ঢাকা, রোববার 22 July 2018, ৭ শ্রাবণ ১৪২৫, ৮ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

আমতলীতে বিদ্যুত সংযোগের নামে টাকা আদায়ের অভিযোগ

আমতলী (বরগুনা) সংবাদদাতা : জেলার আমতলী উপজেলার আঠারগাছিয়া ইউনিয়নের সোনাখালী ওগোডাঙ্গা গ্রামের বাসাবাড়ীতে বিদ্যুৎ সংযোগের নামে প্রায় ৮শ’ গ্রাহকের কাছ থেকে অফিস খরচের কথা বলে কয়েক দালালের বিরুদ্ধে টাকা আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয় সোনাখালী গ্রামের গ্রাহকদের পক্ষে মো. শামিম হাওলাদার বরগুনা জেলা জেলা প্রশাসক বরাবর অভিযোগ দায়ের করেছেন।
অভিযোগে জানা গেছে, পটুয়াখালী পল্লী বিদ্যুত সমিতির অধীনে জেলার আমতলী উপজেলার আঠারগাছিয়া ইউনিয়নের সোনাখালী, গোডাঙাগা  গ্রামে নতুন বিদ্যুৎ সংযোগ লাইনের কাজ করা হচ্ছে। গ্রামের বিভিন্ন বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার কথা বলে প্রায় ৮০০ গ্রাহকের কাছ থেকে অফিস খরচের কথা বলে গ্রাহক প্রতি/ পরিবার প্রতি প্রায় পাঁচ হাজার টাকা ৩ কেজি করে চাল উত্তোলন করেছে। পটুয়াখালী পল্লী বিদ্যুত সমিতি সূত্র জানিয়েছে, সোনাখালী গ্রামে এ পর্যন্ত ৩৬৬ টি পরিবারের জন্য বিদ্যুত সংযোগের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। বিদ্যুৎ সংযোগ প্রত্যাশি সোনাখালী গ্রামের সুজন,গনি মিয়া, শহিদুল,হাতেম,কালাম প্যাদাসহ  গ্রাহকরা জানিয়েছেন, সোনাখালীতে সোহেল ও নান্না মিলে গ্রাহক বা পরিবার প্রতি লাইনের খরচ বাবদ ১ হাজার টাকা, মিটার বাবদ ১২ শ টাকা, বৈদ্যুতিক ওয়ারিং প্রতিবেদন বাবদ ২৮ শ টাকা ও বিদ্যুতায়নের কাজে নিয়োজিত শ্রমিকদের খাবার বাবদ ৩ কেজি করে চাল
উঠেছে সোনাখালী গ্রামের ফজলুর রহমান হাওলাদারের পুত্র মো, সোহেল রানা. হাকিম আলী প্যাদার পুত্র নান্না ও গোডাঙ্গা গ্রামের মো. শহিদুল সর্দারের বিরুদ্ধে । অফিস খরচ বাবদ টাকা নেয়ার কথা মো. সোহেল রানা স্বীকার করেন। নান্না ও শহিদুল সর্দার  টাকা নেয়ার কথা অস্বীকার করেন। পল্লী বিদ্যুত বিভাগের ঠিকাদার সাইফুল ইসলাম জানিয়েছেন, নিয়ম মাফিক কাজ চলছে। আমার শ্রমিকদের খাবারের নামে কেউ চাল সংগ্রহ করলে সে প্রতারণা করেছে।
আঠারোগাছিয়া ইউপির চেয়ারম্যান হারুন অর রশিদ জানান, সোনাখালী ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য শাহীনসহ ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে চাঁদার টাকা ও চাল উত্তোলনের অভিযোগ শুনে সোহেল রানাকে তা ফেরত দিতে বলেছি।
অপরদিকে আমতলী পৌরসভার ৫ নং ওয়ার্ডে ৬০/৭০ জন গ্রাকের কাছ থেকে হুমায়ুন কবির ও সালাম ডাকুয়া নামের দুই দালাল ৩/৪ হাজার টাকা উত্তোলন করেছেন বিদু্যূত সংযোগ দেয়ার কথা বলে। টাকা দেয়ার পরে ও গ্রাহকরা ৬মাস পর্যন্ত সংযোগ পায়নি।  দালাল কবির ও সালাম ডাকুয়া টাকা নেয়ার কথা অস্বিকার করেন।
পটুয়াখালী পল্লী বিদ্যুত সমিতির জেনারেল ম্যানেজার মনোহর কুমার বিশ্বাস মুঠোফোনে জানান , তদন্ত সাপেক্ষ ব্যবস্থা নেয়া হবে।
বরগুনার জেলা প্রশাসক মো. মোখলেছুর রহমান বলেছেন, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। এরকম ঘটনা ঘটলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। ভুক্তভেগীরা অবিলম্বে দালালদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রশাসনের উচ্চ মহলের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ