রে ইভিএম (ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন) ব্যবহার করা হবে।
ইসি সচিব আরো জানান, প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদার সভাপতিত্বে কমিশন সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে, এ বছরের শেষ দিকে জাতীয় সংসদ নির্বাচন। এ নির্বাচনি কাজে ব্যস্ততার কারণে ইসির পক্ষে এবছর বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোটার তালিকা হালনাগাদ করা সম্ভব হবে না। এছাড়াও পরবর্তীতে ভোটার তালিকা হালনাগাদ করার সময় হিজড়াদেরও ‘তৃতীয় লিঙ্গ’ পরিচয়ে ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন।
ইসি সচিব বলেন, বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে ভোটার তালিকা হালনাগাদ করা না হলেও কেউ নিজে এসে ভোটার হতে চাইলে তাকে ভোটার করা হবে। এটি একটি চলমান প্রক্রিয়া।
ইসি জানিয়েছে, ভোটার তালিকা হালনাগাদ না করলেও আইনি কোনও ব্যত্যয় হবে না। এ বিষয়ে ভোটার তালিকা আইন, ২০০৯ এর ১১ ধারায় বলা হয়েছে যদি ভোটার তালিকা পূর্বোল্লিখিতভাবে হালনাগাদ না করা হয়, তাহলে এর বৈধতা ও ধারাবাহিকতা ক্ষুণœ হবে না। এতে আরও বলা হয়, ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম গ্রহণ না করলেও আইনের কোনও ব্যত্যয় ঘটবে না। এরূপ ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম গ্রহণ না করার নজির রয়েছে।
তবে ইসির কেউ কেউ শঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম পরিচালনা করা না হলে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে পারে। কারণ ভোটার তালিকা বিধিমালা, ২০১২ এর ৩ বিধির ৯ (গ) এ বলা হয়েছে, বাড়ি বাড়ি গমনপূর্বক ভোটারদের মধ্যে নির্ধারিত ফরম বিতরণ ও প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহের জন্য কমিশন কর্তৃক নির্ধারিত তথ্য সংগ্রহকারীগণের দ্বারা সম্পন্ন করা হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ