ঢাকা, মঙ্গলবার 17 July 2018, ২ শ্রাবণ ১৪২৫, ৩ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

শাহজাদপুরে উদ্বোধনের অপেক্ষায় ৩২ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত দ্বিতীয় করতোয়া সেতু

শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) : শাহজাদপুরে নির্মাণাধীন দ্বিতীয় করতোয়া সেতু

এম, এ, জাফর লিটন, শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) থেকে: শাহজাদপুর উপজেলার করতোয়া নদীর ওপর প্রায় ৩২ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণাধীন করতোয়া সেতুর নির্মাণকাজ শেষ দিকে। এখন বাকি রয়েছে কেবল সেতুর অ্যাপ্রোচ সড়কের কাজ। আগামী বছরের শুরুতে আনুষ্ঠানিকভাবে সেতুটির উদ্বোধন করা হতে পারে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, কার্যাদেশ অনুযায়ী ২০১২ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর ৩১৫ মিটার দীর্ঘ এ সেতুর নির্মাণকাজ শুরু ও ২০১৪ সালের ১০ এপ্রিল শেষ করার কথা ছিল। কিন্তু নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নির্মাণকাজ সম্পন্ন করতে না পারায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এ পর্যন্ত তিনবার সময় বাড়িয়েছে। ইউনিয়ন অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় সেতুটির নির্মাণকাজ বাস্তবায়ন করছে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ। আর এটি নির্মাণ করছে ইসলাম ট্রেডার্স নামে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। সেতুটি নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ৩১ কোটি ৬১ লাখ ৯৫ হাজার ২২৫ টাকা। ৩৫ মিটার দূরত্বে নয়টি স্প্যান ও ১৬টি পিলারের ওপর সেতুটি নির্মাণ করা হয়েছে। এরই মধ্যে সেতুর মূল কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এখন সেতুর দুই পাসে অ্যাপ্রোচ সড়ক নির্মাণকাজ চলমান রয়েছে, যা আগামী মাসেই শেষ হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এদিকে সেতুটি নির্মাণের শুরু থেকেই স্থানীয়রা বিশ্ববরেণ্য ফোকলোরবিদ অত্র এলাকার কৃতি সন্তান, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ও বাংলা একাডেমীর প্রতিষ্ঠাতা মহাপরিচালক প্রফেসর ডঃ মযহারুল ইসলামের নামে এটির নামকরণের দাবি জানিয়ে আসছে। গাড়াদহ ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম জানান, উপজেলা পরিষদের সাধারণ সভায় ডঃ মযহারুল ইসলামের নামে এই সেতুর নামকরণের প্রস্তাব করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, সেতু চালু হলে করতোয়া নদীর পূর্ব পারের সঙ্গে উপজেলা সদরের সরাসরি যোগাযোগ স্থাপন হবে। পাশাপাশি প্রতিবেশী উপজেলা উল্লাপাড়া ও বেলকুচিসহ সিরাজগঞ্জ জেলা সদরের সঙ্গে যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হবে। এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকৌশলী জানান, আগামী এক মাসের মধ্যেই সেতুর সব কাজ শেষ হয়ে যাবে। চলতি বছরের ডিসেম্বরেই আনুষ্ঠানিকভাবে সেতুটি জনসাধারণের ব্যবহারের জন্য উন্মুক্ত করা হতে পারে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ