ঢাকা, শনিবার 21 July 2018, ৬ শ্রাবণ ১৪২৫, ৭ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

আগামী নির্বাচনে দেশ বাঁচাতে নৌকা থেকে বিরত থাকতে হবে -মান্না

স্টাফ রিপোর্টার : ১৫০টি আসনে নির্বাচন করতে হবে এমন কোনো কথা কাউকে বলিনি বলে জানিয়েছেন বিকল্পধারা বাংলাদেশের যুগ্ম-মহাসচিব মাহি বি. চৌধুরী। তিনি বলেন, এ ধরনের কোনো কথা বলিনি। আমি বলেছি ভারসাম্যপূর্ণ সরকার চাই। এটা নিশ্চিত করতে হবে কেউ যাতে এককভাবে ক্ষমতায় না যায়। ১৫০টি আসনে নির্বাচন করতে হবে এমন কোনো কথা কাউকে বলিনি। সাংবাদিক সম্মেলনে মাহমুদুর রহমান মান্না ও মাহী বি চৌধুরী আগামী নির্বাচনে দেশ বাঁচাতে নৌকা থেকে বিরত থাকতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না। তিনি বলেন, ‘এটাই আমাদের নির্বাচনি ক্যাম্পেইন। আমরা ভারসাম্যের ভিত্তিতে আলাদা জোট অথবা ঐক্য করতে চাই।’ গতকাল শুক্রবার রাজধানীর গুলশান ২-এ তার নিজ বাসভবনে এক সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।
আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে জাতীয় ঐক্যের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে মান্না বলেন, ‘আমরা জামায়াতের সঙ্গেও যাচ্ছি না, আবার বিএনপির সঙ্গেও যাচ্ছি না। আমাদের নির্বাচনি ক্যাম্পেইন হচ্ছে দেশ বাঁচাতে নৌকা থেকে বিরত থাকতে হবে। আমরা বলছি না আমাদের প্রধানমন্ত্রিত্ব বা মন্ত্রিত্ব দিতে হবে। একইভাবে বলি, মালয়েশিয়ায় কোনও দল যদি ১৫ জন সংসদ সদস্য নিয়ে প্রধানমন্ত্রী পেতে পারে, তাহলে আমরা তো ৫০ বা ৬০টি আসন পেতে পারি। কোনও ব্যক্তি, গোষ্ঠী বা পরিবারকে ক্ষমতায় বসানো গণতন্ত্র হতে পারে না। এজন্য আমরা ভারসাম্যের ভিত্তিতে আলাদা জোট অথবা ঐক্য করতে চাই। এ জোটে সরকারবিরোধী বিএনপিসহ সব দলই থাকতে পারবে।’ জাতীয় ঐক্যে জামায়াতকে নেওয়ার প্রসঙ্গে জানতে চাইলে মান্না বলেন, ‘জামায়াত নির্বাচনি প্রক্রিয়ায় আসতে পারবে না। কারণ, তাদের নিবন্ধন নেই। জামায়াত হয়তো বিএনপি থেকে ১০টা আসন পেতে পারে। আওয়ামী লীগ থেকেও পেতে পারে। কারণ, আওয়ামী লীগের মধ্যেও অনুপ্রবেশকারীর অভাব নেই। তারা তো দাঁড়িপাল্লা নিয়ে নির্বাচন করতে পারবে না। কারণ, জামায়াত সাংগঠনিক বা রাজনৈতিক ভাবে নেই। এখনই জামায়াত-জামায়াত করে ঐক্য বাধাগ্রস্ত করতে চাই না।’
সাংবাদিক সম্মেলনে যুক্তফ্রন্টের শরিক দল বিকল্পধারার যুগ্ম মহাসচিব মাহী বি চৌধুরী বলেন, ‘বিভিন্ন সংবাদপত্রে আমরা বিএনপির কাছে ১৫০টি আসন চেয়েছি বলে প্রচার হয়েছে। তা সত্য নয়। আমি এই বিষয়ে কাউকে কিছু বলিনি। আমি বলেছি ভারসাম্যের ভিত্তিতে জাতীয় ঐক্য হতে হবে। জাতীয় নির্বাচনের আর বেশি বাকি নেই-এ অবস্থায় ঐক্যের ঘোষণা কবে আসতে পারে-এমন প্রশ্নের জবাবে মাহি বি চৌধুরী বলেন, সময় দিয়ে আসলে কোনো ঐক্য হয় না। ঐক্য একটা প্রক্রিয়ার বিষয়। এই ঐক্য প্রক্রিয়াটা চলবে। আমরা সবাই ঐক্যর ব্যাপারে ইতিবাচক। একটা জায়গায় আমরা একমত হয়েছি যে ভারসাম্যের ভিত্তিতে ঐক্য হতে হবে।
মাহি বি. চৌধুরী বলেন, আমরা একটি স্বেচ্ছাচারমুক্ত গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ দেখতে চাই। ভারসাম্যের ভিত্তিতে ঐক্য হবে। শুধু ক্ষমতার পালাবদলের জন্য ঐক্য নয়। ঐক্যের অনেক বিষয় আছে। যাদের সঙ্গে ঐক্য হবে তাদের সঙ্গে বসতে হবে। ঐক্যটা হবে বৃহত্তর। অর্থাৎ এই সরকারের বাইরে মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী শক্তি ছাড়া সবাইকে এক করতে হবে।
তিনি বলেন, আমরা এমন একটা জায়গায় নিয়ে যেতে চাই বাংলাদেশ বনাম সরকার। সেই জায়গায় নিতে গেলে সে রকম মানসিকতা এবং সামগ্রিক ইশতেহারের দিকে আমরা যাতে এগিয়ে যেতে পারি তাহলেই ঐক্য হবে। সময় এখনই আমরা বলতে পারব না।
বিএনপির সঙ্গে জোটবদ্ধ আন্দোলনে যাবেন কি না এমন প্রশ্নের জবাবে মাহি বি. চৌধুরী বলেন, বৃহস্পতিবারে যুক্তফ্রন্টের বৈঠকে এ বিষয়টি আলোচনা হয়নি। এটা আমাদের এজেন্ডাই ছিল না। এ নিয়ে আমাদের মহাসচিব মেজর (অব.) মান্নানের বক্তব্যটা সঠিকভাবে উপস্থাপিত হয়নি।
তিনি বলেন, সুনির্দিষ্টভাবে একটি দলকে সমর্থন করার কোনো বিষয়ই আসেনি। কথা হচ্ছে জাতীয় বৃহত্তর ঐক্য। বর্তমান সরকার দেশে যে দুঃশাসন চলছে এই দুঃশাসনের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করতে হবে। গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধার করতে হবে। এজন্য বর্তমান সরকারের বাইরে যতগুলো রাজনৈতিক দল আছে তাদের সবার মধ্যে একটা জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলতে হবে। তাহলে আমরা এই সরকারের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করতে পারব। গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধার করতে পারব। এ রকম একটা আইডিয়া নিয়েই আমরা এগিয়ে যাচ্ছি।
তিনি বলেন, আমরা বাংলাদেশের দলগুলোকে দেখেছি যে দলগুলোর ভেতরেই গণতন্ত্র নেই। সে দল ক্ষমতায় গেলে আসলে একজন ব্যক্তি ক্ষমতা যায়। একটি পরিবার ক্ষমতায় যায়। এই পরিস্থিতিতে আমাদের দেশকে উত্তরণ ঘটাতে হবে। আমরা ৯১-এ দলের ক্ষমতা দেখেছি, ৯৬-এ দলের ক্ষমতা দেখেছি। ২০০১ সালেও জোটের ক্ষমতা দেখেছি।
তিনি বলেন, ২০০৮ এ মহাজোটের ক্ষমতা দেখেছি। ক্ষমতায় যায় একজন ব্যক্তি, ক্ষমতায় যায় একটি পরিবার। তার থেকে দেশকে রক্ষা করতে হলে ক্ষমতায় ভারসাম্য দেখতে চাই। যাতে দেশের জনগণ ক্ষমতায় যেতে পারে। এখানে আমরা একটা ভারসাম্য চাই। এটা বিকল্প ধারার কথা। জামায়াতকে ঐক্যে রাখবেন কি না এমন প্রশ্নের জবাবে মাহি বি. চৌধুরী বলেন, জামায়াতকে সঙ্গে নিয়ে কোনো নির্বাচনী জোটের প্রশ্নই ওঠে না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ