ঢাকা, শনিবার 21 July 2018, ৬ শ্রাবণ ১৪২৫, ৭ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

অহঙ্কারের অলংকার : কোহিনূর

মো. জোবায়ের আলী জুয়েল : পৃথিবীব্যাপী মহামূল্যবান হীরক খন্ড আজও মানুষের কাছে অত্যন্ত আকর্ষণীয় ও লোভনীয় অলঙ্কার হিসেবে পরিগণিত হয়ে আসছে। রাজকন্যার মাথার মুকুটে, নববিবাহিত বর ও বধূর হাতের আংটি অথবা অপরুপ সুন্দরী কোনো রমণীর গলায় পরা অলঙ্কারটি তখনই সার্থক হয়ে ওঠে যখন তাতে বসানো থাকে মহামূল্যবান চকচকে এক টুকরো হীরক খন্ড। প্রেম ও প্রণয়ের প্রতীক হিসেবে হীরাকে বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয় অলঙ্কারে পরিণত করেছে। প্রাচীনকাল থেকে রোমানরা হীরক খন্ডকে তাদের জীবনী শক্তি বলে মনে করে আসছে। হীরক হলো সুন্দরী রমণীদের সবচেয়ে আকর্ষণীয় বস্তু। মধ্য যুগে, যুদ্ধ বিগ্রহ অথবা জাদুটোনার মোকাবিলার জন্য সে আমল থেকে হীরাকে একটি অত্যন্ত কার্যকর শক্তি বলে গণ্য করা হতো। রাজা-বাদশাহরা তাদের মুকুটে বা তরবারির বাঁটে হীরকখচিত পাথর ব্যবহার করতেন। বীর হায়দার আলীর পুত্র মহিশুরের টিপু সুলতান তার তরবারির বাঁটে হীরকখচিত পাথর ব্যবহার  করেছেন। চিকিৎসা শাস্ত্রেও সে যুগে  এ পাথরটির বিস্তর ব্যবহার দেখা গেছে।
প্রতি বছর বিশ্বে হাজার হাজার কোটি ডলারের হীরা অলঙ্কার হিসেবে ব্যবসা হয়ে আসছে। বিশ্বে ‘ডি. বিয়ার্স’ নামক কোম্পানি তাদের উৎপাদিত হীরার সবচেয়ে বড় বাজার দখল করে রেখেছে। দক্ষিণ আফ্রিকার  ‘কিমবারলি হীরক খনি’ পৃথিবীর মধ্যে সর্ববৃহৎ হীরক খনি হিসেবে বিশ্বে পরিচিতি লাভ করেছে। পৃথিবীর শতকরা ৬০ ভাগ হীরা উত্তোলন করা হয় এ দক্ষিণ আফ্রিকার  কিমবারলি হীরক খনি থেকে।  যুগে যুগে হীরা আবার দূর্ভাগ্যও ডেকে এনেছে অসংখ্য রাজা-বাদশাহর জীবনে। এটি ধারণ করে থাকা অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেছেন অনেকেই। অতীতে অনেক সম্রাজ্ঞী হীরার অঙ্গুরী ধারণ করে যুদ্ধক্ষেত্রে হাজির হতেন। যুদ্ধবিগ্রহে পরাজিত বা সতীত্ব হারানোর ভয়ে তাৎক্ষণিক হীরা চুম্বন করে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়তেন। চিতর রানী কর্ণবতী এভাবেই যুদ্ধ ক্ষেত্রেই জহরব্রতে প্রাণ বিসর্জন দিয়েছিলেন। পৃথিবীতে নীলাভ সাদা বর্ণের হীরা বিশ্বের সবচেয়ে মূল্যবান হীরা বলে পরিচিত। এরপরেই রয়েছে সবুজ, হলুদ ও বাদামি রঙের হীরার অবস্থান। হীরা একটি মূল্যবান অলঙ্কারে পরিণত হওয়ার সবচেয়ে অন্যতম কারণ হলো এর দুষ্প্রাপ্যতা। আসলে একটি হীরাকে কতটা নিপুণ দক্ষতার সঙ্গে কাটা হয়েছে তার উপরই নির্ভর করে এর প্রকৃত গুণাগুণ ও সঠিক মূল্য। আমাদের দেশের ধনীর গৃহে ও বিয়ের এনগেজমেন্ট রিং-এ হীরার আংটি একটি অপরিহার্য মূল্যবান রত্ন সামগ্রী হিসেবে পরিগণিত হয়ে আসছে।
ইতিহাস কী বলে?
মোগল সম্রাট শাহজাহানের (১৬২৭-১৬৫৮ খ্রি.) অপূর্ব নিদর্শন দিলির ময়ুর সিংহাসন। এটি স্বর্ণ, হীরা, চুনি-পান্না ও নানা ধরণের দুর্লভ মণি-মাণিক্য দ্বারা নির্মিত ছিল। শাহজাহানের এই ময়ুর সিংহাসনে  বিশ্বখ্যাত কোহিনূর ‘হীরক খন্ড’টি বসানো ছিল। দিলির সম্রাট শাহজাহানের রাজত্বকালেই শিল্পাধ্যক্ষ বেবাদল খাঁর তত্ত্বাবধানে প্রায় ৮ বছর ধরে (১৬৩৪-১৬৪২ খ্রি.) প্রায় ৮ কোটি টাকা ব্যয়ে এর নির্মাণকার্য সম্পন্ন হয়েছিল (আগ্রার তাজমহলের দ্বিগুণ অর্থ ব্যয়ে)। ময়ূর সিংহাসনের ৪টি পায়া নিরেট স্বর্ণ দ্বারা নির্মিত এবং ১২টি মরকতমণির স্তম্ভের ওপর এর চন্দ্রাতাপ ছাদ উপস্থাপন করা ছিল। এছাড়াও সম্পূর্ণ ছাদটি উপরের দিকে স্বর্ণ দ্বারা মীনা করা হয়েছিল এবং মধ্যে মধ্যে মণি, মুক্তা নিখুঁতভাবে বসিয়ে এর ভিতরের দিকটা চুনি-পান্নার দ্বারা  একেবারে মুড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল। প্রতিটি স্তম্ভের মাথা মণি-মাণিক্য খচিত এক জোড়া ময়ুর মুখোমুখী বসনো ছাড়াও এর প্রতি জোড়া ময়ূরের মধ্যস্থলে এক একটি স্বর্ণনির্মিত গাছ এমনভাবে স্থাপন করা হয়েছিল যেন মনে হতো ময়ূর দুটি ঠোকরিয়ে গাছের ফল খাচ্ছে। হীরা, পান্না দ্বারা সুসজ্জিত ৩টি সিঁড়ির সাহায্যে সিংহাসনে উঠবার ব্যবস্থা ছিল। ১৭৩৯ খ্রিস্টাব্দে পারস্য সম্রাট  নাদির শাহ ভারতবর্ষ অভিযানকালে এর সৌন্দর্র্যে পাগল হয়ে এই দুর্লভ মহামুল্যবান ময়ূর সিংহাসনটি পারস্যে নিয়ে যান। সিংহাসনটি লম্বায় ১০ ফুট, প্রস্থে ৭ ফুট এবং উচ্চতায় সর্বোচ্চ ১৫ ফুট ছিল। সম্রাট শাহজাহানের স্বর্ণনির্মিত ও নানা ধরণের মণি-মানিক্যখচিত ময়ূর সিংহাসনে এ বিশ্বখ্যাত কোহিনূর হীরক খন্ডটি অপূর্ব দ্যুতিময় হয়ে ওঠে। ১৭৩৯ খ্রিস্টাব্দে পারস্য সম্রাট (বর্তমান ইরান) দুর্ধর্ষ নাদির শাহ দিলি আক্রমণ করেন এবং নগরীর  প্রায় ৩০ হাজার মানুষকে  হত্যা করে দিলির মোগলদের ধন-ভান্ডার ও ময়ূর সিংহাসনসহ  সর্বস্ব লুট করে নিয়ে যান। কিন্তু নাদির শাহ পরবর্তীকালে দেখতে পান তার লুট করা সব ধনসম্পদের মধ্যে  বিশ্বখ্যাত কোহিনূর হীরক খন্ডটি অনুপস্থিত।
তৎক্ষণাৎ চারদিকে তল্লাশি ও খোঁজাখুঁজির পর মোগল হেরেমের এক সুন্দরী রমণীর কাছে জানতে পারেন মোগল সম্রাট মোহাম্মদ শাহ তার পাগড়ির ভেতরে কোহিনূর লুকিয়ে রেখেছেন। ধূর্ত নাদির শাহ এক জাঁকজমকপুর্ণ রাজকীয় অনুষ্ঠানের মাধ্যমে মোহাম্মদ শাহকে দাওয়াত করেন এবং পরাজিত বাদশাহ হিসেবে তাকে তার পাগড়িটা বদল করতে বাধ্য করেন। মোগল বাদশাহ তার পাগড়ি খোলার সঙ্গে সঙ্গে তৎক্ষনাৎ কোহিনূর বেরিয়ে এলে নাদির শাহ ্ এটি দেখে আনন্দে আত্মহারা হয়ে তার অজান্তেই মুখ ফুটে বেরিয়ে আসে কোহ-ই-নূর এই শব্দটি। এর প্রকৃত অর্থ হলো আলোর পাহাড়। সেই থেকে পরবর্তীকালে চোখ ধাঁধানো এই রতœটির নাম হয় কোহিনূর। নাদির শাহ ময়ূর সিংহাসনসহ বিশ্বখ্যাত কোহিনূর নিয়ে ফিরে যান নিজ দেশ পারস্যে। কিন্তু অদৃষ্টের নির্মম পরিহাস কিছুদিন পরেই তিনি তার প্রতিপক্ষের দ্বারা নৃশংসভাবে খুন হন। শুধু তাই নয় পরবর্তীকালে তার সিংহাসনের এবং কোহিনূরের উত্তরাধিকারীদের অধিকাংশরেই পতন ঘটেছে অত্যন্ত করুণভাবে। এদের কেউ কেউ হয়েছেন অন্ধ, কেউবা হয়েছেন প্রজাবিদ্রোহে নিহত অথবা  পরিবারের সদস্যদের হাতে নৃশংসভাবে খুন হয়। ১৮২৩ খ্রিস্টাব্দে বিশ্বখ্যাত সাদ্দোজাই রাজ্য ভেঙে গেলে মোগল সম্রাট শাহ সুজার কাছ থেকে কোহিনূরটি নিয়ে যান শিখ সম্রাট মহারাজা রঞ্জিত সিং। কোহিনূরের মালিকানার দাবিদার একের পর এক হাতবদল হয়েছে সুদীর্ঘ ৭০০ শত বছর ধরে।
১৮৩৭ খ্রিস্টাব্দে ইংল্যান্ডের রানী ভিক্টোরিয়া ব্রিটেনের সিংহাসনে আরোহন করেন। লর্ড ডালহৌসি ১৮৪৮ খ্রিস্টাব্দে এ দেশে গভর্নর জেনারেল নিযুক্ত হন। পরবর্তী সময়ে ১৮৪৯ খ্রিস্টাব্দে ব্রিটিশদের সঙ্গে এক রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে পরাজিত হন। শিখ রাজ্যের সর্বশেষ উত্তারিধাকারী দিলীপ সিংহ। এ বছরেই ১৮৪৯ খ্রিস্টাব্দের ২৯ মার্চ লর্ড ডালহৌসি সমগ্র পাঞ্জাবকে ব্রিটিশ ভারতের অন্তর্ভুক্ত করে ঘোষণাপত্র প্রচার করেন। লর্ড ডালহৌসি শেষ পর্যন্ত ১৮৪৯ খ্রিস্টাব্দের এটা কেড়ে নিতে সক্ষম হয়েছিলেন ১০ বছর বয়স্ক শিখ সম্রাট দিলীপ সিংহকে যুদ্ধে পরাস্ত করে। সেই অবধি ঘটনাক্রমে এই কোহিনূরের ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির হস্তগত হয়। যুগের পর যুগ ধরে সেই দিলীপ সিংহের উত্তরসূরিরা কোহিনূরকে নিজেদের সম্পদ বলে দাবী করে এসেছেন। লাহোর কোষাগার থেকে জগৎবিখ্যাত কোহিনূর হীরাকে লর্ড ডালহৌসি নিয়ে আসেন মুম্বাইয়ে। ব্রিটিশ ভারতীয় গভর্নর জেনারেল লর্ড ডালহৌসি স্বয়ং নিজের বুকের জামার সঙ্গে একটি গোপন বেল্টে ডাবল সেলাই দিয়ে অতি সন্তর্পনে লুকিয়ে এই কোহিনূর পাথরটিকে তার নিজ শরীরের সঙ্গে আটকিয়ে অতি যত্নে মুম্বাইয়ে নিয়ে আসতে সামর্থ্য হয়েছিলেন। ১৮৪৯ খ্রিস্টাব্দের শেষের দিকে এটিকে ভারতীয় কোষাগার থেকে ব্রিটেনে নিয়ে যাওয়া হয় এবং বিশ্বখ্যাত এ কোহিনূর হীরাটি মহারানী ভিক্টোরিয়াকে উপহার দেওয়া  হয়। সেই থেকে মহারানী  ভিক্টোরিয়ার গলার হারে এই মহামূল্যবান হীরক খন্ডটিকে ব্যবহার করতে দেখা গেছে।
কোহিনূর বৃত্তান্ত : বিশ্বের সবচেয়ে মূল্যবান হীরক খন্ডের নাম হলো ‘কোহিনূর’। এর জন্ম দক্ষিণ ভারতে। এছাড়াও রয়েছে ভারতের বিখ্যাত নীলকান্ত হীরা (১৮৩০ খ্রিস্টাব্দে হেনরী ফিলিপ হোপ নামক এক ধনাঢ্য ব্যক্তি লন্ডনে ৯০ হাজার ডলারের বিনিময়ে নীলকান্ত হীরাটি কিনে নেন। পরবর্তীকালে তার নামানুসারেই এর নামকরণ করা হয় ‘হোপ’।) তুরস্কের ইস্তাম্বুলের ‘ক্যাসিকি ডায়মন্ড’ ও ঢাকার নবাব পরিবারের ‘দরিয়া-এ-নূর’ পৃথিবীর জগৎ বিখ্যাত হীরক খন্ড বলে বিশ্বে পরিচিতি লাভ করেছে।
বিশ্বখ্যাত মহামূল্যবান কোহিনূরের কথা না বললে হীরা সম্পর্কিত যে কোনো লেখাই যেন অসম্পূর্ণ থেকে যায়। প্রচলিত লোককাহিনী অনুযায়ী জানা যায়, এই জগৎবিখ্যাত হীরক খন্ডটি প্রায় আনুমানিক পাঁচ হাজার বছর আগে পাওয়া গেছে বলে ধারণা করা হয়। অবশ্য বিভিন্ন দলিল-দস্তাবেজ রেকর্ডপত্র ঘেটে ১৩০৪ খ্রিস্টাব্দ থেকে এর  অস্তিত্বের কথা জানা যায়। তখন ভারতবর্ষের শাসন ক্ষমতায় ছিলেন মোগলরা।
কোহ-ই-নূর শব্দের অর্থ হলো ‘পর্বতের আলো’। কোহিনূর সম্পর্কে সর্বপ্রথম জানতে পারা যায়  মোগল সম্রাট বাবর প্রণীত ফারসী গ্রন্থ ‘বাবরনামায়’। মোগল সম্রাট বাবর তার গর্বের ধন এই কোহিনূর সম্পর্কে দাবি করেছিলেন ‘এটি অত্যন্ত মূল্যবান এক দুর্লভ রত্ন’। পৃথিবীর সমগ্র মানুষ একদিনে যে পরিমাণ অর্থ ব্যয় করেন তার প্রায় সমপরিমাণ দাম কোহিনূরের।
১৮৫১ খ্রিস্টাব্দে কোহিনূরকে কেটে বসানো হয় একটি আর্মলেটে। সমস্ত লন্ডন জুড়ে সে সময় বিরাট এক প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছিল। কোহিনূর সে সময় হয়ে ওঠে বিশ্বের অন্যতম আকর্ষণীয় বস্তু। ১৮৫৩ খ্রিস্টাব্দে কোহিনূর স্থান পায় মহারানী ভিক্টোরিয়ার ‘টায়রাতে’। (১৮৫৮ খ্রিস্টাব্দে ইংল্যান্ডের মহারানী ভিক্টোরিয়া নিজ হস্তে ভারতের শাসনভার গ্রহণ করেন)। পরবর্তীকালে ১৯১১ খ্রিস্টাব্দে রানী মেরির স্বর্ণ মুকুটে আলোকিত হয়ে ওঠে কোহিনূর। ১৯৩৭ খ্রিস্টাব্দে সম্রাট ৬ষ্ঠ জর্জের করোনেশনের দিনে রানী মাতার মুকুটে স্থান পেল সর্বকালের সেরা হীরক খন্ড কোহিনূর। সেই থেকে আজ অবধি ইংল্যান্ডের রানীর মুকুটে বংশপরম্পরায় আজও শোভা পাচ্ছে কোহিনূর। জনশ্রুতি রয়েছে, হীরা পুরুষদের জীবনে কেবলই দুর্ভোগ ডেকে আনে বিধায় ব্রিটিশরাজ তাই রানীর মুকুটেই এর যোগ্য স্থান বলে বিবেচিত করেছেন। বিগত প্রায় পৌনে দুশ বছর ধরে বিশ্বখ্যাত কোহিনূর ইংল্যান্ডের রানীর মুকুটে আজ অবধি শোভা পাচ্ছে।
কোহিনূর হচ্ছে আসলে আমাদের  অধুনালুপ্ত সমগ্র ভারতবর্ষের সম্পত্তি। দক্ষিণ ভারতের মাটিতে এর গৌরবোজ্জ্বল জন্ম। মোগলরা দুই শতাব্দী ধরে ছিল এর প্রকৃত মালিক বা দাবিদার। আজ এটি গৃহহারা।
লন্ডন প্রবাসী এক ভারতীয় আইনজীবী গরপেদ রায় এবং ২৫ ভারতীয় পার্লামেন্ট সদস্য মিলে বেশকিছু দিন আগে কোহিনূরকে একবার তাদের দেশের মাটিতে ফিরিয়ে আনার জন্য জোর প্রচেষ্টা চালিয়েছিলেন। সমগ্র ভারতবর্ষ তখন হয়ে উঠেছিল উত্তপ্ত। পরবর্তীকালে এ আন্দোলনে উঠে পড়ে লেগে ছিলেন ব্রিটেনে ভারতের সাবেক রাষ্ট্রদূত ও বিখ্যাত কলামিষ্ট কুলদীপ নায়ার। পাকিস্তান, ভারত, বাংলাদেশে কোহিনূর হীরাটির অনেক দাবিদারই সে সময় হইচই শুরু করে দিয়েছিলেন র্এ প্রকৃত মালিকানা নিয়ে। এ নিয়ে বিতর্কও কম হয়নি সেসময়। এর আগেও পাকিস্তান একবার কোহিনূরকে তাদের দেশের মাটিতে ফিরিয়ে আনতে তৎপর হয়েছিল। দাবি জানিয়েছিল এটি পাকিস্তানের সম্পদ। কোহিনূর আন্দোলনকে তৎকালীন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী জেমস কালাহান সেই দাবি নাকচ করে দিয়েছিলেন এই বলে যে, ১৮৪৯ খ্রিস্টাব্দে লাহোর কোষাগার থেকে কোহিনূরকে ব্রিটেনে আনা হয়। এই তথ্য কোনভাবেই প্রমাণ করে না যে এটি পাকিস্তানের সম্পদ। তাছাড়াও এই মহামূল্যাবান হীরক খন্ডটি আমরা পেয়েছিলাম উপহার সামগ্রী হিসেবে। সুতরাং এই উপহার সামগ্রী ফিরিয়ে দেওয়ার কোন প্রশ্নই আসে না। কোহিনূর ফিরিয়ে আনতে আধুনিক ভারত পাকিস্তান কূটনৈতিক প্রচেষ্টাও চালিয়েছিল উচ্চ পর্যায়ে। শুধু পাকিস্তানই নয় কোহিনূরের জোর দাবি ইরান ও আফগানিস্তানও করে এসেছে ব্রিটিশ সরকারের কাছে।
কিন্তু ব্রিটিশ কাগজপত্রে যে কোহিনূরের  ৯০০ বছরের ইতিহাস রয়েছে তার মালিকানা ব্রিটেনও ছাড়তে নারাজ। উপসংহারে বলা যায়; ১৮৬ দশমিক ২ ক্যারেট ওজনের এই আশ্চর্য কোহিনূর হীরাটির প্রকৃত মালিকানার দাবিদার কোনো ব্যক্তি, গোষ্ঠি বা সম্প্রদায় নয়। কোহিনূর হচ্ছে সমগ্র ভারতবর্ষের সম্পদ। বিগত পৌনে দুশ বছর ধরে কোহিনূর ইংল্যান্ডের রানীর মুকুটে বসে তার দ্যুতি ছড়ালেও ব্রিটিশ সম্রাজ্যের দ্যুতি কিন্তু আজ ম্রিয়মাণ। বিশ্বের সাম্প্রতিক ঘটনাই তার জ্বলন্ত প্রমাণ।
[লেখক : সাহিত্যিক, গবেষক ও ইতিহাসবিদ]

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ