ঢাকা, রোববার 15 July 2018, ৩১ আষাঢ় ১৪২৫, ১ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

স্রোতের কারণে ফেরি চলছে বিকল্প চ্যানেলে শত শত ট্রাক পারাপারের অপেক্ষায়

লৌহজং (মুন্সীগঞ্জ) সংবাদদাতা : শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ি নৌরুটে স্রোতের সাথে প্রতিযোগিতায় টিকতে না পেরে অবশেষে বিকল্প চ্যানেলে চলাচল করছে এ নৌ-রুটের ফেরিগুলো। বুধবার পরীক্ষা-নিরিক্ষার পর বৃহস্পতিবার চ্যানেলটি খুলে দেয়া হয়েছে। এখন এক মুখীভাবে ফেরি চলাচল করছে এ নৌরুটে। তবে ঘাট এখনও যানজট মুক্ত হয়নি। শত শত ট্রাক পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে। যানজটে আটকে থাকা ছোট ছোট গাড়ী ও যাত্রীবাহি পরিবহনগুলো যানজট মুক্ত হয়ে ফেরিতে পদ্মা নদী পার হয়েছে। সরেজমিনে শিমুলিয়া ঘাটে গিয়ে কথা হয় পারহতে আসা ট্রাক চালক উজ্জল হোসেন এর সাথে তিনি বলেন ভাই মঙ্গলবার এসেছি অনেক কষ্ট করে আজ সিরিয়াল পেলাম এছারা ৫ কিলোমিটার ছিলাম রাস্তার জ্যামে। এমময়ে ছুটে আসেন আলিম মাদবর ও লিয়াকত নামের দু’জন ট্রাকের চালক তাদের সাথে অন্য চালকরা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, ভাইরে শিমুলিয়া ফেরীঘাটের ১নং ঘাটি হল টাকার ঘাট এখানে যে লাইন দেখছেন কেই ৫০০ কেই ১০০০ হাজার দিয়ে সিরিয়ালে ডুকছে ,শিমুলিয়া মোড়ে ও ঘাটের ট্রাফিক বক্রোর সামনে এ দুজাগায় টাকা না দিয়ে কেই গাড়ি ডুকাতে পারেনা। এর সাথে ঘাটের দালাল বিআইডব্লিউটিসির আনসার ও ট্রাফিক পুলিশের এক শ্রেণির অসাধু সদস্যরা জড়িত। তবে এসব অভিযোগ অস্বিকার করেছেন ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা তার বলেন এত বড় ঘাট কে কোন খান দিয়ে টাকা উঠায় কি ভাবে বুজবো,তাছারা যারা ফেরীতে গাড়ি উঠায় সবাইতো তারা স্থানীয়।

বিআইব্লিউটিএর এজিএম শাহ খালেদ নেওয়াজ জানান, বর্তমান রানিং চ্যানেল লৌহজং টানিং পয়েন্টে ঘূর্ণাবর্ত ও প্রবল স্রোতের কারণে গত বেশ কিছু দিন ধরে ফেরি চলাচলে প্রতিবন্ধকতা তৈরি হচ্ছিল। ফেরিগুলো স্রোত ঠেলে চ্যানেল পারি দিতে পারছিলনা। বিআইডব্লিউটিএ বৃহস্পতিবার হতে গতবারের বিকল্প চ্যানেলটি পুরোপুরি খুলে দেয়। সকাল হতেই লৌহজং টানিং পয়েন্টে ৩ কি.মি. নীতে বিকল্প এ চ্যানেল দিয়ে ফেরি চলাচল করছে। একমুখীভাবে ফেরি চলাচল করায় ফেরিগুলোকে আর এখন লৌহজং টানিং পয়েন্টের স্রোতের প্রতিকুলে যেতে হচ্ছেনা। তবে আনেকটা পথ ঘুরে চলায় ফেরি চলাচলে আগের থেকে কিছুটা সময় লা­গছে বেশী। এতে ফেরির ট্রীপ সংখ্যা কমলেও সকাল থেকে প্রায় সব কটি ফেরি চলাচল করছে। শিমুলিয়া পাকিং ইয়ার্ড থেকে অনেক পণ্যবাহি ট্রাক পার করা হলেও মহাসড়কে দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকগুলো এখন পাকিং ইয়ার্ডে ঢুকছে। তাই পাকিং ইয়ার্ড খালি না হলেও পারাপারের অপেক্ষায় থাকা পণ্যবাহি ট্রাকের জট কমে আসছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ