ঢাকা, সোমবার 23 July 2018, ৮ শ্রাবণ ১৪২৫, ৯ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

বগুড়ায় ধর্ষণ মামলা আপোস করায় ইউপি চেয়ারম্যান কারাগারে

বগুড়া অফিস: বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার রায়নগর ইউনিয়নের টেপাগাড়ি গ্রামে একটি ধর্ষণ মামলা আপোষ মিমাংসা করে দেয়ার অভিযোগে ইউপি চেয়ারম্যান ফিরোজ আহম্মেদ রিজু ও ইউপি সদস্য মোস্তফা কামাল তোতাকে দোষী সাব্যস্ত করে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। গতকাল রোববার জেলা বগুড়ার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-০২ এর আদালতে আসামীপক্ষে জামিনের আবেদন করলে উক্ত আদালতের বিজ্ঞ বিচারক মো: আব্দুর রহিম এ আদেশ দেন। উক্ত মামলা আপোষ মিমাংসা করে দেয়ায় আদালত তাদের উভয়কে স্বশরীরে আদালতে হাজির হয়ে কারণ দর্শানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন। অপরদিকে, এই মামলায় শিবগঞ্জ উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা কর্তৃক বিজ্ঞ আদালতে প্রদত্ত চুড়ান্ত রিপোর্টের বিরুদ্ধে নারাজি আবেদন করলে আদালত বাদীর নারাজি আবেদনটিও গ্রহণ করেন এবং মামলার একমাত্র আসামী আইএফআইসি ব্যাংকে কর্মরত বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলার  গোচন সরদারপাড়ার ফয়েজ উদ্দিন মাষ্টারের ছেলে মো: সামছুর রহমান (৩৩) এর বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করেন।  
মামলা সূত্রে জানা যায়, বিয়ের প্রলোভন দিয়ে আসামী সামছুর রহমান টেপাগাড়ি গ্রামের স্বামী পরিত্যক্তা এক নারীকে ধর্ষণ করে ফলে ওই নারী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। পরে তাকে বিয়ের চাপ দিলে বিয়ে না করায় ওই নারী জেলা বগুড়ার নারী শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-০২ এর আদালতে একটি মামলা দায়ের করে। মামলা চলাকালে ওই নারী পুত্র সন্তান জন্ম দেয়। বর্তমানে শিশুটির বয়স এক বছর। উক্ত ঘটনা তদন্ত করে প্রতিবেদন দিতে শিবগঞ্জ উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তাকে নির্দেশ দিলে তিনি উক্ত ঘটনা তদন্ত করে আদালতে চুড়ান্ত রিপোর্ট দাখিল করেন। তিনি তার চুড়ান্ত রিপোর্টে উল্লেখ করেন, রায়নগর ইউপি চেয়ারম্যান ফিরোজ আহম্মেদ রিজু ও ইউপি সদস্য মোস্তফা কামাল এর উপস্থিতিতে বাদী ও আসামীদের মধ্যে আপোস মিমাংসা হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন।
এ ব্যাপারে জেলা বগুড়ার নারী শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-০২ এর স্পেশাল পিপি এ্যাড. মো: আশেকুর রহমান সুজন বলেন. তদন্তকারী কর্মকর্তার দাখিলী তদন্ত রিপোর্টের বিরুদ্ধে বাদী বিজ্ঞ আদালতে নারাজির আবেদন করলে রোববার শুনানী শেষে আদালত বাদীনির নারাজির আবেদন গ্রহণ করে উপস্থিত ইউপি চেয়ারম্যান ফিরোজ আহম্মেদ রিজু ও সদস্য মোস্তফা কামাল তোতাকে দোষী সাব্যস্ত করে বাদীনির মামলায় তাদেরকে আসামী হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করে তাদের জামিন আবেদন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ