ঢাকা, বুধবার 18 July 2018, ৩ শ্রাবণ ১৪২৫, ৪ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

রাজশাহীতে বিএনপি’র মেয়র প্রার্থীর প্রচারণা চলাকালে ককটেল বিস্ফোরণ

রাজশাহী : গতকাল মঙ্গলবার রাজশাহীতে বিএনপির জনসংযোগকালে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। এতে (ইনসেটে) সাংবাদিকসহ কয়েকজন আহত হয় -সংগ্রাম

রাজশাহী অফিস : গতকাল মঙ্গলবার রাজশাহী মহানগরীর সাগরপাড়া বটতলা এলাকায় বিএনপির গণসংযোগস্থলে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। বেলা পৌনে ১১টার দিকে এই ঘটনায় এক সাংবাদিকসহ পাঁচজন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।
আহতদের উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। তবে কারো আঘাত গুরুতর নয়। ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। বোয়ালিয়া থানার পুলিশ জানায়, বেলা পৌনে ১১টার দিকে সাগরপাড়া বটতলা মোড়ে বিএনপির মনোনীত মেয়র প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের পক্ষে কেন্দ্রীয় নেতারা গণসংযোগ চালাচ্ছিলেন। এ সময় তিনটি মোটরসাইকেলে মুখোশধারীরা সেখানে গিয়ে পর পর তিনটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায়। পরে তারা দ্রুত টিকাপাড়ার রাস্তা দিয়ে পালিয়ে যায়। ঘটনার পর ওই এলাকায় বিএনপির গণসংযোগ বন্ধ হয়ে যায়। লোকজন আতঙ্কিত হয়ে ছুটোছুটি শুরু করে। এতে বাংলাভিশন টেলিভিশনের স্টাফ রিপোর্টার পরিতোষ চৌধুরী আদিত্যসহ অন্তত পাঁচজন আহত হন। কারা এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এছাড়া আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। এদিকে, মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু বলেন, সকালে চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান ও কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাড. রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুসহ দলীয় নেতাকর্মীরা সাগরপাড়া বটতলা এলাকায় বুলবুলের পক্ষে প্রচারণা চালাচ্ছিলেন। এ সময় মোটরসাইকেলে করে এসে মুখোশধারীরা সেখানে পর পর তিনটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায়। এতে তাদের দলের কেন্দ্রীয় নেতা হাবিবুর রহমান ও কর্মী স্বপন কুমার আহত হন। মিনু অভিযোগ করেন, রাজশাহীতে নির্বাচনের পরিবেশ নষ্ট করতে আ’লীগ পরিকল্পিতভাবে এই ককটেল হামলা চালায়। আ’লীগের মোটরসাইকেল বাহিনী এতদিন পোস্টার-ব্যানার ছিঁড়ে ফেলছিল, ফেস্টুন ভেঙে ফেলছিল। তারাই এবার বুলবুলের নির্বাচনী প্রচারণায় ককটেল হামলা করেছে। তবে এই অভিযোগ অস্বীকার করে নৌকার মেয়র প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন সাংবাদিকদের বলেন, নিশ্চিত পরাজয় জেনে তারা রাজশাহীকে অসহিষ্ণু করার চেষ্টা করছে।
এদিকে, ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় বিএনপি’র পক্ষ থেকে রিটার্নিং অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়। এতে পূর্ব পরিকল্পনার অংশ হিসেবে নৌকা মার্কার সমর্থিত সন্ত্রাসীরা ধানের শীষের নেতাকর্মীদের উপর অস্ত্র নিয়ে অতর্কিত বোমা হামলা চালায় এবং বিভিন্ন প্রকার হুমকি দিয়ে স্থান ত্যাগ করে বলে উল্লেখ করা হয়। এতে এই ঘটনাসহ পূর্বে অভিযোগকৃত সকল ঘটনায় জড়িত ষড়যন্ত্রকারী, নির্বাচন বানচালের অপচেষ্টাকারী দুর্বৃত্তদের অনতিবিলম্বে আইনের আওতায় আনাসহ সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ নির্বাচনী পরিবেশ বজায় রাখতে নির্বাচন কমিশনের জোরালো দৃশ্যমান ভূমিকার জোর দাবি জানানো হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ