ঢাকা, মঙ্গলবার 24 July 2018, ৯ শ্রাবণ ১৪২৫, ১০ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

৮০ দিনে ৯৪ কোটি টাকার মাদক উদ্ধার করেছে

স্টাফ রিপোর্টার : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মাদক বিরোধী অভিযান ঘোষাণা করার পর থেকে ৮০ দিনে ৯৪ কোটি টাকার টাকার মাদকদ্রব্য উদ্ধার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) । গত ৪ মে হতে ২১ জুলাই পর্যন্ত মাদক বিরোধী মোট অভিযান চালানো ২ হাজার ৪৮৭ টি। অভিযানে গ্রেফতার ৩ হাজার ২৯৩ জন। গতকাল সোমবার র‌্যাব সদরদপ্তর এ তথ্য জানায়।
র‌্যাব জানায়, চলমান এ অভিযানে মাদক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে ৭ কেজি ৪০৭গ্রাম হেরোইন , ইয়াবা ট্যাবলেট ১৩ লাখ ১৯ হাজার ৫৩৭ পিস, ফেন্সিডিল ১৬ হাজার ৮২৮ বোতল, গাঁজা ১ হাজার ১৩ রেকজি ২০৭ গ্রাম , বিদেশী মদ ৪ হাজার ৭২৯ বোতল, দেশী মদ ৫ লাখ ৭১ হাজার ৪১৭.৭২০ লিটার উদ্ধার করা হয়। আর এসকল মাদকদ্রব্যের বর্তমান বাজার মূল্য প্রায় ৯৪ কোটি টাকা।
মাদকবিরোধী এ অভিযানে মোবাইল কোর্টও পরিচালনা করা হয়েছে। র‌্যাব সদরদপ্তরের দেয়া তথ্য মতে এই ৮০ দিনে মাদক সংক্রান্ত বিষয়ে মোবাইল কোর্ট অভিযান পরিচালনা করা হয় ৭৬৩টি, গ্রেফতার করা হয় ৬ হাজার ৮৭৮ জনকে , বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড দেয়া হয় ৫ হাজার ৮৭৫ জনকে, অর্থদন্ড দেয়া হয় ১ হাজার ৩ জনকে, জরিমানা অর্থের পরিমাণ ৩৯ লক্ষ ৫৫ হাজার ১০০ টাকা। এদের মধ্যে মাদক ব্যবাসায়ী ১হাজার ৩ জন আর মাদক সেবী ৫ হাজার ৮৭৫ জন।
বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড প্রাপ্তরাদের মধ্যে ৩ হাজার ২১৩ জনকে ৭ দিন, ১ হাজার ১৫৭ জনকে ১৫ দিন, ৫৭৬ জনকে ১ মাস, ১৯৯ জনকে ২ মাস, ১৫২ জনকে ৩ মাস, ১৮ জনকে ৪ মাস, ৮ জনকে ৫ মাস, ৪৫৪ জনকে ৬ মাস, ৪ জনকে ৭ মাস, ১৯ জনকে ৯ মাস, ১ জনকে ১০ মাস, ৬৬ জনকে ১ বছর, ২ জনকে ১ বছর ৫ মাস, ১ জনকে ১ বছর ৬ মাস, ৫ জনকে ২ বছর।
র‌্যবের গণমাধ্যম শাখার সিনিয়র এএসপি মিজানুর রহমান জানান, দেশের অভ্যন্তরীণ সন্ত্রাস দমনের উদ্দেশে ২০০৪ সালের ২৬ মার্চ র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) গঠিত হয়। ওই বছরের ১৪ এপ্রিল কার্যক্রম শুরুর মধ্য দিয়ে আজ পর্যন্ত দেশের অভ্যন্তরে সাফল্যের সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে র‌্যাব। দীর্ঘ এ ১৪ বছরে চাঞ্চল্যকর বিভিন্ন মামলা ও খুনের ঘটনার রহস্য উদঘাটনের পাশাপাশি জঙ্গি দমনে সুনাম অর্জন করেছে। তিনি বলেন, সামনে দিনগুলোতে আরও বেশি সফলতা ও এলিট ফোর্স হিসেবে অর্জিত স্বকীয়তা ধরে রাখা এবং সাধারণ মানুষের প্রত্যাশা ও আস্থার প্রতিদান দেয়ার অঙ্গিকারে কাজ করে যাচ্ছে র‌্যাব।
র‌্যাব কর্মকর্তারা জানান, বিগত ১৪ বছরে র‌্যাবের সক্ষমতা বেড়েছে অনেক। জঙ্গি দমন ছাড়াও নাশকতা প্রতিরোধসহ দেশের আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে অপরিহার্য হয়ে পড়েছে পুলিশের এ সংস্থাটি।
মানব পাচাররোধ, সন্ত্রাস ও মাদকবিরোধী অভিযানে ভূমিকা পালন করে র‌্যাব ইতোমধ্যে সাধারণ মানুষের মনেও আস্থার প্রতীক হিসেবে পরিগণিত হয়েছে। আর র‌্যাব তাদের মাদক বিরোধী অভিযানেই সীমাবদ্ধ না রেখে এখন প্রচারের মাধ্যমেও তারা সমাজ থেকে মাদক নিমূলে নিরালস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে।
গুরুত্বপূর্ণ ও চাঞ্চল্যকর বিষয়গুলো নিয়ে কাজ করার জন্যই বিশেষভাবে র‌্যাবকে এলিট ফোর্স হিসেবেই গঠন করা হয়েছে। র‌্যাব গঠনের পর থেকেই জঙ্গি ও শীর্ষ সন্ত্রাসী দমন, মাদকবিরোধী অভিযানসহ বড় বড় অপারেশন পরিচালনা করছে র‌্যাব। আর ধারাবাহিকভাবে এগুলো নিয়েই কাজ করতে হচ্ছে র‌্যাবকে।
এদিকে গত ১৪ বছর ৩ মাস ২৯দিনে সারাদেশে মাদকের বিরুদ্ধে পরিচালিত অভিযানে র‌্যাবের সাফল্যের বিষয় এক অবিস্মরণীয় ঘটনা। এদিন পর্যন্ত মাদক সংক্রান্ত গ্রেফতার ৭৬ হাজার ৬১১ জন।
এ সময় তাদের কাছ থেকে হেরোইন ৫০৮.৯৭২ কেজি, ফেন্সিডিল ৩০ লাখ ৯৬ হাজার ১৯৪ বোতল, ইয়াবা ট্যাবলেট ২ কোটি ৬৮ লাখ ৩ হাজার ৫৮৯ পিস, বিদেশী মদ ১ লাখ ৬৮ হাজার ২০০ বোতল, দেশী মদ ৪৮ লাখ ৮৭ হাজার ৮০৩ লিটার, গাঁজা ৭৭ হাজার ১১২.৪৮৭ কেজি, বিয়ার ৩ লাখ ৮৯ হাজার ৭৫৬ ক্যান, কোকেন ২৯.৭৯৯ কেজি, আফিম ৩৩.৭৭৯ কেজি, ভায়াগ্রা ট্যাবলেট ৭৬ লাখ ৬৮ হাজার ৯৪৪টি, আইসপিল ট্যাবলেট ৫ হাজার ৯২টি, নেশা জাতীয় ইনজেকশন ৭৯ লাখ ৪৪ হাজার ৬৪৫টি, সেনেগ্রা ট্যাবলেট ২ লাখ ৮০ হাজার ৬০৯টি উদ্ধার করা হয়। যার আনুমানিক বাজার মূল্য প্রায় ২ হাজার ২ শত ৫৩ কোটি ২৯ লক্ষ টাকা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ