ঢাকা, সোমবার 23 July 2018, ৮ শ্রাবণ ১৪২৫, ৯ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন মেয়র নির্বাচন ২০১৮

রাজশাহী : গতকাল রোববার রাজশাহীতে মেয়র নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থী বুলবুল ও আ’লীগ প্রার্থী লিটন জনসংযোগ করেন -সংগ্রাম

ধানের শীষের জোয়ার
দেখে সরকারদলীয়
প্রার্থী ভীত -বুলবুল
রাজশাহী অফিস : রাজশাহী সিটি নির্বাচনে বিএনপি’র জোয়ার দেখে সরকার দলীয় প্রার্থী ভীত হয়ে পড়েছে। তিনি এখন নির্বাচন বাদ দিয়ে বিএনপি দমনে উঠে পড়ে  লেগেছেন। আইনশৃংখলা বাহিনীকে ব্যবহার করে বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করছেন। নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস না থাকায় তিনি এই ঘৃণ্য পথ বেছে নিয়েছেন।
গতকাল রোববার সকালে নগরীর ২৯নং ওয়ার্ডে গণসংযোগ কালে বিএনপি ও ২০ দলীয় জোট প্রার্থী মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল সাংবাদিকদের সাথে সাক্ষাৎকারে এই কথাগুলো বলেন। তিনি আরো বলেন, আওয়ামী লীগের মধ্যে হাইব্রিড নেতাকর্মীরা থাকায় আসল নেতারা লিটনের পক্ষ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। দিন দিন তার জনপ্রিয়তা শুন্যের কোঠায় এবং ভোট জামানত হারানোর পথে এগুচ্ছে বলে জানান বুলবুল। বর্তমান সরকারের নির্যাতন, মানসিক ও শারীরিক অত্যাচারে এবং দেশকে একটি তলাবিহীন ঝুড়িতে পরিণত করায় সাধারণ জনগণ এমনকি খোদ আওয়ামী লীগের অনেক নেতাকর্মী এই সরকারের প্রতি অনাস্থা এনেছে। স্বাধীন একটি দেশে জনগণের কোন স্বাধীনতা নেই। মুক্তভাবে কেউ সরকারে সমালোচনা করতে পারে না। নিজের মত করে কথা বলতে পারে না। বুলবুল বলেন, বিএনপি নেতাকর্মীদের গণগ্রেফতার করে বিএনপিকে ঠেকানো যাবে না। বিএনপি মাঠে থেকে নির্বাচন করবে এবং ৩০ তারিখে ভোট জোয়ারের মাধ্যমে ধানের শীষ বিজয়ী হবে বলে তিনি দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। সেইসাথে ২০ দলীয় জোটের নেতাদের ভীত না হওয়ার পরামর্শ ও সাধারণ ভোটারদের সাহস ও শক্তি নিয়ে ভোট কেন্দ্রে এসে ধানের শীষে ভোট প্রদান করার অনুরোধ করেন। বুলবুল বলেন, বিএনপি হচ্ছে বাংলাদেশ এবং রাজশাহী নগরীর একমাত্র উন্নয়নের রূপকার। বিএনপি মেয়রগণ এই নগরীকে সুন্দর, গ্রিন সিটি, ক্লিন সিটি, হেলদি সিটি ও এডুকেশন সিটিতে পরিণত করেছেন। নগরীর জনগণের চলাচলের জন্য প্রশস্ত রাস্তা এবং পাড়া-মহল্লার রাস্তা সংস্কার এবং প্রশস্ত করা হয়েছে। শহরকে আলোকিত করার জন্য আধুনিক লাইট সংযোগ ও সৌর বিদ্যুৎ প্লান্টের আওতায় আনা হয়েছে। সেগুলো কার্যক্রম চলমান রয়েছে এবং নগরবাসী ইতিমধ্যে এর সুফল পেতে শুরু করেছে। সেইসাথে বেকার সমস্যা দুরীকরণে নানবিধ কর্মসূচি গ্রহণ করা হবে বলে জানান বুলবুল। এই সকল কার্যক্রম ও প্রকল্প সমুহ বাস্তবায়নে পুণরায় তাঁকে ভোট প্রদান করে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে সহায়তা করার অনুরোধ জানান তিনি। গণসংযোগে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা, সাবেক মেয়র ও এমপি মিজানুর রহমান মিনু, উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, বিএনপি’র মহানগর সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. শফিকুল হক মিলন, সাবেক এমপি জাহান পান্না, শাহ্ মখ্দুম থানা সভাপতি মনিরুজ্জামান শরীফ, তানোর পৌরসভার মেয়র মিজানুর রহমান, ১৯নং ওয়ার্ড সভাপতি আকতার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক তাইনেসুর রহমান প্রমুখ।

বিএনপি নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার
অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে -লিটন
রাজশাহী অফিস : রাজশাহী সিটি মেয়র নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেছেন, আওয়ামী লীগের বিজয় বুঝতে পেরে শুরু থেকেই বিএনপি নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। গতকাল রোববার নগরীর ১০ নম্বর ওয়ার্ডের হাতেম খান এলাকায় গণসংযোগকালে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।
তিনি বলেন, বিএনপির পথসভায় হাতবোমা হামলার ঘটনায় জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মন্টুকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী হামলার ব্যাপারে বিএনপি নেতাদের কথপোকথনের অডিও ক্লিপও পেয়েছেন। এ ব্যাপারে প্রশাসনই ব্যবস্থা নেবে। তবে বিএনপি যে উদ্দেশ্যে নিজেরা নিজেরাই বোমা হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে, সে উদ্দেশ্য সফল হবে না। লিটন মনে করেন, জনগণের সহমর্মিতা অর্জন করতে বিএনপি পরিকল্পিতভাবে হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে। কিন্তু এর মাধ্যমে প্রমাণিত হলো বিএনপি নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চাইছে। তাই তাদের ব্যাপারে নগরবাসী আরও বেশি সচেতন হবেন বলেও মনে করেন তিনি। রোববার সকালে নগরীর ১০ নম্বর ওয়ার্ডের হাতেম খান ছোট মসজিদের সামনে থেকে গণসংযোগ শুরু করেন এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। এরপর এ ওয়ার্ডের ডাক্তারের মোড়, কলাবাগান, পুরাতন বিলশিমলা এলাকা এবং ১১ নম্বরের হাতেম খান কাঁচাবাজারসহ আশপাশের এলাকায় তিনি গণসংযোগ করেন। এ সময় তিনি সিটি নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে ভোটারদের কাছে ভোট প্রার্থনা করেন।

রাজশাহীতে বিএনপি
নেতাদের গ্রেফতারে
অভিযোগ দায়ের
রাজশাহী অফিস : রাজশাহীতে ধানের শীষ প্রতীকের পক্ষের নেতাকর্মীদের বিনা ওয়ারেন্টে গ্রেফতারের বিষয়ে রিটার্নিং অফিসারের কাছে অভিযোগ দায়ের করেছে বিএনপি। এর মাধ্যমে নির্বাচন চলাকালীন হাইকোর্টের দেয়া নির্দেশনা অমান্য করা হচ্ছে বলে অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে।
গতকাল রোববার দেয়া এই অভিযোগপত্রে বলা হয়, গত ২১ জুলাই রাত আনুমানিক ১১টায় ১৪নং ওয়ার্ড বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম বাবলু, রাত আনুমানিক ১২টার সময় ১৬নং ওয়ার্ড যুবদলের সাধারণ সম্পাদক শামীম আহম্মেদ, আনুমানিক রাত ৮টার সময় ধানের শীষের পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণা চালানোর সময় ২৬নং ওয়ার্ড যুবদলের সভাপতি জামিল উদ্দিনকে বিনা ওয়ারেন্টে আটক করে। যা হাইকোর্টের নির্দেশনার পরিপন্থী। একই দিনগত রাতে রাতে মিথ্যা মামলায় বিনা ওয়ারেন্টে জেলা বিএনপি সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট মতিউর রহমান মন্টুকে নিজ বাসা থেকে সাদা পোশাকধারী পুলিশ আটক করে। নির্বাচন চলাকালীন বিনা ওয়ারেন্টে কোন নেতাকর্মীকে গ্রেফতার না করার নির্দেশনা থাকলেও প্রতিনিয়ত হাইকোর্টের নির্দেশনা ভঙ্গ করে গ্রেফতার অব্যাহত রয়েছে। এসব বিষয়ে প্রয়োজনীয় দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণপূর্বক সুষ্ঠু নির্বাচনী পরিবেশ ও লেভেল প্লেইং ফিল্ড সৃষ্টি করার লক্ষে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য জোর দাবী জানানো হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ