ঢাকা, সোমবার 23 July 2018, ৮ শ্রাবণ ১৪২৫, ৯ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

টেবিল ঘড়ির বিজয়ে নগরীতে পরিবর্তন ও উন্নয়নের নবদিগন্তের সূচনা হবে -এডভোকেট জুবায়ের

নগরীর বন্দরবাজার এলাকায় টেবিল ঘড়ি মার্কার সমর্থনে গণসংযোগ করছেন নাগরিক ফোরাম মনোনীত মেয়র প্রার্থী এডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়ের

সিলেট ব্যুরো : সিলেট সিটি নির্বাচনে সিলেট নাগরিক ফোরাম মনোনীত মেয়র পদপ্রার্থী বিশিষ্ট আইনজীবী এডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়ের বলেছেন, আমি কথিত নগর পিতা হতে চাই না। নগরবাসীর খাদেম হিসেবে নিজের জীবনের সেরাটা তুলে ধরতে চাই। মিডিয়া বান্ধব উন্নতিতে আমরা বিশ্বাসী নই, কারণ আমানতদারিতার মাধ্যমে নাগরিক সেবার মান নিশ্চিত করাই আমাদের প্রধান উদ্দেশ্য। আমাদের রয়েছে সৎ, যোগ্য ও আদর্শবান একঝাঁক সুনাগরিক। যাদের নেতৃত্বের প্রধান লক্ষ্য হচ্ছে পরিবর্তন ও উন্নয়ন। ৩০ জুলাই অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হলে  টেবিল ঘড়ি মার্কার বিজয়ের মাধ্যমেই আমরা সিলেটে পরিবর্তন ও উন্নয়নের নবদিগন্তের সূচনা করবো- ইনশাআল্লাহ।
গতকাল রোববার টেবিল ঘড়ি মার্কার সমর্থনে নগরীর বন্দরবাজার থেকে গণসংযোগ শুরু করে নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে গণসংযোগ শেষে এক সংক্ষিপ্ত পথসভায় উপস্থিত জনতার উদ্দেশ্যে জুবায়ের উপরোক্ত কথা বলেন। গণসংযোগকালে নাগরিক ফোরামের নেতৃবৃন্দ ছাড়াও বিভিন্ন শ্রেণীপেশার বিপুল সংখ্যক মানুষ অংশ নেন। এসময় বন্দরবাজার থেকে শুরু করে গোটা নগরী লোকে লোকারণ্য হয়ে যায়।
এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- জামায়াতের কেন্দ্রীয় মজলিশে শুরা সদস্য ও জেলা দক্ষিণের আমীর মাওলানা হাবিবুর রহমান, জেলা উত্তরের আমীর হাফিজ আনোয়ার হোসাইন খান, ২০ দলীয় জোট সিলেট মহানগর সদস্য সচিব ও নির্বাচনী প্রধান এজেন্ট হাফিজ আব্দুল হাই হারুন, নাগরিক ফোরামের সদস্য সচিব মো: ফখরুল ইসলাম, জেলা উত্তর জামায়াতের নায়েবে আমীর সৈয়দ ফয়জুল্লাহ বাহার, মহানগর জামায়াতের সেক্রেটারি মাওলানা সোহেল আহমদ, ২০ দলীয় জোট সিলেট জেলা সদস্য সচিব ও দক্ষিণ সুরমা উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান মাওলানা লোকমান আহমদ, জেলা উত্তর জামায়াতের সেক্রেটারি মাওলানা ইসলাম উদ্দিন, লেবারপার্টির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান ও সিলেট মহানগর সভাপতি মাহবুবুর রহমান খালেদ, এলডিপির সিলেট জেলা সভাপতি সায়েদুর রহমান চৌধুরী রুপা, বিজেপি জেলা আহ্বায়ক মোজাম্মেল হোসেন লিটন, হেফাজতে ইসলাম সিলেটের সমন্বয়কারী মাওলানা আসলাম রহমানী, ইসলামী ঐক্যজোটের কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব প্রিন্সিপাল মাওলানা জহুরুল হক, নেজামে ইসলাম পার্টির জেলা সভাপতি ক্বারী আবু ইউসুফ চৌধুরী, এনডিপি জেলা সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান, জাগপা মহানগর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শাহজাহান আহমদ লিটন, ইসলামী ঐক্যজোট মহানগর  সেক্রেটারি ডা: হাবিবুর রহমান, জেলা সেক্রেটারি মাওলানা রফিক বিন সিকান্দার, বিজেপি জেলা সদস্য সচিব ডা: একেএম নুরুল আম্বিয়া, জৈন্তাপুর উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব জয়নাল আবেদীন, ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান সাইফুল্লাহ আল হোসাইন, গোলাপগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান হাফিজ নজমুল ইসলাম, মহানগর জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি মো: শাহজাহান আলী, এডভোকেট আব্দুর রব ও ড. নুরুল ইসলাম বাবুল, বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় এইচআরডি সম্পাদক জমশেদ আলম, সিলেট সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জৈন উদ্দিন, সাবেক দোয়ারাবাজার উপজেলা চেয়ারম্যান ডা: আব্দুল কুদ্দুস, ইসলামী ছাত্রশিবির সিলেট মহানগরী সভাপতি নজরুল ইসলাম ও সেক্রেটারি ফরিদ আহমদ প্রমুখ।

ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসারের স্বার্থেই ধানের শীষে ভোট দিন -আরিফ
সিলেটে ব্যবসায়ীদের জন্য সুন্দর ও উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টিতে আরিফুল হক চৌধুরী কাজ করেছেন। ব্যবসায়ীদের জন্য তিনি অনেক কষ্ট সহ্য করেছেন। ব্যবসায়ীদের সমস্যাকে দূর করার জন্য আরিফুল হক চৌধুরীর ভূমিকা প্রশংসনীয়। সিলেটের ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসারের স্বার্থেই আরিফুল হক চৌধুরীকে পুনরায় মেয়রপদে বিজয়ী করার জন্য কাজ করতে হবে। গতকাল রোববার নগরীতে আরিফের সমর্থনে গণসংযোগকালে ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ এ আহবান জানান।
গণসংযোগে অংশ নেন সিলেট রেস্টুরেন্ট মালিক সমিতির সাবেক সভাপতি আাতাউর রহমান, আম্বরখানা ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি কুতুবুর রহমান চৌধুরী, সিনিয়র সহ সভাপতি আব্দুল আজিজ, ব্যবসায়ী নাজমুল হক, জিয়াউল হক চৌধুরী, মোস্তফা মেহেদী হাসান খান, শাব্বির আহমদ লোকমান, সুহেল ওসমান গণি, লায়েক আহমদ, রিনুক আহমদসহ সর্বস্তরের ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ। নগরীর আম্বরখানা বাজার, রংমহল টাওয়ার, পৌর বিপণী মার্কেট, হকার্স মার্কেট, সিটি সুপার মার্কেট এবং কুদরত উল্লাহসহ মহাজনপট্টি, কালিঘাট এবং লালদিঘীরপাগ এলাকায় ধানের শীষের সমর্থনে গণসংযোগকালে সম্মিলিত ব্যবসায়ী ফোরামের নেতৃবৃন্দ এমন কথা বলেন।
এদিকে আম্বরখানা আবাসিক এলাকায় মণিপুরী সম্প্রদায় এবং কলোনীতে মেয়রপ্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরীর সাথে গণসংযোগকালে অংশ নেন জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সভানেত্রী মির্জা আফরোজা আব্বাস, সাবেক সাংসদ ও বিএনপির কেন্দ্রীয় স্থানীয় সরকার বিষয়ক সম্পাদক ও সাবেক সাংসদ শাম্মী আখতার শিপা, সাবেক সাংসদ রাশেদা বেগম হীরা, কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য ও সাবেক সাংসদ ইয়াসমিন আরা হক, সাবেক সাংসদ ও নির্বাহী সদস্য নেওয়াজ হালিমা আরলীসহ বিএনপি এবং এবং তার অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। রংমহল টাওয়ারে আরিফুল হক চৌধুরী গণসংযোগে এসে পৌঁছলে ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ তাকে শুভেচ্ছা জানিয়ে ছাতা উপহার দেন এবং উৎসুক জনতাকে ধানের শীষের মার্কায় ভোট দিয়ে সুখ এবং সমৃদ্ধির প্রতীক ধানের শীষকে বিজয়ী করার জন্য উদাত্ত আহবান জানান ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ।
এসময় মেয়রপ্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, ব্যবসায়ীরা আমাকে অত্যন্ত ভালোবাসেন। তাদের ভালোবাসা দেখে সত্যিই অভিভূত। ব্যবসায়ীরা যেহেতু দেশের উন্নয়নে অন্যতম চাবিকাঠি, সেহেতু সিলেট নগরীর উন্নয়নে তাদের অবদান কোনো অংশে কম নয়। তাই মেয়র থাকাবস্থায় সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি, ব্যবসায়ীদের জন্য একটি সুন্দর ও উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি করতে। একটি পরিকল্পিত ও আদর্শ নগরী গড়ে তুলতে ব্যবসায়ীদেরকে সাথে নিয়ে কাজ করেছি। আমাকে আবার নির্বাচিত করলে, আগের থেকেও বেশি আপনাদের পাশে থাকবো। সম্মিলিতভাবেই একটি ব্যবসা-বান্ধব নগর গড়তে কাজ করবো। আপনাদের প্রচণ্ড ভালোবাসা আমাকে সেই বিশ্বাস দিয়েছে যে. ধানের শীষে ভোট দিয়ে আমাকে আবার জয়যুক্ত করবেন।

নাটক সাজিয়ে মানুষের মন জয় করা যায় না -কামরান
সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী, সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান বলেছেন, নাটক সাজিয়ে মানুষের মন জয় করা যায় না। জনগণের ভালোবাসা পেতে হলে সুখ-দুঃখে তাদের পাশে থাকতে হয়। ভালোবাসতে হয় হৃদয় থেকে।
গতকাল রোববার সিলেট নগরীর দাড়িয়াপাড়া, কুশিঘাট, মণিপুরীপাড়া, গাজী বুরহান উদ্দিন রোড ও মাছিমপুর এলাকায় গণসংযোগকালে তিনি এ কথা বলেন। বদর উদ্দিন আহমদ কামরান বলেন, ‘যে মুখে বলে এক আর অন্তরে লালন করে আরেক তাকে মানুষ পছন্দ করে না। কাজ করতে হবে সবার শান্তি ও কল্যাণে। সন্ত্রাস-লুটপাট করে, হুমকি-ধমকি দিয়ে এবং নাটক সাজিয়ে কখনো মানুষের সমর্থন আদায় করা যাবে না।
কামরান বলেন, সন্ত্রাস ও লুটপাটসহ জনকল্যাণবিরোধী কাজে সম্পৃক্ত কেউ কেউ একের পর এক মিথ্যাচার করে যাচ্ছেন। নষ্ট করতে চাইছেন নির্বাচনের শান্তিপূর্ণ পরিবেশ। তবে আমার বিশ্বাস শান্তিপ্রিয় সিলেট নগরবাসী কারো ধোকাবাজিতে বিভ্রান্ত হবেন না। তারা ৩০ জুলাই নৌকা প্রতীকের পক্ষে রায় দিয়ে আধুনিক সিলেট নগরী গড়ার কাজে সম্পৃক্ত হবেন। গণসংযোগকালে উপস্থিত ছিলেন- জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সাবেক সংসদ সদস্য শফিকুর রহমান চৌধুরী, মো. ছমর উদ্দিন মানিক, মহানগর আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আজাদুর রহমান আজাদ, ইউপি চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আফছর আহমদ, ইউপি চেয়ারম্যান আলী হোসেন, ২৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি বাদশা মিয়া, সাধারণ সম্পাদক জাবেদ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক এনাম আহমদ, সুন্দর আলী, অ্যাডভোকেট আব্বাস উদ্দিন, নুরুল মালিক ছুটন, অ্যাডভোকেট শামীম আহমদ, ডা. নাজন, গোলজার আহমদ, মো. আজির উদ্দিন, মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেন, মো. নজরুল ইসলাম, মো. আব্দুস শহীদ, ছফু আহমদ, মো. সুহেল আহমদ, শেখ আবুল হাসনাত বুলবুল, পংকজ পুরকায়স্থ প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ