ঢাকা, সোমবার 16 July 2018, ১ শ্রাবণ ১৪২৫, ২ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার দাবিতে ১১০১ জন চিকিৎসকের বিবৃতি

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপির চেয়ারপার্সন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সাথে নিকট আত্মীয়দের দেখা করতে না দেওয়ায় উদ্বিগ্ন দেশের প্রথিতযশা ১১০১জন চিকিৎসক। গতকাল রোববার এক যৌথ বিবৃতিতে তারা অবিলম্বে খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার দাবি জানান।
বিবৃতিতে চিকিৎসকরা বলেন, বেগম জিয়ার পরিবারের সদস্যরা তার সাথে দেখা করতে গেলে কারা কর্তৃপক্ষ দেখা করতে বাঁধা দেয় এবং অসুস্থতার খবর জানতে পারার পরও তার পরিবারের সদস্যদের কারা ভবনের দ্বিতীয় তলায় গিয়ে দেখা করতে অনুমতি দেয়নি। কারা কর্তৃপক্ষ তার চিকিৎসা নিয়ে সম্পূর্ণ উদাসীন। সরকার ও কারা কর্তৃপক্ষ তার সুচিকিৎসার কোন যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করেন নাই। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া’র নিকট আত্মীয় ও বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা এবং গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে আমরা চিকিৎসক সমাজসহ দেশের ১৬ কোটি জনগণ দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া’র স্বাস্থ্যের অবনতি নিয়ে অত্যন্ত উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার মধ্যে রয়েছি। আমরা জানি বর্তমানে তিনি গুরুতর অসুস্থ, প্রতিরাতে কাঁপুনি দিয়ে জ্বর আসে, কাশি ও জ্বর নিয়ন্ত্রণে আসছে না; ডান চোখ লাল হয়ে ফুলে গেছে, সার্ভাইকাল স্পনডাইলোসিস রোগের ভয়াবহতার কারণে বাম হাত ধীরে ধীরে অবশ হয়ে যাওয়ার আশংঙ্কা দেখা দিয়েছে; কোমরের সমস্যার কারণে তার শরীরের বামপাশ ও বাম পায়ের তীব্র ব্যথা ধীরে ধীরে নীচের দিকে নামছে। তিনি ঠিকমত হাঁটা-চলাও করতে পারছেন না।
চিকিৎসকরা বলেণ, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে জরাজীর্ণ, স্যাঁতসেতে পরিত্যক্ত, নির্জন কারাগারে বন্দি করে রেখেছে বর্তমান অনির্বাচিত অবৈধ সরকার। সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে রাজনীতি থেকে সরিয়ে দেওয়ার জন্য তাকে বিনাচিকিৎসায় মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে বর্তমান সরকার। খালেদা জিয়া দীর্ঘদিন ধরে উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিসসহ জটিল নানা রোগে আক্রান্ত। ইতোপূর্বে তার দুই হাঁটু প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। সম্প্রতি তিনি লন্ডনে চোখের অপারেশনও সম্পন্ন করেছেন। তিনি কোন সাধারণ রোগী নন। চিকিৎসকদের পরিভাষায় তিনি একজন বিশেষ পরিচর্যা সাপেক্ষ রোগী (Patient with Special Needs)। সে হিসেবে তার একান্ত ব্যক্তিগত পরিচর্যার সকল সুবিধা নিশ্চিত করা সকল সভ্য গণতান্ত্রিক ও মানবিকতা বোধসম্পন্ন জাতির কর্তব্য।
তারা বলেন, বেগম খালেদা জিয়া একজন সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিরোধীদলীয় নেত্রীই শুধু নন তিনি স্বাধীনতার ঘোষক, শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের সহধর্মিণী। তিনি রাষ্ট্রের একজন সিনিয়র সিটিজেন। আমরা চিকিৎসক সমাজ ১৬ কোটি জনগণের প্রাণের নেত্রীর অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তির দাবী জানাচ্ছি এবং সুচিকিৎসার জন্য দ্রুত ওনার পছন্দমতো হাসাপাতালে স্থানান্তরের জোর দাবী জানাচ্ছি। অন্যথায় এর দায়-দায়িত্ব বর্তমান সরকারকেই বহন করতে হবে।
বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেন- অধ্যাপক ডাঃ  মবিন খান, অধ্যাপক ডাঃ বায়েছ ভূঁইয়া, অধ্যাপক ডাঃ সিরাজউদ্দিন আহমদ, অধ্যাপক ডাঃ আব্দুল মান্নান মিয়া, অধ্যাপক ডাঃ মিজানুর রহমান, অধ্যাপক ডাঃ এ জেড এম জাহিদ হোসেন, অধ্যাপক ডাঃ ফরহাদ হালিম ডোনার, অধ্যাপক ডাঃ আব্দুল কুদ্দুস, অধ্যাপক ডাঃ মতিউর রহমান মোল্লা, অধ্যাপক ডাঃ এ এস এম এ রায়হান, অধ্যাপক ডাঃ ফিরোজা বেগম, অধ্যাপক ডাঃ মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম, অধ্যাপক ডাঃ খাদিজা বেগম, অধ্যাপক ডাঃ এ কে এম ফজলুল হক, অধ্যাপক ডাঃ  শাহাবুদ্দিন, অধ্যাপক ডাঃ এস এম রফিকুল ইসলাম, অধ্যাপক ডাঃ সাইফুল ইসলাম, অধ্যাপক ডাঃ মঈনুল হাসান সাদিক, অধ্যাপক ডাঃ আজিজ রহিম, অধ্যাপক ডাঃ আশরাফ উদ্দিন, ডাঃ সাইফুল ইসলাম সেলিম, অধ্যাপক ডাঃ সৈয়দ মোঃ আকরাম হোসেন, অধ্যাপক ডাঃ শামিমুর রহমান, অধ্যাপক ডাঃ গোলাম মঈনউদ্দিন, অধ্যাপক ডাঃ মওদুদ হোসেন আলমগীর পাভেল, অধ্যাপক ডাঃ সেলিনা খানম, অধ্যাপক ডাঃ মনির হোসেন, অধ্যাপক ডাঃ তসলিম উদ্দিন, অধ্যাপক ডাঃ সেলিমুজ্জামান, অধ্যাপক ডাঃ চৌধুরী মোঃ হায়দার আলীসহ ১১০১জন চিকিৎসক।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ