ঢাকা, রোববার 15 July 2018, ৩১ আষাঢ় ১৪২৫, ১ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

চিকিৎসক ও শিক্ষার্থীদের মহাসড়ক অবরোধ মানববন্ধন ও বিক্ষোভ

গাজীপুর সংবাদদাতা : গাজীপুরে বাসের ধাক্কায় তায়েরুন্নেছা মেমোরিয়াল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের এক চিকিৎসক নিহত হওয়ার প্রতিবাদে ও দায়ীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে গতকাল শনিবার ওই মেডিক্যালের চিকিৎসক, শিক্ষার্থী ও কর্মচারীরা মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছে। এসময় তারা ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক প্রায় দেড় ঘন্টা অবরোধ করে রাখে। এতে প্রচন্ড গরমে দীর্ঘ সময় যাত্রীদের দুর্ভোগ পোহাতে হয় ও দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।
আন্দোলনরতরা, পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, গত বৃহস্পতিবার বিকেলে গাজীপুরের বোর্ডবাজার এলাকায় জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন স্থানীয় কুনিয়া এলাকার তায়েরুন্নেছা মেমোরিয়াল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক সাম্মীর শাকির প্রকাশ। এ সময় বিআরটিসি’র একটি বাস অপর একটি বাসকে ওভারটেক করতে গিয়ে চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে। এতে বিআরটিসি বাসটি চিকিৎসক প্রকাশকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনার প্রতিবাদে ওই মেডিক্যালের চিকিৎসক, শিক্ষার্থী ও কর্মচারীরা গতকাল শনিবার সকালে ক্যাম্পাসে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ শুরু করে। এক পর্যায়ে তারা কলেজের সামনে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে মানববন্ধন ও সমাবেশ কর্মসূচি পালন শুরু করে। এসময় তারা ওই মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করতে থাকে। আন্দোলনরতরা ঘাতক বাসের চালককে শীঘ্রই গ্রেপ্তার, কলেজের সামনে ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণ ও নিহত চিকিৎসকের পরিবারকে সরকারিভাবে সহয়তা প্রদানের দাবি জানায়। এতে ওই সড়কের উভয়দিকে যানবাহন আটকা পড়ে চলাচল বন্ধ হয়ে যায় এবং দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে। এসময় পুলিশ আন্দোলনকারীদের বুঝিয়ে এবং দায়ীদের গ্রেপ্তারের আশ্বাস দিলে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে অবরোধকারীরা তাদের কর্মসূচি প্রত্যাহার করে নিলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে এবং সড়কে যানবাহন চলাচল শুরু হয়। প্রায় দেড় ঘন্টা মহাসড়ক অবরোধের কারণে উভয় পশে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। এতে প্রচন্ড গরমে আটকে থাকা যাত্রীদের অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হয়।
গাজীপুর ট্রাফিক পুলিশের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার সালেহ উদ্দিন আহম্মদ জানান, চিকিৎসক নিহতের ঘটনায় দায়ীদের গ্রেপ্তারের আশ্বাসে সকাল সোয়া ১০টার দিকে আন্দোলনকারীরা তাদের অবরোধ কর্মসূচি প্রত্যাহার করে নিলে যানবাহন চলাচল শুরু হয়। তবে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হতে দীর্ঘ সময় লাগে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ