ঢাকা, শুক্রবার 27 July 2018,১২ শ্রাবণ ১৪২৫, ১৩ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সুন্দরবনের গাছ পাচারের দায়ে বন কর্মকর্তা শাহাদাৎ বরখাস্ত

 

খুলনা অফিস : গাছ পাচারের অভিযোগে পূর্ব সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জের মরাপশুর টহল ফাঁড়ির অফিস ইনচার্জ মো. শাহাদাৎ হোসেনকে বরখাস্ত করা হয়েছে। সুন্দরবন পূর্ব বনবিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. মাহমুদুল হাসান স্বাক্ষরিত এক আদেশে তাকে বরখাস্ত করা হয়। 

জানা যায়, গত ১৪ জুলাই রাতে মরা পশুর ফরেস্ট অফিস সংলগ্ন বড় পদ্মাপতি খালের পাড়ে ৮৪ পিস সুন্দরী ও পশুর লগ গাছ কেটে মজুদ করে  চোরাকারবারীরা। মরাপশুর অফিসের ইনচার্জ মো. শাহাদাৎ-এর সহযোগিতায় তা থেকে ৪৪ পিস সুন্দরী ও পশুর গাছ চোরাকারবারীরা পাচার করতে পারলেও ৪০ পিচ গাছ ওখানে রয়ে যায়। গাছ কাটার একদিন পর এ খবর এসিএফ শাহিন কবিরের কানে আসে। এদিকে চাঁদপাই রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. শাহিন কবির (এসিএফ)’র অভিযানের তোড় জোড় দেখে তড়িঘড়ি করে ৪০ পিস গাছ ওইদিন রাতে মরাপশুর অফিস খালে এনে ডুবিয়ে রাখে ওসি শাহাদাৎ। ১৭ জুলাই রাতে রেঞ্জ কর্মকর্তা গোপনে খবর পেয়ে লোক দিয়ে ডুবন্ত ওই ৪০ পিস গাছ উদ্ধার করে। যার পরিমাণ প্রায় সাড়ে ৬শ’ ঘনফুট। এছাড়াও ১৮ জুলাই সকালে বড় পদ্মাপতি খালের পাড়ে তল্লাশী চালিয়ে ৮৪টি বড় বড় সুন্দরী ও পশুর গাছ কাটার মের চিহ্নিত করে এ কর্মকর্তা। সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. শাহিন কবির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

পূর্ব বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. মাহমুদুল হাসান জানান, ১৭ জুলাই ফাড়ির ইনচার্জ মো. শাহাদাৎ হোসেনের বিরুদ্ধে সুন্দরবনের ৮৪টি গাছ কর্তন করে পাচারের অভিযোগ ওঠে। অভিযোগের প্রেক্ষিতে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে তার বিরুদ্ধে গাছ পাচারের অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়। এ কারণে তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানান এ কর্মকর্তা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ