ঢাকা, শুক্রবার 27 July 2018,১২ শ্রাবণ ১৪২৫, ১৩ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

রূপসায় দারোগার সামনে ‘বাবা’ শব্দ উচ্চারণে তুলকালাম

খুলনা অফিস : খুলনার রূপসায় এক বাবাখোর (ইয়াবা) দারোগার সামনে ‘বাবা’ শব্দ উচ্চারণ করায় তুলকালাম কান্ড ঘটেছে। উক্ত দারোগার হাতে নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়ে হাসপাতালে মৃত্যু যন্ত্রণায় ছটফট করছে আবু বক্কার নামের এক যুবক। ঘটনাটি ঘটেছে গত মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে উপজেলার বহুল আলোচিত মাদকের আখড়া নামে খ্যাত পূর্ব-রূপসা গণ-কবরস্থান সড়কের মাদক স¤্রাজ্ঞী জেসমিনের বাড়ির সন্নিকটে। এদিকে ঘটনাটি ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার জন্য উক্ত দারোগা নিজেকে র‌্যাব-৬ এর পরিচয় দিয়ে মোবাইল ছিনতাই এর নাটক সাজানোর চেষ্টা করছে বলে জানা গেছে।

এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, এক সময় রূপসা থানায় কর্মরত বহুল আলোচিত এস আই খলিল বর্তমানে গোপালগঞ্জে কর্মরত আছেন। শ্বশুর বাড়ি রূপসা উপজেলা সদরে হওয়ার সুবাদে তিনি প্রায়ই এ এলাকায় আসেন। মাদক সেবনের কারণে এলাকার মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে তার দহরম মহরমের বিষয়টি এলাকায় ওপেন সিক্রেট। 

গত মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে তিনি পূর্ব-রূপসা বাজার সংলগ্ন গণ-কবরস্থান সড়কে বহুল আলোচিত জেসমিনের মাদকের আখড়া থেকে বেসামাল অবস্থায় বের হন। একই সময় স্থানীয় যুবক আবু বক্কার তার অসুস্থ পিতা ইব্রাহীমের ওষুধ আনার জন্য ওই রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় মোবাইলে কথা বলছিলেন। এ সময় বেসামাল এস আই খলিল তাকে হুঙ্কার দিয়ে রাস্তা থেকে সরতে বলেন। বক্কার সরতে গিয়ে পা পিছলে যাওয়ায় তার মুখ থেকে ও..বাবা.. শব্দটি বের হয়। এতে এস আই খলিল ক্ষুব্ধ হয়ে তার হাত থেকে মোবাইলটি কেড়ে নেয় এবং নানা হুমকি ধামকি দিতে থাকে। 

এ নিয়ে দুইজনের মধ্যে হাতাহাতির এক পর্যায়ে এস আই খলিল মুখে আঘাত পেয়ে রক্ত বের হয়। এতে খলিল আরও ক্ষিপ্ত হয়ে বক্কারের ওপর চড়াও হয়ে নির্মম নির্যাতন চালায়। তার চোখ মুখসহ শরীরের বিভিন্ন স্থান রক্তাক্ত জখম হয়। স্থানীয়রা আহত বক্কারকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। 

আহত বক্কারের পিতা বলেন, আমার ছেলে এ্যাকোয়ারের ভিতর জেসমিনের বাড়ির সামনে থেকে আসছিল। তখন খলিলের হুঙ্কারে অন্ধকারে এক সাইডে পড়ে যায়। এ সময় আমার ছেলের মুখ দিয়ে ‘ওরে বাবা’ শব্দটি বেরিয়ে যায়। এতে করে দারোগা খলিল মনে করে তাকে ‘বাবা’ বলেছে, কারণ সে ইয়াবা সেবন করে একথা এলাকার সবাই জানে। এ ঘটনা নিয়ে আমার ছেলে আবু বক্কারকে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করেছে। এ ঘটনায় তিনি বাদী হয়ে রূপসা থানায় গত বুধবার এসআই খলিল, মাদক স¤্রাজ্ঞী জেসমিন ও তার স্বামী সুমন ও রাসেলের নামে অভিযোগ দায়ের করেছেন। 

এ ব্যাপারে খলিলের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে তাকে পাওয়া যায়নি। রূপসা থানার ওসি তদন্ত আব্দুর রহমান বিশ্বাস বলেন, ঘটনাটি আমরা শুনেছি, তবে কোন লিখিত অভিযোগ পাইনি। এদিকে ঘটনাটিকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করবার জন্য এস আই খলিল নিজেকে র‌্যাব-৬ এর পরিচয় দিয়ে মোবাইল ছিনতাই এর নাটক সাজাচ্ছে। ঘটনাটি তদন্ত পূর্বক দোষী ব্যক্তির শাস্তি দাবি করেছেন এলাকাবাসী।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ