ঢাকা, বৃহস্পতিবার 19 July 2018, ৪ শ্রাবণ ১৪২৫, ৫ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সাড়ে ৮ কোটি টাকা আত্মসাত ॥ দরপত্র ছাড়াই সাড়ে ৯ কোটি টাকার কার্যাদেশ দেয়ার অভিযোগ

মোহাম্মদ নুরুজ্জামান, রংপুর অফিস : ওষুধসহ হাসপাতালের বিভিন্ন খাতে ভুয়া ক্রয় দেখিয়ে সাড়ে ৮ কোটি টাকা আত্মসাত ও বিনা দরপত্রে সাড়ে ৯ কোটি টাকার কার্যাদেশ প্রদানের অভিযোগে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (রমেক) পাঁচ ডাক্তারসহ ১৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। গত ১৪ জুলাই রংপুর সদর থানায় দুদকের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ সিরাজুল হক বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন  বলে জানা গেছে।
অভিযুক্ত আসামিরা হচ্ছেন- রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সাবেক পরিচালক ডাক্তার আ স ম বরকত উল¬াহ, সাবেক উপ-পরিচালক ডাক্তার পরিতোষ কুমার দাস গুপ্ত ও ডাক্তার মোহাম্মদ জহিরুল হক এবং সাবেক সহকারী পরিচালক ডাক্তার মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম ও ডাক্তার বিমল কুমার বর্মণ। এছাড়া হাসপাতালের প্রধান মেডিসিন স্টোরের ইনচার্জ ফার্মাসিস্ট আনিছুর রহমান ও মোকছেদুল হক, স্টুয়ার্ড  আজিজুল ইসলাম ও  আসাদুজ্জামান এবং চার ঠিকাদার রংপুরের স্থানীয় মেসার্স ম্যানিলা মেডিসিনের স্বত্ত্বাধিকারী মনজুর আহমেদ, এমএইচ ফার্মার মালিক মোসাদ্দেক হোসেন, মেসার্স অভি ড্রাগসের মালিক  জয়নাল আবেদীন ও মেসার্স আলবিরা ফার্মেসীর মালিক  আলমগীর হোসেনকে আসামী করা হয়েছে।
মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, আসামীরা পরস্পর যোগসাজশে ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের এমএসআর খাতে ইনজেকশন সেমিপাইম-১ ক্রয় দেখিয়ে ৫ কোটি ১০ লাখ ৪১ হাজার ৪০৬ টাকা এবং পথ্য খাতে ৩ কোটি ৫০ লাখ ৭৬ হাজার ৩৩২ টাকা আত্মসাত করেন। এছাড়া কোন দরপত্র ছাড়াই  ৯ কোটি ৫৩ লাখ ৬১ হাজার ৩৬ টাকার কার্যাদেশ প্রদান করা হয়েছিল।
দুর্নীতি দমন কমিশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্রাচার্য্য  জানান, হাসপাতালের জন্য ওষুধসহ বিভিন্ন খাতে ৮ কোটি ৬১ লাখ ১৭ হাজার ৭৩৯ টাকা আত্মসাত এবং বিনা দরপত্রে ৯ কোটি ৫৩ লাখ ৬১ হাজার ৩৬ টাকার কার্যাদেশ প্রদানের অভিযোগে মামলাটি করা হয়। এতে আসামীদের বিরুদ্ধে দন্ডবিধির ৪০৯, ৪২০ ও ১০৯ ধারা এবং ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ