ঢাকা, সোমবার 16 July 2018, ১ শ্রাবণ ১৪২৫, ২ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

অর্থ সচিব মুসলিম চৌধুরী হলেন সিএজি

স্টাফ রিপোর্টার : অর্থ সচিব মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরীকে মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।
গতকাল রোববার অর্থ মন্ত্রণালয় এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করেছে। প্রধান বিচারপতির কাছে শপথ নেওয়ার পর সাংবিধানিক এই পদে দায়িত্ব পালন শুরু করবেন মুসলিম চৌধুরী। গত ২৭ এপ্রিল সিএজি মাসুদ আহমেদ অবসরে যাওয়ার পর থেকে পদটি শূন্য ছিলো।
২০১৭ সালের ৩ অক্টোবর অর্থ সচিবের দায়িত্ব দেওয়া হয় মুসলিম চৌধুরীকে। তার আগে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ছিলেন তিনি। মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরী ১৯৮৪ সালে বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসের অডিট এন্ড একাউন্টস্ ক্যাডারে যোগদান করে কন্ট্রোলার জেনারেল অব একাউন্টস্, কন্ট্রোলার জেনারেল ডিফেন্স ফাইন্যান্স এবং অর্থ বিভাগের উপসচিব, যুগ্মসচিব ও অতিরিক্ত সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।
তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে হিসাববিজ্ঞান বিষয়ে বি.কম (সম্মান) ও এম.কম এবং যুক্তরাজ্যের বার্মিংহাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফিন্যান্স এন্ড একাউন্টিংয়ে ডিসটিংশনসহ এমএসসি ডিগ্রী অর্জন করেন। তিনি আইএমএফ ইনস্টিটিউট এবং বিশ্ব ব্যাংকসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে সরকারি আর্থিক ব্যবস্থাপনা, ঋণ ব্যবস্থাপনা ও সামষ্টিক অর্থনীতি বিষয়ে পেশাগত প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন।
মুসলিম চৌধুরী বিশ্ব ব্যাংক ও ডিএফআইডির অর্থায়নকৃত বিভিন্ন প্রকল্পে পরামর্শকের দায়িত্ব পালন করেন এবং বাংলাদেশের আর্থিক খাত সংস্কার ও এর প্রাতিষ্ঠানিকীকরণে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন। সরকারের বাজেট প্রণয়ন, বাস্তবায়ন ও হিসাবরক্ষণ ব্যবস্থাকে তথ্য প্রযুক্তির ব্যাবহারের মাধ্যমে স্বয়ংক্রিয় প্রক্রিয়ার আওতায় আনায়নের জন্য একটি সমন্বিত আর্থিক ব্যবস্থাপনা সিস্টেম প্রচলনের উদ্দেশ্যে এবং ওয়েব-বেজড বেতন নির্ধারণ, পেনশন রের্কড অটোমেশন এবং এর মাধ্যমে সরকারি পেনশনার এর ব্যাংক একাউন্টে মাসিক পেনশনের অর্থ প্রেরণ ও সর্বশেষ ওয়েব-বেজড বেতন বিল দাখিলকরণ সংক্রান্ত কার্যক্রম বাস্তবায়নে তিনি অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন।
 সরকারি আর্থিক ব্যবস্থাপনা খাতে ই-গভর্ন্যান্স বাস্তবায়নে অবদানের স্বীকৃতি স্বরুপ তিনি জনপ্রশাসন পদক ২০১৭ অর্জন করেন। অধিকন্তু, তিনি বাংলাদেশে পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপ ফ্রেমওয়ার্কের প্রাথমিক প্রস্ততি ও বাস্তবায়নে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন এবং বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক পিপিপি কৌশল ও নীতিমালা প্রণয়নের প্রধান কর্ণধার ছিলেন। সরকারের বাজেট ও হিসাব শ্রেণীবিন্যাস আধুনীকিকরণের জন্য তিনি নতুন শ্রেণীবিন্যাস প্রণয়নে মুখ্য ভূমিকা পালন করেন।
বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ ইনফ্রাস্ট্রাকচার ফাইন্যান্স ফান্ড লিমিটেড-এর চেয়ারম্যান, সৌদি বাংলাদেশ ইন্ডাস্ট্রিয়াল এন্ড এগ্রিকালচারাল ইনভেস্টমেন্ট কোম্পানি লিমিটেড ডেপুটি চেয়ারম্যান, ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংকের মুতাওয়াল্লী কমিটি-বাংলাদেশ ইসলামিক সলিডারিটি এডুকেশন ওয়াকফ্ -এর ভাইস-চেয়ারম্যান; বাংলাদেশ ব্যাংক-এর পরিচালনা পর্ষদের পরিচালক; বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা ইনস্টিটিউট -এর সদস্য, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স লিঃ এর বোর্ড- পরিচালক, ইনফ্রাস্ট্রাকচার ডেভেলপমেন্ট কোম্পানীর পরিচালক এবং বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিস কমিশন-এর সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।
মুসলিম চৌধুরী চট্টগ্রামের একটি সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে ১৯৫৯ সালে জনগ্রহণ করেন। তাঁর স্ত্রী মিসেস সাবিনা হক একজন শিক্ষিকা। চৌধুরী দম্পতি দুই কন্যা সন্তানের জনক।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ