ঢাকা, বুধবার 18 July 2018, ৩ শ্রাবণ ১৪২৫, ৪ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

চিকিৎসক ও লোকবলের অভাবে নাসিরনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিজেই রুগ্ন

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সংবাদদাতা : প্রয়োজনীয় চিকিৎসক ও অন্যান্য লোকবলের অভাবে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর ৫০ শয্যা বিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এখন বেহাল দশা। এতে করে রোগীরা তাদের চাহিদা মতো চিকিৎসা সেবা পাচ্ছেনা।
বর্তমান সরকার  যখন চিকিৎসা সেবাকে মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁেছ দিতে বদ্ধ পরিকর। সেখানে প্রয়োজনীয় চিকিৎসক ও লোকবলের অভাবে খুঁড়িয়ে খঁড়িয়ে চলছে নাসিরনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স।
৫০ শয্যা বিশিষ্ট এই হাসপাতালে ২১ জন চিকিৎসক থাকার কথা থাকলেও বর্তমানে  আছে মাত্র ৮জন চিকিৎসক। ১৩ জন চিকিৎসকের পদ শূন্য  আছে। এর মধ্যে ৩ জন চিকিৎসক সংযুক্তির আদেশের ভিত্তিতে বছরের পর বছর ধরে অন্যত্র কর্মরত রয়েছেন।  প্রতি মাসে তারা এখানে এসে শুধু বেতন ভাতা উত্তোলন করেন। মাত্র দুই/তিনজন চিকিৎসক হাসপাতালে প্রতিদিন রোগী দেখলেও বাকীরা জেলা সদর থেকে এসে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করেই চলে যান। এজন্য প্রতিদিন হাসপাতালে রোগীরা এসে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা না পেয়েই ফিরে যান। উপজেলাবাসী চিকিৎসা সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।
প্রায় সাড়ে তিন লাখ জনসংখ্যা অধ্যুষিত নাসিরনগরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ ইউনিয়ন পর্যায়ে ১টি পল্লী স্বাস্থ্য কেন্দ্র, ৩টি উপস্বাস্থ্য কেন্দ এবং ৮টি ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কেন্দ্র রয়েছে। এসব কেন্দ্রেও রয়েছে চিকিৎসক, কর্মচারি, ওষুধ ও যন্ত্রপাতির স্বল্পতা, বিদুৎ, পানি, স্যানিটেশন সমস্যা, অপরিচ্ছন্ন পরিবেশ, জরার্জীণ অবকাঠামো, চিকিৎসক ও কর্মচারীদের আবাসিক সংকট, ব্লাড ব্যাংক না থাকাসহ নানাবিধ সংকট। এসব কারনে উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়েও স্বাস্থ্যসেবা ভেঙ্গে পড়ার উপক্রম।
হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, ২০০৭ সালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি ৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীত করা হলেও বাস্তবে সেবাদানের ক্ষেত্রে কোন প্রকার উন্নতি ঘটেনি। এখানে অপারেশন থিয়েটার স্থাপন করা হলেও কোন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক নিয়োগ দেয়া হয়নি। এ কারণে অপারেশন থিয়েটারে স্থাপিত কোটি টাকার যন্ত্রপাতি অযত্ন অব্যবহৃত অবস্থায় থেকে নষ্ট হচ্ছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ