ঢাকা, বুধবার 11 July 2018, ২৭ আষাঢ় ১৪২৫, ২৬ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

চট্টগ্রাম মহানগরীর সৌন্দর্যবর্ধনে ৭৭ কোটি টাকা ব্যয়ে শীঘ্রই কাজ শুরু করছে চসিক

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রাম মহানগরীর প্রধান প্রধান সড়ক সৌন্দর্যবর্ধনে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) প্রকল্পের আওতায় ৩৮২ কোটি টাকার মধ্যে দুটি উপ-প্রকল্প’র কাজ শিঘ্রই শুরু করতে যাচ্ছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন। গৃহীত প্রকল্পের একটি স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে অক্সিজেন হতে ২ নম্বর গেইটস্থ বেবী সুপার মার্কেট পর্যন্ত।
অপর প্রকল্পকে ২টি অংশে ভাগ করা হয়েছে। প্রথম অংশে থাকবে সিমেন্ট ক্রসিং হতে রুবি সিমেন্ট পর্যন্ত এবং দ্বিতীয় অংশে বোট ক্লাব হতে নেভাল একাডেমি পর্যন্ত এরিয়াকে সৌন্দর্য্যবর্ধনের আওতায় আনা হবে। মোট প্রকল্পের ৩৮২ কোটি টাকার মধ্যে অক্সিজেন হতে ২ নম্বর গেইটস্থ বেবী সুপার মার্কেট পর্যন্ত প্রকল্পে ২৭ কোটি ও বোট ক্লাব হতে নেভাল একাডেমি পর্যন্ত প্রকল্পে ৫০ কোটিসহ মোট ৭৭ কোটি টাকা ব্যয় করবে কর্পোরেশন।
গত  রবিবার দুপুরে মেয়র দপ্তরে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরশন নগর  পরিকল্পনা বিভাগ ও নগর বিউটিফিকেশন বিষয়ক পরামর্শক প্রতিষ্ঠান স্টাইল লিভিং আর্কিটেকস্ লি. এর চেয়ারম্যান মো. মিজানুর রহমান প্রকল্প দু’টির ডিজাইন পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন এর মাধ্যমে উপস্থাপন করেন। এসময় চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন উপস্থিত ছিলেন।
এতে অন্যান্যদের মধ্যে কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লব,নাজমুল হক ডিউক, মো. শফিউল আলম, মাজহারুল হক, সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফারহানা জাবেদ, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা, সচিব মো. আবুল হোসেন, প্রধান প্রকৌশলীলে. কর্ণেল মহিউদ্দিন আহমদ, তত্ত্বাবধায়ক, নির্বাহী প্রকৌশলীগণ ও স্থপতি আবদুল্লাহ আল ওমর উপস্থিত ছিলেন।
চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় প্রায় ৭৭ কোটি টাকা ব্যয়ে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ এয়ারপোর্ট রোড এবং হাটহাজারী রোডের ২নম্বর গেইট থেকে অক্সিজেন মোড় পর্যন্ত সড়কের আধুনিকীকরণ ও সৌন্দর্যবর্ধন কাজ বাস্তবায়ন শুরু হচ্ছে। আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে সংশ্লিষ্ট পরামর্শক প্রতিষ্ঠানকে প্রকল্পের ডিজাইন, ব্যয় এবং প্রস্তুতি কর্মকান্ডের আলাদা আলাদা প্রজেক্ট ভেল্যু নির্ধারণ করে প্রকৌশল বিভাগে প্রতিবেদন দাখিলের ব্যাপারে নির্দেশনা দিয়েছেন সিটি মেয়র। প্রজেক্ট ভেল্যু পেপার জমা দেয়ার পর প্রকল্পটি বাস্তবায়নে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন দরপত্র আহবান প্রক্রিয়া শুরু করবে। এ প্রসঙ্গে সিটি মেয়র বলেন বর্ষা মৌসুম শেষে এ প্রকল্পের কাজ শুরু হবে। এ প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে নগরীর যানজট অনেকাংশে হ্রাস,মানুষের চলাচল উপযোগী সড়ক,যানবাহনের শৃঙ্খলা,দৃষ্টি নন্দন ও সবুজায়ন এবং নগরবাসীর চিত্ত বিনোদনের জায়গা সৃষ্টি হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ