ঢাকা, রোববার 15 July 2018, ৩১ আষাঢ় ১৪২৫, ১ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

খালেদা জিয়ার গুরুতর অসুস্থতার কারণে জেলে গিয়ে স্বজনরা তার দেখা পাননি

স্টাফ রিপোর্টার : কারাবন্দী বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া প্রচন্ড জ্বরে ভুগছেন, তার শরীরে ব্যথাও রয়েছে। আর এ কারণেই স্বজনরা কারাগারে গেলেও তিনি দেখা করতে পারেননি। গতকাল শনিবার বিকেলে কারাগার থেকে বেরিয়ে এসে গণমাধ্যমের কাছে একথা বলেন খালেদা জিয়ার বোন সেলিমা ইসলাম।  
সূত্র মতে, অনুমতি মিললেও অসুস্থতার কারণে নিচে নামতে না পারায় খালেদা জিয়ার সাথে দেখা হয়নি তার স্বজনদের। গতকাল বিকেলে কারাগারে ভেতরে প্রবেশ করে বেরিয়ে এসে খালেদা জিয়ার বোন সেলিমা ইসলাম কারা ফটকের বাইরে অপেক্ষামান সাংবাদিকদের বলেন, যতটুক জেনেছি, বেগম খালেদা জিয়া জ্বরে ভুগছেন, তার শরীরের ব্যথা রয়েছে। সেসব কারণে তিনি দোতলা থেকে নেমে নিচতলায় আসতে পারেননি। তাই আজকে কারাগারে এসেও তার সাথে আমাদের দেখা হয়নি।
 বেগম সেলিমা ইসলাম আরো বলেন, আগে উপরে গিয়ে তার (খালেদা জিয়ার) রুমের পাশে করিডোরে দেখা করতাম। কিন্তু আজকে সে অসুস্থ জেনে এসেছি, পারমিশনও দেয়া হয়েছে। কিন্তু উনি নামতে পারছেন না। আমাদেরও উপরে যেতে দিলো না। আমাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ হয়নি। ওর স্বাস্থ্যের জন্য আমরা উদ্বিগ্ন।
খালেদা জিয়াকে দেখতে পেরেছেন কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ও নামতে পারছে না, আমাদেরও উপরে যেতে দেয়নি। আগে কিন্তু উপরে যেতে দিত। আমরা এর আগে অনেকবার উপরে গিয়ে তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছি। যেহেতু সে হাঁটতে পারে না, তার পায়ে ব্যথা। আজকে সে অসুস্থ ছিল, জ্বর ছিল, তিন চারদিন বেশ জ্বর। এখন বলছে বুকে ব্যথা। সে তো হাঁটতে পারছে না। সে নামবে কী করে?
বিকেল ৪টার দিকে কারা কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে পুরানো ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারে আসেন খালেদা জিয়ার বোন সেলিমা ইসলাম, সেলিমা ইসলামের স্বামী রফিকুল ইসলাম, তারেক রহমানের স্ত্রীর বড় বোন শারমিন জামান খান, খালেদা জিয়ার ভাগ্নে ডা. মামুন ও ভাগ্নি সাফিয়া ইসলাম। তারা কারাগারেও প্রবেশ করেন বিকাল ৫টার দিকে। পঁয়তাল্লিশ মিনিট পর কারাগার থেকে তারা বেরিয়ে আসেন। কারাগারের ভেতরে ভিজিটিং কক্ষে তারা বেগম জিয়ার অপেক্ষায় ছিলেন ওই সময়টিতে। কারাগার থেকে বেরিয়ে এসে পরিবারের সদস্যরা বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামের সাথেও টেলিফোনে খালেদা জিয়ার সর্বশেষ অবস্থা জানান।
গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়া পাঁচ বছরে সাজা নিয়ে কারাগারে বন্দী রয়েছেন। সর্বশেষ খালেদা জিয়ার সাথে তার আত্মীয় স্বজনদের সাক্ষাৎ হয় গত ৩০ জুন। এরপর আত্বীয়-স্বজনদের কারা কর্তপক্ষ কোনো সাক্ষাতের অনুমতি না দেয়ায় ১১ জুলাই এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বিষয়টি জনসমক্ষে প্রকাশ করেন। মহাসচিব বলেন, খালেদা জিয়াকে দীর্ঘ ১১দিন তার পরিবারের সাথে দেখা করতে দেওয়া হচ্ছে না। এ বিষয়ে কারা কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করা হলে তারা কারাবিধির নানা অজুহাত দেখাচ্ছে। দেখা-সাক্ষাতের ব্যাপারে জেল সুপারকে বলা হলে তিনি বলেন আইজি প্রিজনের কথা। আইজি প্রিজনকে বললে তিনি বলেন মন্ত্রীকে বলেন। মন্ত্রীর কাছে গেলে তিনি বলেন এক নম্বরের সম্মতি ছাড়া আমার পক্ষে কোনো কিছু করা সম্ভব নয়। সম্পূর্ণভাবে কারাবিধি লঙ্ঘন করে যেখানে জেল সুপার ইজ দ্যা ফাইনাল অথোরিটি, সেই লঙ্ঘন করে আজকে  তাকে সাক্ষাতের অনুমতি দেয়ার জন্য আমাদের যদি সরকারের প্রধান ব্যক্তির কাছে যেতে হয় তাহলে তো এদেশে আর কিছু অবশিষ্ট নেই।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ