ঢাকা, রোববার 15 July 2018, ৩১ আষাঢ় ১৪২৫, ১ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ফেনীতে এক পরিবারের ১০ জনকে অজ্ঞান করে ডাকাতি

ফেনী সংবাদদাতা: ফেনী সদর উপজেলার বালিগাঁও ইউনিয়নের ধোনসাহাদ্দা রশীদিয়া মাদরাসার পাশের বাড়িতে রবিবার রাতে খাওয়ার সাথে নেশা জাতীয় দ্রব্য মিশিয়ে এক পরিবারেরর ১০ জনকে অজ্ঞান করে স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকা নিয়ে পালিয়ে যায় দুর্বত্তরা। ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার সূত্রে জানা যায়, ফেনী শহরের জামান মার্কেটের ব্যবসায়ী ফজলুল হকের ঘরে কে বা কাহারা রাতে খাবারের সাথে নেশাজাত দ্রব্য মিশিয়ে দেয়। পরিবারের সদস্যরা রাতের খাবার খেয়ে পড়ে। সকাল ৮টা পর্যন্ত ঘরের লোকজন দরজা না খোলায় প্রতিবেশীদের সন্দেহ হয়। তখন প্রতিবেশীরা ঘরের দরজা ভেঙ্গে ভেতরে প্রবেশ করে দেখে। ওই পরিবারের সদস্যরা বিছানায় অচেতন অবস্থায় পড়ে রয়েছে ও ঘরের জিনিসপত্র এলোমেলোভাবে পড়ে আছে। প্রতিবেশীরা তাদের উদ্ধার করে ফজলুল হকসহ ১০ জনকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। এদের মধ্যে গৃহকর্তা ষাটোর্ধ্ব ফজলুল হক ছাড়াও তার স্ত্রী জেবুন্নেসা (৫০), বড় ছেলে একরাম হোসেন (২৯), একরাম হোসেনের স্ত্রী আসমা (২০), ছোট ছেলে এরফান হোসেন (১৫), নাতনী আফিফা (৩), মাহবুব হাসান (১৩), জাহিদুল ইসলাম (১৮), গৃহ শিক্ষক ইব্রাহিম (৫০) ও তার ছেলে মাহবুবুল হক (১৯) রয়েছে। গৃহকর্তা ফজলুল হকের ভাগ্নে নাজমুল হক জানান, ঘরের মালামাল লুট করতে দুর্বৃত্তরা রাতের খাবারের সাথে নেশা জাতীয় দ্রব্য মিশিয়ে দেয়। এ সময় প্রায় ১০ থেকে ১৫ ভরি স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকা লুট করে নিয়ে যায়। ফেনী মডেল থানার এসআই খুরশিদ আলম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, তিনি সদর হাসপাতালে গিয়ে অসুস্থদের সাথে দেখা করে ঘটনার খোঁজখবর নিয়েছেন। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও তিনি জানান। এদিকে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ওই পরিবারের সদস্যদের দেখতে ইউপি চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক বাহার ও উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক করিম উল্লাহ আজাদ সহ এলাকার লোকজন সদর হাসপাতালে যান। তারা জানান, এ ঘটনায় এলাকায় আতংক বিরাজ করছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ