ঢাকা, শনিবার 21 July 2018, ৬ শ্রাবণ ১৪২৫, ৭ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

শ্রমিকদের ঐক্যবদ্ধ সংগ্রাম পারে ইনসাফ পূর্ণ ন্যায্য মজুরি বাস্তবায়ন করতে -মিয়া গোলাম পরওয়ার

গতকাল শুক্রবার খুলনা অঞ্চল আয়োজিত ট্রেড ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দের কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাবেক এমপি অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার

বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাবেক এমপি অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার বলেছেন, শ্রমিকদের ঐক্যবদ্ধ সংগ্রাম পারে দেশব্যাপী সাম্প্রদায়িক-ফ্যাসিবাদী রাজনীতির মোকাবিলা করতে। আজ একের পর এক শ্রমিক বিরোধী নীতি ও প্রস্তাব গ্রহণ করে সরকার যখন তার মালিক বৃহত পুঁজির কাছে শ্রমিকের স্বার্থকে অর্পণ করছে, তখন শ্রমিকদের দেশব্যাপী সংগ্রাম গড়ে তোলা আজ এক জরুরি কর্তব্য। তাই ট্রেড ইউনিয়নের মাধ্যমে প্রধানত শ্রমিকদের আজ লড়তে হবে।
গতকাল শুক্রবার খুলনা অঞ্চল আয়োজিত ট্রেড ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দের কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এই কথা বলেন। কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি মাষ্টার শফিকুল আলম এর সভাপতিত্বে খুলনা মহানগরীর সভাপতি খান গোলাম রসুলের পরিচালনায় উপস্থিত ছিলেন খুলনা মহানগর জামায়াতের সেক্রেটারি মাহফুজুর রহমান, ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সহ-সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান কেন্দ্রীয় সহ- শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ সম্পাদক মোঃ আব্দুল্লাহ বাছির, খুলনা বিভাগ দক্ষিণের সহ-সভাপতি আব্দুল খালেক হাওলাদার, হাফিজুর রহমান, খুলনা বিভাগ দক্ষিণের সেক্রেটারি আল ফিদা হোসেন প্রমুখ।
মিয়া গোলাম পরওয়ার বলেন, পোশাক শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি ৬ হাজার ৩৬০ টাকা করার প্রস্তাব দিয়েছে মালিকরা। শ্রমিকদের দাবি, ন্যূনতম মজুরি ১৬ হাজার টাকা ঘোষণা করতে হবে। শ্রমিকদের এই দাবি তাদের বাঁচার দাবি, যৌক্তিক দাবি। তাদের জীবন চলার জন্য এই টাকা দরকার। তাই এই দাবি পূরণে সরকার যেন কোনো বিলম্ব না করে।
তিনি সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, বহু কারখানায় এখনও ট্রেড ইউনিয়ন নেই। ট্রেড ইউনিয়ন করতে গেলে শ্রমিকদের ওপর মালিকের লোকদের আক্রমণ চলে। সব কারখানায় অবাধে ট্রেড ইউনিয়নের সুযোগ দিতে হবে। কর্মক্ষেত্রে কোনো শ্রমিক আহত হলে আন্তর্জাতিক আইন অনুসারে আজীবন আয়ের সমান অর্থ ক্ষতি পূরণ দিতে হবে। কেউ মারা গেলে তার পরিবারকে পযাপ্ত ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।
তিনি শ্রমিক আন্দোলনের ইতিহাস তুলে ধরে বলেন, ১৮৮৬ সালে আমেরিকার শিকাগো শহর থেকে আজ পর্যন্ত অনেক শ্রমিক আন্দোলন হয়েছে, কিন্তু এত আন্দোলন-সংগ্রামের পরও আজও শ্রমিকদের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়নি। এজন্য তাদের এখনও আত্মবলি দিতে হচ্ছে। এর কারণ, তাদের সমস্যা সমাধানের চিন্তা করা হয়েছে স্বার্থান্ধ বিবেকের দৃষ্টিকোণ থেকে। আমরা বিশ্বাস করি যে, ইসলাম মানবজাতির জন্য আল্লাহর পক্ষ থেকে অবতীর্ণ পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যবস্থা। আর এই ইসলামী শ্রমনীতিই পারে শ্রমিকের ন্যায্য অধিকার ফিরিয়ে দিতে। তাই ট্রেড ইউনিয়নের মাধ্যমে শ্রমিকদের ঐক্যবদ্ধ করে ইনসাফ পূর্ণ ন্যায্য মজুরি বাস্তবায়ন করতে ট্রেড ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দদের এগিয়ে আসতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ