ঢাকা, রোববার 15 July 2018, ৩১ আষাঢ় ১৪২৫, ১ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

নির্বাচনে অংশ নেয়ার স্বাধীনতা সব রাজনৈতিক দলেরই রয়েছে

গতকাল শনিবার বিএনপি চেয়ারপার্সনের গুলশান কার্যালয়ে ২০ দলীয় জোটের বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার: আগামী ৩০ জুলাই অনুষ্ঠিতব্য সিলেট সিটি নির্বাচনে জামায়াতে ইসলামীর প্রার্থিতা প্রত্যাহার করতে অনুরোধ জানিয়েছে জোটের নেতারা। গতকাল শনিবার বিকেলে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপার্সনের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত জোটের বৈঠকে শরীক দলগুলোর নেতারা জামায়াতকে এই অনুরোধ করেন বলে জানা গেছে।
জোটের সমন্বয়ক ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে বৈঠকে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য মোবারক হোসেন, বিজেপি চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আন্দালিব রহমান পার্থ, এলডিপিরি ড, রেদোয়ান আহমেদ, ইসলামী ঐক্যজোটের মাওলানা আবদুল করীম, খেলাফতে মজলিশের শেখ গোলাম আজগর, এনডিপির খন্দকার গোলাম মূর্তজা, এনপিপির ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, লেবার পার্টির মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, হামদুল্লাহ আল মেহেদি, ন্যাপ-ভাসানীর আজহারুল ইসলাম, ন্যাপের এম গোলাম মোস্তফা ভুঁইয়া, জাতীয় পার্টি (কাজী জাফর) আহসান হাবিব লিংকন, সাম্যবাদী দলের সাঈদ আহমেদ, ডিএলের সাইফুদ্দিন আহমেদ মনি, মুসলিম লীগে শেখ জুলফিকার বুলবুল চৌধুরী, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম মাওলানা মহিউদ্দিন ইকরাম প্রমুখ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
বৈঠকের পর সাংবাদিক সম্মেলনে ২০ দলীয় জোটের সমন্বয়ক ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, সিলেটে জামায়াতের প্রার্থী এখনও আছে। গতকাল শনিবার বৈঠকে সব শরীকরা অনুরোধ করেছেন, তাদের প্রার্থিতা প্রত্যাহার করতে।
তিনি আরও বলেন, নিশ্চয় রাজনৈতিক দল হিসেবে জামায়াতের সেই সিদ্ধান্ত নেয়ার অধিকার আছে। বৈঠকে তাদের প্রতিনিধি ছিলেন। তিনি দলের হাইকমান্ডকে আমাদের অনুরোধের বিষয়টি অবহিত করবেন। আশা করি ২০ দলীয় জোটের ঐক্যের বিষয়টি তাদের কাছে গুরুত্ব পাবে।
এক প্রশ্নের জবাবে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আমরা স্পষ্ট করে বলতে চাই, ২০ দলের শরিক দলের মধ্যে কোনো বিভেদ নেই। জামায়াতে ইসলামীই বলুন অথবা সাম্যবাদী দলই বলুন- আমরা সব দল এক। স্থানীয় সরকার নির্বাচনে সব রাজনৈতিক দল তার নিজস্ব সিদ্ধান্তে নির্বাচনে প্রার্থী দেয়। আমার প্রস্তাব থাকবে আজকে দেশের যে গণতান্ত্রিক মৃত্যু, গণতন্ত্রের যে মৃত্যু হয়েছে সেই পরিস্থিতিতে জামায়াতে ইসলামী তা অনুধাবন করবেন এবং অন্যান্য শরিক দল যারা আছেন তাদের সঙ্গে একমত হয়ে তারা ধানের শীষের প্রার্থী আরিফুর রহমানকে জয়যুক্ত করবেন।
সিলেট সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে জামায়াতে ইসলামীর আলাদা প্রার্থীর মনোনয়ন দেয়ায় এটি জাতীয় নির্বাচনে প্রভাব ফেলবে কিনা প্রশ্ন করা হলে মির্জা ফখরুল বলেন, এটার প্রশ্নই উঠে না। সব নির্বাচনে যে কোনো রাজনৈতিক দল অংশগ্রহণ করবে সেই স্বাধীনতা আছে। জামায়াতকে আমরা অনুরাধ করেছি। সিলেটের ব্যাপারে তারা ২০ দলীয় জোটের অনুরোধ রাখবেন।
সাংবাদিক সম্মেলন শেষে জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্ম পরিষদের সদস্য মোবারক হোসাইন বলেন, ২০ দলীয় শরীকরা জামায়াতে ইসলামীর প্রার্থী প্রত্যাহারের অনুরোধ করেছেন, আমি দলের নীতি-নির্ধারকদের কাছে এই বার্তা পৌঁছে দেব।
নজরুল ইসলাম খান জানান, জোটের বৈঠকে জাতীয় পার্টির মহাসচিব মোস্তফা জামাল হায়দারের স্ত্রী অধ্যাপিকা জওসন আরা বেগমের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে তার রুহের মাগফিরাত কামনায় বিশেষ মুনাজাত করা হয়। এছাড়া ১২ জুলাই এলডিপির চেয়ারম্যান কর্নেল (অব) অলি আহমেদের গাড়ি বহরে হামলার নিন্দা জানানো হয়। বৈঠকে সিটি নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর আচরণে ক্ষোভ জানানো হয় বলে জানা গেছে।
বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে যে, রোববার থেকে ২০ দলীয় জোট নেতৃবৃন্দ তিন সিটি নির্বাচনে প্রচারনা কার্যক্রম শুরু করবে। বরিশালে বিজেপির আন্দালিব রহমান পার্থ, রাজশাহীতে এনডিপির খন্দকার গোলাম মূর্তজা ও সিলেটে ইসলামী ঐক্যজোটের মাওলানা এম এ রকীবের নেতৃত্বে গঠিত পরিচালনা কমিটি কাজ করবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ