ঢাকা, বুধবার 11 July 2018, ২৭ আষাঢ় ১৪২৫, ২৬ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

আগৈলঝাড়া-পয়সারহাট-গোপালগঞ্জ মহাসড়ক সংস্কারে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের অবহেলা

আগৈলঝাড়া-গোপালগঞ্জ মহাসড়কে খানাখন্দ

আগৈলঝাড়া (বরিশাল) সংবাদদাতা: ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের অবহেলার কারণে বরিশালের আগৈলঝাড়া-পয়সারহাট-গোপালগঞ্জ মহাসড়কে প্রায় চার কিলোমিটার সড়ক সংস্কার না করায় খানাখন্দে ভরে আছে। লোকজন, যানবাহন চলাচলে দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে প্রতিদিন। ওই চার কিলোমিটার সড়ক দিয়ে দিনে ও রাতে গাড়ী চলাচল করতে গিয়ে ঘটছে দূঘর্টনা। একটু বৃষ্টি হলেই খানাখন্দে পানি জমে ঘটছে দূর্ঘটনা।
ভাঙ্গাচোরা সড়কের কারণে গাড়ীর যন্ত্রাংশ নষ্ট হচ্ছে। সড়ক ও জনপথ বিভাগ (সওজ) সূত্রে জানা গেছে, বরিশালের গৌরনদী-আগৈলঝাড়া-গোপালগঞ্জ মহাসড়ক খানাখন্দ ও গর্তের কারণে ১৬ কিলোমিটার সড়ক সংস্কারের জন্য ২০১৮ সালে ২৩ কোটি টাকা ব্যয়ে টেন্ডার আহবান করেন বরিশাল সড়ক ও জনপথ বিভাগ। টেন্ডারে বরিশালের ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান এম খান গ্রুপ নামে প্রতিষ্ঠান কাজটি পায়। ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান বাইপাসের পৌনে চার কিলোমিটার বাদে ১২ কিলোমিটার সড়কের কাজ শেষ করে। ঈদের পরে ওই সড়কে কাজ করে দেয়ার কথা ছিল।  বর্তমানে ওই সড়কের চার কিলোমিটারে বড় বড় গর্ত হয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধের পথে রয়েছে। গাড়ীতে করে সারা পথ যাত্রীরা ভাল আসলেও ওই চার কিলোমিটার সড়কে তাদের সারা পথের যাত্রা ম্লান করে দেয়। অনেক গাড়ীর যন্ত্রাংশ ভেঙ্গে চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। রাতের অন্ধকারে চলতে গিয়ে ঘটছে দূর্ঘটনা। ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের অবহেলার কারণে এই চার কিলোমিটার সড়ক সংস্কার করা হয়নি দীর্ঘদিনেও।
ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান ইচ্ছা করলে যাত্রীদের চলাচলের সুবিধার্থে ইট দিয়ে সংস্কার করে দিতে পারতো। এ ব্যাপারে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজার মাসুদ তালুকদার জানান, ঈদের পরে আমরা বাইপাসের ওই চার কিলোমিটার সড়ক সংস্কার করব।
এ ব্যাপারে সওজ উপ-সহকারী প্রকৌশলী এম এ হানিফ বলেন, ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান ঈদের পরে কাজ করে দেব বলে জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ