ঢাকা, রোববার 22 July 2018, ৭ শ্রাবণ ১৪২৫, ৮ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সিনিয়র ক্রিকেটারদের টেস্ট খেলতে অনীহা : বিসিবি সভাপতি

 

স্পোর্টস রিপোর্টার : দেশের হয়ে টেস্ট ক্রিকেট খেলতে চাচ্ছেননা সিনিয়র ক্রিকেটাররা। বিশেষ করে সাকিব, রুবেল এবং মোস্তাফিজুর রহমান। তবে তারা সরাসরি কিছু জানাননি। খোদ বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনই এমন বোমা ফাটালেন। তিনি সাকিব-মোস্তাফিজ-রুবেলসহ দেশের কজন সিনিয়র ক্রিকেটার টেষ্ট ক্রিকেট খেলতে নিরুৎসাহী। সারা বিশ্বেই এখন ফ্র্যাঞ্চাইজি টি টোয়েন্টি ক্রিকেটের জয় জয়কার। এই ফ্র্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্টগুলো দিনকে দিন টেস্ট ক্রিকেটের জন্য বড় বাঁধা হয়ে দাড়িয়েছে। অনেক বেশি অর্থ ও আনুসাঙ্গিক সুযোগ সুবিধা মেলে। অথচ পরিশশ্রম অনেক কম। পাঁচদিনের টেস্টের একটি সেশনের সমান প্রায় আয়ুষ্কাল। পরিশ্রম খুব কম। কিন্তু বিনিময় মূল্য অনেক অনেক বেশি। এক মাসের আইপিএল খেলে যে পরিমান অর্থ উপার্জন করা সম্ভব, তা পাঁচ বছর টেস্ট খেলেও তা অর্জন করা কঠিন। এ কারণেই অনেক ক্রিকেটারও এখন ভারতের সাড়া জাগানো ফ্র্যাঞ্চাইজি আসর আইপিএলে মজেছেন। কম পরিশ্রম, সীমিত মেধা ও স্কিল নিয়েও টেস্টের চেয়ে বহু বেশি অর্থ আয়ের সুযোগ আছে বলেই তারা পারলে টেস্ট ক্রিকেটকে বিদায় জানিয়ে ফ্র্যাঞ্চাইজি ভিত্তিক টি-টোয়েন্টি আসর  খেলেন সারা বছর। বিসিবি প্রধান জানিয়েছেন দেশের শীর্ষ তারকা সাকিব আল হাসান, কাটার মাস্টার মোস্তাফিজুর রহমান ও পেসার রুবেল হোসেন নাকি টেস্ট ক্রিকেট খেলতে অনুৎসাহী। সাংবাদিকদের সাথে আলাপে বিসিবি সভাপতি বলেন, এখন আমি লক্ষ্য করছি আমাদের কজন সিনিয়র প্লেয়ার টেস্ট খেলতে আগ্রহী না। তাদের মধ্যে সাকিবও আছে। সাকিবের মত জনপ্রিয় ও অন্যতম শীর্ষ ক্রিকেটারও টেস্ট খেলতে চায়না। এর ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে বিসিবি প্রধান বলেন, ‘মোস্তাফিজুর রহমানও টেস্ট খেলতে চায়না। ‘আমি েেটস্ট খেলতে চাইনা।' সরাসরি এমন কথা না বললেও মোস্তাফিজের হাব-ভাবে তাই মনে হয় এবং সে টেস্ট ক্রিকেটকে এড়িয়ে চলতে চায়।’ নাজমুল হাসান পাপন বলেন, ‘মেস্তাাফিজ প্রায়ই আহত হয়। তাই তার ধারণা জন্মেছে, টেস্ট ক্রিকেট না খেললে হয়ত তার ইনজুুরি কম হবে। তাই সে টেষ্ট খেলা থেকে বিরত থাকতে চায়।’ পাপন অরও বলেন, 'এখন আমাদের  বেশ কজন ক্রিকেটার টেস্ট খেলতে চায়না। কারন টেস্ট খেলা সহজ কাজ নয়। সব কিছুই বেশী দিতে হয়। খেলাটা পাঁচদিনের বলেই শুধু নয়। পরিশ্রম অনেক বেশী। ঘাম ঝড়াতে হয়। ফ্র্যাঞ্চাইজি আসরে তার অনেক কম কষ্ট। কিন্তু অর্থ লাভ হয় অনেক গুণ বেশী। আমাদের অন্যতম অভিজ্ঞ বোলার রুবেল হোসেনও টেস্ট খেলতে আগ্রহী নয়। অথচ এই ফরম্যাটে রুবেল বেশ অনেকদিন খেলে আসছে। দল তার সার্ভিস পেয়েছে বেশ অনেক দিন। এখন যদি রুবেলের মত প্লেয়ার টেস্ট খেলতে না চায়, তাহলে আমাদেরও বিকল্প পথে হাটা ছাড়া উপায়  নেই। বিসিবি সভাপতি বলেন, ‘আমাদের তরুণ প্রজন্ম থেকে আগামীতে টেস্ট পারফরমার খুঁজে বেড় করতে হবে।’ বিসিবি সভাপতি আবারো নাম উল্লেখ করেন বলেন, ‘আমাদের সাকিব, রুবেল ও মোস্তাফিজ দীর্ঘ পরিসরের ক্রিকেট খেলা থেকে বিরত থাকতে চায়।’ নাজমুল হাসান পাপনের ধারণা, ‘অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ডই ক্রিকেটের সনাতন ফরম্যাটকে আগলে রেখেছে। আমার ধারণা ও অনুভব, ঐ দুই দেশের ক্রিকেটাররা ছাড়া আর অন্য কোনো দেশের ক্রিকেটাররা টেস্ট ক্রিকেট খেলার উৎসাহ কম পায়। ‘অস্ট্রেলিয়া আর ইংল্যান্ড ছাড়া আর কোনো বোর্ডও সে অর্থে টেস্টে উৎসাহী নয়। আমাদের টিভি সম্প্রচারের দায়িত্বে যারা আছেন, তারাও টেষ্ট প্রচারে কম উৎসাহী।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ