ঢাকা, মঙ্গলবার 24 July 2018, ৯ শ্রাবণ ১৪২৫, ১০ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশন চট্টগ্রাম মহানগরীর উদ্যোগে ট্রেড ইউনিয়ন কর্মশালা

বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশন, চট্টগ্রাম মহানগরীর উদ্যোগে ট্রেড ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দের প্রশিক্ষণ কর্মশালা সম্পন্ন হয়েছে। নগরীর স্থানীয় এক মিলনায়তনে আয়োজিত এই কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শ্রমিক কল্যাণ ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ও চট্টগ্রাম মহানগর সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আবু তাহের খান। প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় ট্রেড ইউনিয়ন সম্পাদক ও মহানগর সেক্রেটারি এস এম লুৎফর রহমান। মহানগর এসিসট্যান্ট সেক্রেটারি মকবুল আহমদের সভাপতিত্বে ও মহানগর ট্রেড ইউনিয়ন সম্পাদক মীর হোসাইনের সঞ্চালনায় কর্মশালায় অতিথি হিসেবে আরও উপস্থিত ছিলেন শ্রমিক নেতা মুহাম্মদ ন্রুুন্নবী, আসাদুল্লাহ আদিল, স ম শামীম ও ইউনুছ আলী লিটন প্রমুখ। প্রশিক্ষণ কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেন বক্সিরহাট টেরিবাজার দোকান কর্মচারী কল্যাণ সমিতি ( রেজি১৬৫৯) এর সভাপতি আবুল হাসেম সেক্রেটারী রাশেদ সাইফুল্লাহ, রিয়াউদ্দিন বাজার তামাকুমন্ডি লেইন দোকান কর্মচারী ইউনিয়ন রেজিঃ নং ১৪২৯ এর সভাপতি আব্দুল কাদের, সেক্রেটারি সেলিম রেজা, আন্দরকিল্লা দোকান কর্মচারী ইউনিয়ন রেজিঃ নং ১৯৩৭ এর সভাপতি জাহিদুল ইসলাম তুহিন সেক্রেটারি কামরুল ইসলাম, মিউনিসিপ্যাল মডেল হাইস্কুল মার্কেট দোকান কর্মচারী ইউনিয়ন রেজিঃ নং ২১২৫ এর সভাপতি ফরিদুল আলম সেক্রেটারি মোহাম্মদ রফিক, রেয়াজউদ্দিন বাজার হর্কাস কল্যাণ সমিতি রেজি নং ১৪৭১ এর সভাপতি মাইনুদ্দিন সোহেল সেক্রেটারি মোঃ মামুন, আতুরার ডিপু দোকান কর্মচারী ইউনিয়ন রেজিঃ নং ২০৮৪ এর সেক্রেটারী তারিকুল ইসলাম জুয়েল, জহুর হকার্স মার্কেট কর্মচারী কল্যাণ ইউনিয়ন রেজিঃ নং ২২৬৬ এর সভাপতি জাফর আলম, সেক্রেটারী আরিফুল ইসলাম, চকবাজার দোকান কর্মচারী কল্যাণ ইউনিয়ন রেজিঃ নং ১৮৯০ এর সভাপতি ফরিদুল আলম, আন্দরকিল্লাহ ওয়ার্ড সভাপতি রেজাউল করিম মুরাদসসহ ট্রেড ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দ ও প্রতিনিধিরা।
প্রধান অতিথি আবু তাহের খান ট্রেড ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দের উদ্দেশ্যে বলেন, শ্রমিকদের ন্যায্য অধিকার আদায়ের জন্য ট্রেড ইয়নিয়নগুলোকে কার্যকর ভূমিকা রাখতে হবে। শ্রমিক আন্দোলনের নামে নৈরাজ্য সৃষ্টি কিংবা মালিক-শ্রমিক দ্বন্দ্ব তৈরির হুজুগ যেন ট্রেড ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দকে প্রভাবিত না করে। বরং শ্রমিকদের অধিকার আদায়ে নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলন, মালিকপক্ষের সাথে আলাপ-আলোচনা করে সমস্যার সমাধান এবং প্রয়োজনে দর কষাকষি ও চাপ সৃষ্টি করতে হবে। মালিক শ্রমিক ভাই-ভাই নীতির মাধ্যমে ইনসাফভিত্তিক ইসলামী শ্রমনীতি বাস্তবায়ন করতে পারলেই একটি সুন্দর দেশ, সমৃদ্ধ অর্থনীতি ও শ্রমিকবান্ধব সমাজ প্রতিষ্ঠা সম্ভব। আর সে লক্ষ্যেই ট্রেড ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দকে কাজ করতে হবে।
প্রধান বক্তার বক্তব্যে এস এম লুৎফর রহমান বলেন, মজবুত শ্রমিক আন্দোলনের জন্য মজবুত ট্রেড ইউনিয়নের বিকল্প নেই। প্রশিক্ষিত নেতৃত্ব, ট্রেড ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দের নিঃস্বার্থ জনদরদী ভূমিকা ও সাহসী পথচলা-ই অসহায় খেটে খাওয়া শ্রমিকদের মুখে হাসি ফোটাতে পারে। আইএলও কনভেনশন ও জাতীয় শ্রমআইন সম্পর্কে ট্রেড ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দকে মোটামুটি জানাশোনা রাখার উপর জোর দেন তিনি। অবাধ ট্রেড ইউনিয়ন করার অধিকার নিশ্চিত করতে এবং বাধাদানকারীদের যথাযথ আইনের আওতায় আনতে শ্রম অধিদপ্তরের প্রতি আহ্বান জানান প্রধান বক্তা। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ