ঢাকা, বুধবার 25 July 2018,১০ শ্রাবণ ১৪২৫, ১১ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

চাকুরী হারিয়ে মানবেতর জীবনযাপন

মো: আফজাল হোসেন ফুলবাড়ী (দিনাজপুর): বড়পুকুরিয়া কয়লা খনিতে চীনা কোম্পানীতে চাকুরীরত অবস্থায় রতন চাকুরী হারিয়ে বর্তমানে মানবেতর জীবন-যাপন করছেন। খনির উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট আবেদন করেও চীনা কোম্পানীর চাকুরীটি ফিরে পাননি। অবশেষে পরিবার পরিজন নিয়ে জাহিদুল ইসলাম (রতন) মানবেতর জীবন-যাপন করছে। দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর উপজেলার দক্ষিন রসুলপুর গ্রামের মো: জাবেদ আলীর পুত্র মো: জাহিদুল ইসলাম (রতন) এর অভিযোগে জানাযায় ১৯৯৯ সালে চীনা কোম্পানীর এক্সএমসি'তে লোকমোটিভ ড্রাইভার পদে কর্মরত ছিলেন। কিন্তু চীনা কোম্পানীতে চাকুরী করা অবস্থায় ২০১১ সালে হঠাৎ করে অসুস্থ হয়ে পড়েন। তার পরিবার অনেক কষ্টে বিভিন্ন জায়গায় সাহায্যের জন্য হাত বাড়িয়ে অর্থ জোগাড় করে প্রথমে ইউনাইট্রেট হাসপাতাল ঢাকাতে চিকিৎসা করেন। ঐ হাসপাতালের চিকিৎসকেরা জানান তার একটি ভাল্ব নষ্ট হয়ে গেছে, উন্নত চিকিৎসা না করলে তাকে বাঁচানো সম্ভব হবে না। চিকিৎসারত অবস্থায় তার শরীরের একটি ভাল্ব অকেজো হয়ে যাওয়ায় চীনা কোম্পানীতে আর চাকুরী করা সম্ভব হয়নি। তিনি চিকিৎসার জন্য অবশেষে টাকা পয়সা জোগাড় করে ভারতে উন্নত চিকিৎসা করার জন্য চলে যান।
উল্লেখ্য যে মো: জাহিদুল ইসলাম (রতন) যার কার্ড নং- ১৪০ গ্রুপ- ণঝ লোকমোটিভ ড্রাইভার ও বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি।
গত ০৯/০২/২০১১ ইং তারিখে চিকিৎসার জন্য ৩ মাসের ছুটির জন্য ব্যবস্থাপনা পরিচালক এক্স, এম, সি বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানী লিমিটেড এর নিকট অসুস্থতার সকল কাগজ পত্র জমা দিয়ে ছুটির জন্য আবেদন করেছিলেন।
১৯৯৯ সাল হতে মার্চ ২০১১ তারিখ পর্যন্ত চীনা কোম্পানীর লোকমোটিভ ড্রাইভার পদে কর্মরত ছিলেন। কিন্তু চীনা কোম্পানী তাকে অসুস্থতার কারনে চাকুরী হতে বিরত রাখেন।  চিকিৎসা শেষে ফিরে এসে জীবিকার তাগিদে খনির ভূ-গর্ভে চাকুরী করার মত শারীরিক অবস্থা ভালো ছিলো না। সেই কারনে খনির সার ফেজে চাকুরীর জন্য আবেদন করে।
এ ব্যাপারে মো: জাহিদুল ইসলাম (রতন) প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রীর আশু হস্থক্ষেপ কামনা করেছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ