ঢাকা, মঙ্গলবার 17 July 2018, ২ শ্রাবণ ১৪২৫, ৩ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

দুর্গাপুরে স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা ॥ স্বামী আটক

রাজশাহী অফিস : রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলার গণকৈড়গ্রামে স্ত্রী রোজুফা বেগমকে (৩৫) পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এই হত্যার অভিযোগে স্বামী আবুল হোসেনকে আটক করেছে পুলিশ। শনিবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। নিহত রোজুফা গণকৈড় গ্রামের ফিরোজ উদ্দিনের মেয়ে।
খবর পেয়ে দুর্গাপুর থানা পুলিশ নিহত রোজুফার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। আটক আবুল হোসেন ওই এলাকার মৃত ইউনুস আলীর ছেলে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, রোজুফা বেগম দীর্ঘদিন থেকে মানসিক রোগে ভুগছিলেন। যার কারণে আবুল হোসেন দ্বিতীয় বিয়ে করেন। বিয়ের পর থেকে তিনি আরো বেশি অসুস্থ হয়ে পড়েন। সম্প্রতি তিনি বাড়ি থেকে বের হতে পারতেন না। এতে আবুল হোসেন ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী রোজুফাকে নানা ভাবে নির্যাতন করতো। শনিবার দুপুরে পারিবারিক বিষয় নিয়ে স্বামী আবুল হোসেন রোজুফাকে ব্যাপক মারপিট করে। এক সময় জ্ঞান হারিয়ে ফেললে গ্রাম্য চিকিৎসক ডাকা হয়। কিন্তু চিকিৎসক ঘটনাস্থলে পৌছার আগেই রোজুফার মৃত্যু হয়। দুর্গাপুর থানার পুলিশ জানায়, নিহত রোজুফার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। একই সাথে তার স্বামী আবুল হোসেনকেও আটক করা হয়েছে। তবে আবুল হোসেনের দ্বিতীয় স্ত্রীকে পাওয়া যায়নি। এ ঘটনায় একটি হত্যা মামলা দায়ের  করা হয়েছে।
মায়ের মামলায় ছেলে জেলে : রাজশাহী মোহনপুরে মায়ের দায়েরকৃত মামলায় ছেলে জালাল সরদার ও নাতনী মাহমুদা খাতুনকে গ্রেপ্তার করে জেলে প্রেরণ করেছে পুলিশ। গত রোববার মা গোলেনূর বেওয়া বাদি হয়ে ছেলে জালাল সরদার (৪০) ছেলের স্ত্রী মমতাজ বেগম (৩৫) ও নাতনী মাহমুদা খাতুন (২০) আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার সূত্রে মোহনপুর থানার পুলিশ জানায়, মোহনপুর উপজেলার ধুরইল মাস্টার গ্রামের মৃত নছর সরদারের ছেলে জালাল সরদার, তার স্ত্রী মমতাজ বেগম, মেয়ে মাহমুদা খাতুন মিলে জমিজমা নিয়ে বিরোধের জের ধরে গত ২৬ জুন দুপুর ১টার সময় মা গোলেনূর বেওয়াকে মারপিট করতে থাকে। ওই সময় মাকে বাঁচাতে অপর ছেলে মানিক চাঁদ এগিয়ে আসলে মামলার আসামিরা তাকে লোহার রড, ধারালো হাঁসুয়া, হাতুড় নিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে মারপিট করে গুরুতর আহত করেন। স্থানীয়রা উদ্ধার করে মানিক চাঁদকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করান। গত রোববার মা বাদি হয়ে মোহনপুর থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ ছেলে জালাল সরদার ও নাতনী মাহমুদা খাতুনকে গ্রেপ্তার করে। পুলিশ জানায়, দুইজন আসামিকে গ্রেপ্তার করে জেলে পাঠানো হয়েছে। অন্য আসামিকে গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ