ঢাকা, রোববার 15 July 2018, ৩১ আষাঢ় ১৪২৫, ১ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

খাদ্যে বিষক্রিয়ায় কলারোয়ায় এক পরিবারের ৪ সঙ্গাহীন

কলারোয়া (সাতক্ষীরা) সংবাদদাতা: কলারোয়া পাচপোতা গ্রামে খাদ্যে বিষক্রিয়ায় একই পরিবারের ৪ জন সংগাহীন হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এলাকাবাসি জানায়, গতপরশু শুক্রবার রাত আনুঃ ৯ টায় পাঁচপোতা গ্রামের কৃষক  হারান মোড়ল (৪৫), স্ত্রী-তাসলিমা বেগম (৩০), কন্যা স্বপ্না খাতুন (১৫) ও পুত্র শাওন (১২) এক সাথে বসে রাতের খাবার খেতে বসেন। খাওয়ার এক পর্যায়ে স্ত্রী তাসলিমা হঠাৎ অচেতন হয়ে পড়ে। সংগে সংগে ডাক চিৎকারে হারানের ভাইয়েরা ছুটে আসে। কিন্তু ততক্ষণে হারানের পরিবারের সকলে সঙ্গাহীন হয়ে পড়ে। ভাই ও গ্রামবাসি মিলে দ্রুত তাদের কলারোয়া এনে ভর্তি করেছে। তবে বিষক্রিয়ার কোন কারণ জানা যায়নি।
গৃহবধূর লাশ উদ্ধার : কলারোয়া হাসপাতাল থেকে পুলিশ রেশমা খাতুন নামে এক গৃহবধূর মৃত্যুদেহ উদ্ধার করেছে। নিহত গৃহবধূ উপজেলার পাচপোতা গ্রামের ট্রলিচালক জাহাঙ্গীর হোসেনের স্ত্রী। এলাকাবাসি জানায়, জাহাঙ্গীর তিন মাস পূর্বে সাতক্ষীরা সদরের বকচরা গ্রামের তৈয়ব আলীর কন্যা রেশমাকে বিয়ে করে। শুক্রবার রাতে জাহাঙ্গীর প্রতিবেশীদের জানায় তার স্ত্রী রেশমা ষ্ট্রোক করেছে। আবার পরক্ষণে জানায়, গলায় দড়ি দিয়েছে। তাই স্ত্রীকে চিকিৎসার জন্য কলারোয়া হাসপাতালে নিয়ে যাচ্ছে। রেশমা ষ্টোক করেছে বলে তার পিত্রালয়ে খবর পাঠানো হয়। নিহতের ভাই আমিনূর পাচপোতায় বোনের বাড়ি এসে কাউকে না পেয়ে প্রতিবেশীদের কাছে জানতে পারে তার বোনকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। কলারোয়া হাসপাতালে পৌছে বোনকে একাকি মেঝেতে পড়ে থাকতে দেখে। ডাক্তারের কাছে জানতে পারে তার বোন মারা গেছে। খবর পেয়ে পুলিশ হাসপাতাল থেকে রেশমার লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। এঘটনায় কলারোয়া থানায় একটি ইউডি মামলা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ