ঢাকা, মঙ্গলবার 24 July 2018, ৯ শ্রাবণ ১৪২৫, ১০ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ক্যান্সার প্রতিরোধে জনসচেতনা গড়ে তুলতে হবে

বাংলাদেশের মোট ক্যান্সর রোগীর প্রায় ৩৫ শতাংশ নাক, কান ও গলার (হেড-লেক) ক্যান্সারে আক্রান্ত। তামাক সেবনে, ধূমপান, মদ্যপান, অতিরিক্ত মসলাযুক্ত খাবার, প্রিজারভেটিভ ফুড পরিহার করার মাধ্যমে এ ধরনের ক্যান্সার অনেকটাই প্রতিরোধ করা সম্ভব।
শুরুতে চিহ্নিত হলে এ ক্যান্সার নিরাময়যোগ্য। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশেও এ ধরনের ক্যান্সার প্রতিরোধে ব্যাপক জনসচেতনতা গড়ে তুলতে হবে।
বিশ্ব হেড-নেক ক্যান্সার দিবস উপলক্ষে গতকাল সোমবার বিকেলে ঢাকার তেজগাঁওয়ে অবস্থিত ইমপালস হাসপাতালের সেমিনার হলে অনুষ্ঠিত এক আলোচনা সভায় বিশেষজ্ঞরা এসব তথ্য তুলে ধরেন।
হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রফেসর ডা. জহীর আল আমনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান আলোচক ছিলেন সিনিয়র কনসালটেন্ট ড. ওমর আজিজ আহম্মেদ।
হাসপাতালের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. ওয়াদুদ আলী খানের পরিচালনায় সভায় উপস্থিত ছিলেন হাসপাতালের ডাক্তার, নার্স ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ।
বক্তারা বলেন, বর্তমানে দেশে প্রতি তিনজন ক্যান্সার রোগীর মধ্যে একজন রোগী হেড-নেক ক্যান্সারে আক্রান্ত হন। ধূমপান, পান-সুপারি, জর্দাসহ মাদক গ্রহণের ফলে এ রোগ বেশি হচ্ছে। তাই আমাদের সকলের উচিত এই ঘাতক ব্যাধি নিরাময়ে জনসচেতনতা গড়ে তোলা। তারা বলেন, ক্ষুধামন্দা, রক্তশূন্যতা, অবসাদ ক্যান্সারের প্রাথমিক লক্ষণ। অথবা শরীরে নতুন কোনো সমস্যা, এ রকম হলে দ্রুত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া উচিত।
কাজেই তামাক পরিবাহর, পান-সুপারি, জর্দা-গুল পরিহার এবং মদ্যপান থেকে দূরে থাকার ব্যাপারে বিশেষজ্ঞরা গুরুত্বারোপ করেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ