ঢাকা, সোমবার 16 July 2018, ১ শ্রাবণ ১৪২৫, ২ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বৈষম্যমূলক কোটা ব্যবস্থা বহাল রাখার জন্য সরকার নানা অপকৌশলের আশ্রয় গ্রহণ করছে -ডা. শফিকুর রহমান

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনারের পাদদেশে মানববন্ধন শেষে গতকাল রোববার বেলা পৌনে একটার দিকে কোটা সংস্কারের পক্ষে আন্দোলনকারী সাধারণ ছাত্র, শিক্ষক ও কর্মরত সাংবাদিকদের ওপর সরকারের মদদপুষ্ট ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীদের হামলা এবং ছাত্র-শিক্ষকদের ও সাংবাদিকদের লাঞ্ছিত করার ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমান বলেন, উক্ত ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক। তিনি এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান।
গতকাল দেয়া বিবৃতিতে তিনি বলেন, সরকারের মদদপুষ্ট ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা সাধারণ ছাত্র-শিক্ষক ও কর্মরত সাংবাদিকদের লাঞ্ছিত করেই ক্ষান্ত হয়নি, কর্মরত সাংবাদিকদের ক্যামেরা ও মোবাইল ফোন পর্যন্ত ভেংগে দিয়েছে। এ ঘটনার মধ্য দিয়ে তাদের ফ্যাসিবাদী চরিত্রই অত্যন্ত নগ্নভাবে প্রকাশিত হয়েছে। এ থেকে জাতির সামনে পরিষ্কার হয়ে গিয়েছে যে, কোটা সংস্কারের ব্যাপারে সরকারের কোন আন্তরিকতা নেই। কোটা বাতিলের ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য ছিল অযথা সময়ক্ষেপণের একটি অপকৌশল মাত্র।
তিনি বলেন, কোটা সংস্কারের পক্ষের ছাত্রদের গ্রেফতার করে তাদের রিমান্ডে নিয়ে নির্যাতন চালানো এবং জেলে বন্দী করে রেখে সরকার তাদের আন্দোলন দুর্বল করে দেয়ার অপকৌশল গ্রহণ করে কোটা সংস্কারের আন্দোলন নস্যাত করে দিতে চায়। বর্তমানে যে বৈষম্যমূলক কোটা ব্যবস্থা চালু আছে সরকার ছলেবলে-কৌশলে তা বহাল করার জন্য নানা অপকৌশলের আশ্রয় গ্রহণ করছে।
টালবাহানা বন্ধ করে কোটা সংস্কারের আন্দোলনকারীদের দাবি অনুযায়ী কোটা ব্যবস্থার সংস্কার করে বিরাজমান সংকট নিরসন এবং কোটা সংস্কারের পক্ষে আন্দোলনকারীদের উপর হামলাকারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে উপযুক্ত শাস্তি প্রদান ও কোটা সংস্কারের পক্ষে আন্দোলনকারী গ্রেফতারকৃত ছাত্রদের মুক্তি প্রদান করার জন্য তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ