ঢাকা, বৃহস্পতিবার 19 July 2018, ৪ শ্রাবণ ১৪২৫, ৫ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

কুড়িগ্রাম-৩ আসনের উপনির্বাচন স্থগিত চেয়ে হাইকোর্টে রিট

স্টাফ রিপোর্টার: সীমানা সংক্রান্ত জটিলতাকে কেন্দ্র করে কুড়িগ্রাম-৩ আসনের উপনির্বাচন স্থগিত চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করেছেন কুড়িগ্রাম-৪ আসনের রমনা ইউনিয়নের এস এম মোস্তাফিজুর রহমান। গতকাল বুধবার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় রিটটি দায়ের করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন এসএম মোস্তাফিজুর রহমানের আইনজীবী শেখ মো.জাহাঙ্গীর আলম। তিনি জানান, আজ বৃহস্পতিবার বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের হাইকোর্ট বেঞ্চে এ রিটের ওপর শুনানি হতে পারে।
এর আগে গত ১১ মে জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য এ কে এম মাইদুল ইসলামের মৃত্যুতে আসনটি শূন্য হয়।
আইনজীবী জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘৩০ এপ্রিল সীমানা নির্ধারণ সংক্রান্ত একটি গেজেট প্রকাশ করে নির্বাচন কমিশন। এতে বলা হয়, চিলমারী উপজেলার চারটি ইউনিয়ন কুড়িগ্রাম-৪ আসনে অন্তর্ভুক্ত হবে। এই চার ইউনিয়ন হলো চিলমারী, রমনা, রানীগঞ্জ ও থানাহাট।’
এদিকে, ১০ জুন রংপুর আঞ্চলিক নির্বাচন ও রিটার্নিং কর্মকর্তা জি এম সাহাতাব উদ্দিন কুড়িগ্রাম-৩ আসনের নির্বাচনের জন্য একটি গণবিজ্ঞপ্তি জারি করেন। ওই গণবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ২৪ জুন মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ তারিখ। ২৬ জুন মনোনয়নপত্র বাছাই ও ৩ জুলাই প্রত্যাহারের শেষ দিন। আগামী ২৫ জুলাই ওই আসনের উপনির্বাচনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী এমএ মতিন ও জাপার প্রার্থী ডা. আক্কাছ আলী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
পূর্ববর্তী সীমানা অনুযায়ী এ আসনের বর্তমান ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৬৬ হাজার ৮১১ জন। আসনটিতে উলিপুর উপজেলার সাহেবের আলগা ইউনিয়ন বাদে বাকি অংশ এবং চিলমারী উপজেলার রমনা, থানাহাট, চিলমারী ও রানীগঞ্জ ইউনিয়ন অন্তর্ভুক্ত।
জাহাঙ্গীর আলম আরও বলেন, ‘রিট আবেদনকারী এস এম মোস্তাফিজুর রহমান রমনা ইউনিয়নের বাসিন্দা। ৩০ এপ্রিলের গেজেট মতে তিনি কুড়িগ্রাম-৪ এর বাসিন্দা হলেও এ নির্বাচনে তাকে ভোট দিতে বলা হয়েছে কুড়িগ্রাম-৩-এ। এটা তো ঠিক হলো না। তাই তিনি এর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করেছেন। এ অবস্থায় নির্বাচনও স্থগিত চাওয়া হয়েছে। নির্বাচন ২৫ তারিখ। যদি এরমধ্যে সব ঠিক করা হয়, তাহলে ২৫ তারিখ নির্বাচন হতে আর বাধা থাকবে না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ