ঢাকা, সোমবার 23 July 2018, ৮ শ্রাবণ ১৪২৫, ৯ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বরগুনার আমতলীতে মামলা করে বিপাকে পড়েছে বাদী ও তার পরিবার

আমতলী (বরগুনা) সংবাদদাতা  : বরগুনার আমতলী উপজেলার  ছোটনীলগঞ্জ গ্রামে নীজ দখলীয় জমি নিয়ে মামলা করে বিপাকে পড়েছে বাদী ও তার পরিবার। মামলা সূত্রে জান যায়, উপজেলার চলাভাঙ্গা মৌজার জে এল নং ৫১ খতিয়ান নং ১৯৭/৩৪৬/৩৪৭ এর  ক্রয় ও ওয়ারিশসূত্রে প্রাপ্ত ৪  একর জমি  মৃত হাচন হাং এর পুত্র মো. সোবহান হাং   ভোগ দখল করে আসছেন।
গত  মার্চ  মাসের ৩ তারিখ  সকাল দশ টার সময়  মামলার আসামী মো. নুরুল ইসলাম হাং মাছুম হাং আজিজ হাং  বাদী সোবহান হাং এর বাড়ীর সামনে বসে তাকে খুন ও জখমের হুমকি দেয়।
এ ঘটনায় সোবহান হাং আমতলী থানায় লিখিত অভিযোগ দিলে  আমতলী থানা পুলিশের এস এস আই তদন্ত করে বাদী ঘটনার সত্যতা পেয়ে আসামীদের বিরুদ্ধে প্রকাশ্য  ন্যায় বিচারের স্বার্থে আমতলী থানার নন এফ আইর প্রসিকিউসন নং ৪১/১৮  তারিখ ২৬/গ৬/২০১৮ খ্র্রিঃ ধারা ৫০৬ আদালতে দাখিল করেন।
 আদালতে পুলিশ প্রতিবেদন দেয়ার পরে পুন রায়  ১৬ জুলাই মামলার আসামীরা উক্ত বিরোধীয় জমিতে জোর করে ঘর উত্তোল করেন। এ সময় মামলার বাদী সোবহানের ভাইর স্ত্রী রানী বেগম(৬৫) মেয়ে  তানিয়া (২৫) বাধা  দিতে গেলে রানী বেগম ও তানিয়াকে   নুরুল ইসলাম (৫২)( লিটন(৩৫) মাসুম (২৫) আজিজ (৫৫)  নিস্কু  হাং (৩০) জাকির (৪৫) রনি (৪১) বেদড়ক ভাবে  তানিয়াকে মারধোর করে  ও তানিয়ার মা রিনা বেগম (৫৫) মাথায় কুপিয়ে আহত করেন। রিনা বেগম বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। এ সময় সন্ত্রাসীরা  সোবহানের ঘর ভাংচুর  নগদ অর্থ আসবাবপত্র লুট  ও দুইটি  পুকুরের মাছ জোর করে ধরে নিয়ে যায়।
এ ঘটনায় তনিয়া (৩০) বাদী হয়ে আমতলী কোর্টে ১৬ জুলাই    নুরুল ইসলাম (৫২)( লিটন(৩৫) মাসুম (২৫) আজিজ (৫৫)  নিস্কু  হাং (৩০) জাকির (৪৫) রনি (৪১)  আসামী করে  মামলা দায়ের করেন। আদালতের বিচারক মামলাটি আমলে নিয়ে   এজাহার নেয়ার  জন্য আমতলী থানাকে আদেশ প্রদান করেন।
আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) মো. নুরুল ইসলাম বাদল জানান আদালতের আদেশ পেয়ে   এজাহার গ্রহন করা হয়েছে। আমতলী থানার এস আই  আজীম কে তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়েছে। তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে। মামলা দায়ের করার পর মামলার বাদী ও তার পরিবারে সদস্য চরম নিরাপত্তহীনতায় ভুগছেন ।  আসামীদের  ভয়ে ও হুমকিতে বাড়ি ঘর ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ