ঢাকা, শুক্রবার 20 July 2018, ৫ শ্রাবণ ১৪২৫, ৬ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের মোট জিপিএ ৫-এর এক-চতুর্থাংশ পেয়ে রেকর্ড গড়লো তা’মীরুল মিল্লাত

এইচ এম আকতার : বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষা  বোর্ডের অধীনে অনুষ্ঠিত আলিম পরীক্ষায় এবারও মোট জিপিএ ৫ এর এক চতুর্থাংশ পেয়ে রেকর্ড অব্যাহত রেখেছে তা’মীরুল মাদরাস। একক প্রতিষ্ঠান হিসেবে ১৯৭ জিপিএ ৫ পেয়েছে টঙ্গী শাখা। এবার মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডে জিপিএ ৫ পেয়েছে মোট ১২৪৪ জন। তা’মীরুল মিল্লাত ট্রাস্ট পরিচালিত তিনটি প্রতিষ্ঠান থেকে এবার জিপিএ ৫ পেয়েছে ২৮৭ জন। বোর্ডের প্রায় এক চর্তুথাংশ জিপিএ ৫ পেয়েছে এই প্রতিষ্ঠান থেকেই। যা অতীতের সব রেকর্ড ভেঙ্গেছে। প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ বলছেন আগামীতেও এ সাফল্যের ধারা অব্যাহত থাকবে। ইনশাল্লাহ।

 ফলাফল বিশ্লেষণে দেখা গেছে, এবার টঙ্গী শাখা থেকে বিজ্ঞান বিভাগে অতীতের ধারাবাহিকতায় এবারও জিপিএ ৫ প্রাপ্তিতে শীর্ষস্থান অধিকার করেছে। মাদ্রাসাটি থেকে ৬০০ জন অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীর মধ্যে ১৯৭ জন জিপিএ ৫ সহ সবাই উত্তীর্ণ হয়েছে। এর মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগে ২৪৮ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে জিপিএ ৫ পেয়েছে  ১১১ জন ও ১৩৬ জন  পেয়েছে জিপিএ ৪। সাধারণ বিভাগে ৩৫২ পরীক্ষার্থীর মধ্যে জিপিএ ৫ পেয়েছে ৮৬ জন, আর জিপিএ ৪ পেয়েছে ২২৫ জন, এবং এ- পেয়েছে ৩৫ জন ও ৪ জন ই গ্রেডে উত্তীর্ণ হয়েছে ।

 প্রতিষ্ঠানটির মূল ক্যাম্পাস থেকে এবার তা‘মীরুল মিল্লাত ট্রাস্ট পরিচালিত তা‘মীরুল মিল্লাত কামিল মাদ্রাসা, ঢাকা থেকে ৩৫৪ জন অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীর মধ্যে ৫৪ জন জিপিএ ৫ পেয়েছে। এদের মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগে ১২০ পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২৬ জন জিপিএ ৫ পেয়েছে, জিপিএ ৪ পেয়েছে ৮৭ জন, আর বাকি ০৬ জন পেয়েছে এ-। আর এ ক্যাম্পাস থেকে  সাধারণ বিভাগে ২৩৭ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে জিপিএ ৫ পেয়েছে ২৮ জন। এদের মধ্যে জিপিএ ৪ পেয়েছে ১৩০ জন। বাকিরা ৩৫ জন এ- পেয়ে উর্ত্তীণ হয়েছে।

তা‘মীরুল মিল্লাত মহিলা কামিল মাদ্রাসা, মাতুয়াইল থেকে এ বছর ১৩৩ জন অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীর মধ্যে ৩৮ জন ছাত্রী জিপিএ ৫ পেয়েছে। এ শাখা থেকে সবাই উত্তীর্ণ হয়েছে। এর মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগে ৪৮ পরীক্ষার্থীর মধ্যে জিপিএ ৫ পেয়েছে ১১ জন,  বাকি ২৭ জন জিপিএ ৪ পেয়েছে। সাধারণ বিভাগে ৮৫ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে  জিপিএ ৫+ পেয়েছে  ১৭ জন। বাকি ৫৬ জন  পেয়েছে জিপিএ ৪। 

তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় ভালো ফলাফলের জন্য মাদ্রাসার স্বনামধন্য অধ্যক্ষ বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ মাওলানা মুহাম্মদ যাইনুল আবেদীন এ জন্য মহান আল্লাহ তায়ালার শুকরিয়া জানান। তিনি উল্লেখ করেন, শিক্ষকদের আন্তরিকতা ও নিবিড় পরির্চযা, ছাত্রদের কঠোর পরিশ্রম এবং অভিভাবকদের আন্তরিকতা ও দোয়া এই ফলাফলের পেছনে ভূমিকা রেখেছে। আগামীতে আরো ভালো করার জন্য ছাত্র ও শিক্ষকদের জোর প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে এবং দেশ ও জাতীর ক্রান্তিলগ্নে তা‘মীরুল মিল্লাত কামিল মাদ্রাসার ছাত্ররা আদর্শিক ক্ষেত্রে আপসহীন থেকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে অধ্যক্ষ মহোদয় আশাবাদ ব্যক্ত করেন। 

অধ্যক্ষ যাইনুল আবেদীন আরো বলেন, দেশে যখন ইসলামি শিক্ষা ব্যবস্থার জন্য নানা সীমাবদ্ধতা ও সংকীর্নতা তৈরি হয়েছে তখনও তা‘মীরুল মিল্লাত ট্রাস্ট পরিচালিত প্রতিষ্ঠানসমূহের প্রতি দেশ ও জাতি গভীর আস্থা রেখেছে। ফলশ্রতিতে ২০১৮-২০১৯ সেশনে আলিম প্রথম বর্ষে প্রায় দুই হাজার ছাত্র-ছাত্রী তা‘মীরুল মিল্লাত মাদ্রাসায় ভর্তি হয়েছে। জাতির এ বিশাল আমানত রক্ষায় তিনি আল্লাহ তা‘আলার নিকট তাওফীক ও দেশবাসীর কাজে দু‘আ কামনা করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ