ঢাকা, মঙ্গলবার 17 July 2018, ২ শ্রাবণ ১৪২৫, ৩ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

পুতিনের সঙ্গে বৈঠককে শুভ সূচনা বললেন ট্রাম্প

সংগ্রাম ডেস্ক : রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে বৈঠককে ‘শুভ সূচনা’ বলে উল্লেখ করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বিবিসির এক প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা যায়। প্রতিবেদনে বলা হয়, সোমবার ফিনল্যান্ডের রাজধানী হেলসিংকিতে দুই ঘণ্টার রুদ্ধদ্বার বৈঠকে বসেন দুই নেতা। এসময় শুধু তাদের দোভাষী ছাড়া কেউ ছিলেন না। তবে বৈঠকে কি আলোচনা হয়েছে তা এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয়নি।
 বৈঠকের পর দুই দেশের কর্মকর্তার সঙ্গে মধ্যাহ্নভোজে গেছেন নেতারা। বৈঠকের আগে ট্রাম্প বলেছিলেন, দুই দেশের মধ্যে ‘দুর্দান্ত সম্পর্ক’র সম্ভাবনা রয়েছে। অনেক বিষয় আলোচনা হবে। পুতিনও জানিয়েছিলেন বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করবেন তারা।
নানা জল্পনা-কল্পনা, সমালোচনা আর বিরোধিতার মুখেও রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে নির্ধারিত বৈঠকে বসেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। পুতিন হেলসিংকিতে পৌঁছান নির্ধারিত সময়ের বেশ খানিকটা পরে। তবে বৈঠকস্থলে ট্রাম্পের আগেই পৌঁছে যান তিনি। স্থানীয় সময় দুপুর ১টায় বৈঠকটি শুরু হওয়ার কথা ছিল। তবে তা শুরু হয় নির্ধারিত সময়ের এক ঘণ্টা পরে।
 বৈঠক শুরুর আগে এক সাংবাদিক সম্মেলনে ট্রাম্প বলেন, ‘আমরা সামরিক বাণিজ্য থেকে শুরু করে ক্ষেপণাস্ত্র, পরমাণু, চীন নিয়ে আলোচনা করতে পারি। আমাদের দুজনেরই বন্ধু চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংকে নিয়েও কথা বলবো আমরা।
ইউক্রেনের ক্রিমিয়ায় রুশ আধিপত্য আর সবশেষ মার্কিন নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপের অভিযোগে রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার কূটনৈতিক সম্পর্কে টানাপড়েন শুরু হয় ওবামা প্রশাসনের সময়েই। ট্রাম্পের সঙ্গে পুতিনের ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের গুঞ্জন থাকলেও ওবামার রুশ কূটনীতিক বহিষ্কারের পাল্টা প্রতিক্রিয়া হিসেবে ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিজয়ী হওয়ার পর মার্কিন কূটনীতিকদের দেশ থেকে বহিষ্কার করে রাশিয়া। সেই দেশের শীর্ষ নেতা পুতিনের সঙ্গে বৈঠককে ঘিরে নিজ দল রিপাবলিকান পার্টি ও ডেমোক্র্যাট উভয় শিবিরেরই তোপের মুখে পড়েছেন ট্রাম্প।
ঘরে বাইরে চাপের মুখেই পুতিনের সঙ্গে বৈঠকে বসেন ট্রাম্প। বৈঠকে আগে তিনি বলেন, ‘আমার মনে হয় আমাদের মধ্যে দারুণ একটা সম্পর্কের সূচনা হবে। আপনি নিশ্চয়ই শুনেও থাকবেন, আমি সবসময়ই বলে আসছি, রাশিয়ার সঙ্গে বন্ধুত্ব খারাপ কিছু নয়। আমি সত্যিই বিশ্বাস করি বিশ্বও আমাদের একসঙ্গে দেখতে চায়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ