ঢাকা, মঙ্গলবার 17 July 2018, ২ শ্রাবণ ১৪২৫, ৩ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

দক্ষিণাঞ্চলের চার জেলায় ৩ লাখ ৬৮ হাজার মেট্রিক টন খাদ্যশস্য উদ্বৃত্ত

খুলনা অফিস: সদ্য সমাপ্ত অর্থবছরে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় দক্ষিণাঞ্চলের চার জেলায় বোরো ও আমনের বাম্পার উৎপাদন হয়। এ সময় এ অঞ্চলে ৩ লাখ ৬৮ হাজার ৯৭২ মেট্রিক টন ধান উদ্বৃত্ত রয়েছে। গত পক্ষকাল যাবৎ এ অঞ্চলে চালের মূল্য স্থিতিশীল এবং বিদেশ থেকে চাল আমদানি বেশ কিছুটা কমেছে। পাশাপাশি ১০ টাকা কেজির চাল উপজেলায় এবং জেলা সদরে ৩০ টাকা দরে বিক্রি হওয়ায় নিম্ন ও মধ্যবিত্ত পরিবারের জীবনযাত্রা স্বাভাবিক রয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, সদ্য সমাপ্ত অর্থবছরে শৈত্যপ্রবাহ, দাবদাহ ও অনাবৃষ্টি থাকলেও প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হওয়ায় বোরো এবং আমনের বাম্পার উৎপাদন হয়। এ সময় ১০ লাখ ২৫ হাজার ২৮৮ মেট্রিক টন বোরো ধান, ১২ হাজার ৯শ মেট্রিক টন বোরা আমন, ৭ লাখ ৮১ হাজার ৫৫১ মেট্রিক টন রোপা আমন ও ৪৬ হাজার ৯৯৪ মেট্রিক টন আউশ উৎপাদন হয়। এ অঞ্চলের জেলাগুলোর মধ্যে খুলনা, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট ও নড়াইল জেলার ৬৮ লাখ ৩৯ হাজার ৪৬৮ জন লোকের জন্য বছরে ১১ লাখ ৮৩ হাজার ৮শ’ মেট্রিক টন খাদ্যের প্রয়োজন হয়। গেল অর্থবছরে এ অঞ্চলে ৩ লাখ মেট্রিক টনেরও বেশি ধান উদ্বৃত্ত রয়েছে। উদ্বৃত্তের তালিকায় শীর্ষে রয়েছে সাতক্ষীরা জেলা। গেল অর্থবছরে এ অঞ্চলের কোথাও উল্লেখযোগ্য পোকার আক্রমণ দেখা যায়নি। শুধুমাত্র খুলনার ডুমুরিয়া, সাতক্ষীরার তালা ও নড়াইলের কালিয়ায় বোরো ধানে ব্লাস্ট রোগ দেখা দেয়। কৃষিবিদদের পরামর্শে কৃষকরা ব্লাস্টের ধাক্কা প্রতিরোধ করতে সক্ষম হন। কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ সাতক্ষীরার উপ-পরিচালক আব্দুল মান্নান জানান, জেলায় মাত্র চার হেক্টর জমিতে ব্লাস্ট আক্রমণ করে। এখানে হেক্টর প্রতি বোরোর উৎপাদন ছিল ৪ মেট্রিক টন। বোরো ছাড়া তালা ও আশাশুনি উপজেলায় আউশের ভালো আবাদ হয়েছে। কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের খুলনা অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক নিত্য রঞ্জন বিশ্বাস জানান, গেল বোরো মওসুমে চার জেলায় লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১৮ হাজার হেক্টর বেশি জমিতে বোরো আবাদ হয়েছে। সেচ সঙ্কট না হওয়া, সারের সরবরাহ যথারীতি এবং পোকামাকড় দমন করা সম্ভব হওয়ায় আশাতীত উৎপাদন হয়েছে। এ ব্যাপারে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা ফয়েজ আহমেদ জানান, আউশ উৎপাদনে কৃষকদের উৎসাহি করতে দক্ষিণাঞ্চলের ৭ হাজার ৮শ’ কৃষককে প্রণোদনা দেয়া হয়েছে। কৃষি উপকরণ হিসেবে প্রত্যেক কৃষককে ৫ কেজি করে বীজ, ২০ কেজি ইউরিয়া, ১০ কেজি ড্যাব ও ১০ কেজি এমওপি দেয়া হয়েছে।
এবারে খুলনা, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট ও নড়াইল জেলায় ২২ হাজার ৭৬৩ হেক্টর জমিতে আউশের আবাদ হয়েছে। সেখানে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ৪৬ হাজার ৯৮১ মেট্রিক টন। ভাদ্র মাসে এ অঞ্চলে আউশ’ কাটা শুরু হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ