ঢাকা, শনিবার 14 July 2018, ৩০ আষাঢ় ১৪২৫, ২৯ শাওয়াল ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বর্তমান সরকারের পতন হবে আইয়ুব কিংবা এরশাদের মত -নোমান

স্টাফ রিপোর্টার : স্বৈরশাসক আইয়ুব খান ও এরশাদের যেভাবে পতন হয়েছিল, বর্তমান সরকারেরও তেমনিভাবে পতন হবে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান। তিনি বলেন, আগামীতে আমরা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করব। তবে এই সরকারের অধীনে নয়। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে। কারণ, এই সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচন সুষ্ঠু হবে না, তা প্রমাণিত।
গতকাল শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে জিয়া আদর্শ একাডেমি আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।
আবদুল্লাহ আল নোমান বলেন, বর্তমান সরকার আজকে যেমন পুলিশ বাহিনী ব্যবহার করছে, তেমনি অতীতে এরশাদ ও আইয়ুব খানও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ব্যবহার করেছে। কিন্তু তারা টিকতে পারেনি। এরাও টিকতে পারবে না। আমরা অগ্রযাত্রায় আছি আর সরকার যেখানে গিয়েছে, সেখান থেকে ফিরতে পারবে না। যারা আমাদের কারাগারে দিচ্ছে, তারা আগামীতে কারাগারে যাবে, এটা হলো ইতিহাসের নিয়ম। এই সরকারের জনগণের প্রতি কোনো আস্থা নেই। তাই তারা নির্যাতন, নিপীড়ন, হামলা, মামলার মাধ্যমে ক্ষমতায় থাকতে চাইছে।
তিনি বলেন, বর্তমান সরকার বাকশালপন্থায় ক্ষমতায় আছে। জনগণকে নির্যাতন-নিপীড়ন করে ক্ষমতা ধরে আছে।
তিনি বলেন, বর্তমানে দেশে যে সংকট, এই সংকট বিএনপির একার না, এ সংকট দেশের সবার। তাই এ সংকট মোকাবিলা করতে হলে দেশের জনগণকে রাস্তায় নামতে হবে। তা না হলে আন্দোলন কখনও সফল হবে না।
সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে বিএনপির এই নেতা বলেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) বলেছেন, খুলনা ও গাজীপুর ভালো নির্বাচন হয়নি। ভুলত্রুটি হয়েছে। আগামী নির্বাচনগুলোতে সেই ভুলগুলো হবে না। মানে তিনি স্বীকার করেছেন নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি।
বাংলাদেশের স্বাধীনতা বিনষ্ট করার জন্য বর্তমানে দেশের আকাশে-বাতাসে শকুনিরা উড়ছে মন্তব্য করে নোমান বলেন, দেশে বর্তমানে একদিকে বাকশাল সরকার, অন্যদিকে দেশের জনসাধারণ। এই  স্বৈরাচারী সরকারের পতন করতে হলে দেশের জনসাধারণ সবাইকে সম্মিলিতভাবে গণঐক্য তৈরি করে আন্দোলন করতে হবে। তাহলেই এর পতন হবে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা বিনষ্ট করার জন্য বর্তমানে দেশের আকাশে-বাতাসে শকুনিরা উড়ছে। এদের যেভাবেই হোক থামাতে হবে। তা না হলে দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রক্ষা করা যাবে না।
বিএনপির এই সিনিয়র নেতা বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার প্রতিষ্ঠিত গণতন্ত্রকে বর্তমান সরকার ধ্বংস করে ফেলেছে। সেই গণতন্ত্রকে আবার ফিরিয়ে আনতে হলে কঠোর আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। আর বর্তমানের যে আন্দোলন এটা শুধু বিএনপি নয়, এটা দেশের সর্বসাধারণের সবার আন্দোলন।
আয়োজক সংগঠনের সভাপতি আজম খানের সভাপতিত্বে ও দেশ বাঁচাও, মানুষ বাঁচাও আন্দোলনের সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপনের সঞ্চালনায় সভায় আরও বক্তব্য রাখেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক কাদের গণি চৌধুরী, বিএনপির প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এবিএম মোশাররফ, জিনাফের সভাপতি লায়ন মিয়া মোহাম্মদ আনোয়ার, ছাত্রদলের সহ-সাধারণ সম্পাদক আরিফা রুমা প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ