ঢাকা, বৃহস্পতিবার 19 July 2018, ৪ শ্রাবণ ১৪২৫, ৫ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

হামলা হলেই প্রতিহত করা হবে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে গতকাল বুধবার সকল বিভাগের শিক্ষার্থীদের সম্মিলিত উদ্যোগে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার : সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগ পুনরায় হামলা করতে এলে তাদের প্রতিহত করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা। এ সময় তাদের সাথে সংহতি প্রকাশ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকও।
গতকাল বুধবার সকালে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা ও শিক্ষক লাঞ্ছনার প্রতিবাদে রাজধানীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এক মানববন্ধনে এ ঘোষণা দেন ঢাবি শিক্ষার্থীরা। এ ছাড়া ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থী তানজির হোসেন সরকারের উপর বর্বরোচিত হামলার প্রতিবাদে অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে মানববন্ধন করেছে বিভাগের শিক্ষার্থীরা।
মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা বলেন, কোটা সংস্কার আন্দোলনের যৌক্তিক দাবি সত্ত্বেও শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগ হামলা করেছে। এমনকি শিক্ষকদের ওপরেও তারা হামলা করে। এসব ব্যাপারে বিচার চাইতে গেলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন নিশ্চুপ থাকছে। কিন্তু আমরা আমাদের প্রতিবাদ কর্মসূচি অব্যাহতভাবে পালন করব। এবার যদি ছাত্রলীগ হামলা চালায়, তবে তাদের শক্তভাবে প্রতিহত করা হবে।
মানববন্ধনে উপস্থিত অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক সহকারী অধ্যাপক ড. রুশাদ ফরিদী বলেন, গত সমাবেশে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলার পর শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে নিরাপত্তাহীনতা বোধ করছেন। অথচ এর আগে ছাত্ররা ক্যাম্পাসে নিরাপদে বিভিন্ন আন্দোলন করত। তিনি আরো বলেন, আজকের এই মানববন্ধন প্রমাণ করে, শিক্ষার্থীরা ত্রাসের রাজত্ব ভেঙে প্রতিবাদ করতে শিখেছে। ভবিষ্যতে সাধারণ শিক্ষার্থীদের এই প্রতিবাদের ফলে আরো শিক্ষার্থীরা আসবে।
তিনি বলেন, ছাত্রলীগের কথাবার্তা পোলাপানের মতো। তাদের বিভিন্নভাবে ব্রেইনওয়াশ করা হয়। প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের গণরুমে যে টর্চার করা হয়, এর মধ্য দিয়ে তারা ভবিষ্যতে ছাত্রলীগের বড় ক্যাডারে পরিণত হয়। এদের আশ্রয় দিচ্ছে কারা, তাদের খুঁজে বের করতে হবে। ঢাবির ছাত্রলীগ নেতাদের সঙ্গে ঢাকা কলেজ ও তার আশপাশের বহিরাগতরা এসে আমাদের হামলা করেছে।
সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী নাহিদ ইসলাম বলেন, ছাত্রলীগ সরকারের ওপর মহলের কথায় শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা করছে। এর বিচার চাইতে গেলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বলছে, শিক্ষার্থীরা সমাবেশ করতে অনুমতি নেয়নি কেন? আমরা কার কাছে বিচারের দাবি জানাব? এর বিচার করার কেউ নেই। আমরা আন্দোলনের মাধ্যমে এর প্রতিবাদ জানাব। আমাদের প্রতিবাদ কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, মশিউর রহমানকে আইনি প্রক্রিয়ায় গ্রেপ্তার করা হয়নি। কিন্তু ঢাবি প্রশাসন এতে নিশ্চুপ। আমরা প্রশাসনের কাছে তাঁর গ্রেফতারের কারণ জানতে চাই।
মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন লেখাসংবলিত প্ল্যাকার্ড তুলে ধরেন। এসব প্ল্যাকার্ডে লেখা ছিল ‘প্রক্টর, ভিসি, শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা চাই’, ‘আগে নিরাপত্তা পরে ক্লাস’, ‘শিক্ষা ও হাতুড়ি, একসঙ্গে চলতে পারে না’, ‘উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা আর কত দিন’, ‘শিক্ষদের ওপর হামলা কেন, প্রশাসন জবাব চাই’, ‘নিপীড়নের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াও ছাত্রসমাজ’ ইত্যাদি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ