ঢাকা, শনিবার 28 July 2018,১৩ শ্রাবণ ১৪২৫, ১৪ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

যাত্রী সংকটে দু’টি হজ ফ্লাইট বাতিল

স্টাফ রিপোর্টার: যাত্রী সংকটের কারণে দু’টি হজ ফ্লাইট বাতিল করেছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। এর মধ্যে বিজি ১০৪৫ ফ্লাইট ছেড়ে যাওয়ার কথা ছিল গতকাল শুক্রবার সকাল ৬টা ৫মিনিটে। আর বিজি ৭০৪৫ ছাড়ার নির্ধারিত সময় ছিল সন্ধ্যা ৬টা ৫ মিনিটে। এই দুই ফ্লাইটে সৌদি আরবে পৌঁছাতে পারতেন আট শতাধিক হজযাত্রী।
বিমানের জনসংযোগ শাখার জিএম শাকিল মেরাজ বলেন, আসন সংখ্যার তুলনায় অনেক কম টিকিট বিক্রি হওয়ায় হজ ফ্লাইট দুটি বাতিল করা হয়েছে। ওই ফ্লাইটের যাত্রীদের অন্য ফ্লাইটের সঙ্গে সমন্বয় করে পাঠানো হবে।
তবে ফ্লাইট বাতিল হলেও হজ অফিস বলছে এবারের যাত্রায় এর কোনো প্রভাব পড়বেনা। আগামী ১৫ আগস্টের মধ্যে সকল হজযাত্রীই নির্বিঘেœই সৌদি আরব পৌঁছতে পারবেন। তবে এজেন্সীগুলো মনে করছে, গতবারের মতো এবারও ১৫ শতাংশ রিপ্লেসমেন্টের প্রয়োজন। অন্যথায় কোটা থেকে প্রায় ৮ হাজার হজযাত্রী কম যাবে।
পবিত্র হজব্রত পালনের জন্য এবার ১ লাখ ২৬ হাজার ৭৯৮ জন যাত্রীর মধ্যে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ১৫৪ টি ফ্লাইটে সৌদি আরব যাচ্ছেন ৫৫ হাজার ৭২৪জন হজ প্রত্যাশী।
গেল কয়েক বারের চেয়ে এবারের হজযাত্রা অনেকটা নির্বিঘœ মনে করা হলেও যাত্রার ১৪তম দিনে এসে যাত্রী সংকটের কারনে বাতিল হলো দুটো হজ ফ্লাইট। যা সামনের দিনগুলোতে নতুন করে শংকা তৈরী করছে। তবে ফ্লাইট বাতিলের এ ঘটনায় শঙ্কিত নয় হজ অফিস।
হজ অফিসের পরিচালক সাইফুল ইসলাম বলেন, যে দুটো ফ্লাইটকে অ্যাডজাস্ট করা হয়েছে, বাতিল বলব না; মূলত একটি ফ্লাইট যায়নি, এভাবে চিন্তা করতে পারি। দুটো ফ্লাইটের যাত্রীকে এক করা হয়েছে। এ দুটো স্লট আমাদের হাতে থেকে গেল, যদি কখনো প্রয়োজন পড়ে আমরা ১৫ তারিখের মধ্যে সৌদি সিভিল অ্যাভিয়েশন অথরিটির সঙ্গে কথা বলে আবারো অ্যারেঞ্জ করে নিয়ে যেতে পারব।
বারবার তাগিদ দেওয়া সত্ত্বেও এজেন্সিগুলো নিজেদের যাত্রীদের হজ ব্যবস্থাপনায় যে গাফিলতি করছে তার দায় কে নেবে এমন প্রশ্নে হজ এজেন্সিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (হাব) মহাসচিব শাহাদাত হোসেন তসলিম বলেন, মূল বিষয় হচ্ছে এজেন্সিগুলো যাত্রীদের জন্য ভিসা সংগ্রহ করছে কিনা। এ বছর থেকে যদি ভিসা সংগৃহীত হয় কোনো হজ যাত্রী টিকেটের জন্য সৌদি আরব যাবেন না এমনটি হবে না। যদি টিকেটের কোনো দায়িত্ব নেওয়ার প্রয়োজন থাকে সেটা হাব দেখবে। সব সংকট কাটিয়ে ১৫ই আগস্টের মধ্যে হজ প্রত্যাশী যাত্রীরা সৌদি আরব পৌঁছাবেন এমন প্রত্যাশা সংশ্লিষ্টদের।
গতবছর ভিসা জটিলতায় যাত্রী না পেয়ে ২৪টি হজ ফ্লাইট বাতিল করতে বাধ্য হয়েছিল বিমান। তাতে ৪০ কোটি টাকার রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হয় রাষ্ট্রায়ত্ত এই বিমান পরিবহন সংস্থা। ওই জটিলতা এড়াতে সরকার এবার ভিসা হওয়ার আগেই সব এজেন্সিকে নিজ নিজ যাত্রীদের টিকিট বিমান সংগ্রহ করতে বলেছিল।
কিন্তু বেশ কিছু এজেন্সি এখনও তাদের হজযাত্রীদের জন্য সৌদি আরবে বাসা ভাড়া করতে না পারায় সেসব এজেন্সি টিকিট সংগ্রহ করেনি। ফলে বিমানের হজ ফ্লাইটের প্রায় আট  হাজার টিকেট এখনও অবিক্রিত পড়ে আছে।
এদিকে বাংলাদেশে হজ্জযাত্রী ও হাজী কল্যাণ পরিষদ বলছে, হজের জন্য প্রাক নিবন্ধন করা হয়েছে প্রায় দেড় বছর আগে। নিবন্ধিত হওয়ার পরও শারীরিক বা আর্থিক সমস্যা কিংবা অন্য কারণে অনেকে হজে যেতে পারছেন না। আবার সরকার হজযাত্রী প্রতিস্থাপনের সীমা বেঁধে দেয়ায় সেই শূন্যস্থান পূরণ হচ্ছে না। টিকেট অবিক্রিত থাকার এটাও একটা কারণ। 
যারা যেতে পারছেন না, তাদের পরিবর্তে অপেক্ষামান তালিকা থেকে হজে পাঠাতে ১৫ শতাংশ নাম প্রতিস্থাপন করার সুযোগ চেয়েছে সংগঠনটি।
মৃত্যু বা গুরুতর অসুস্থতার মতো অনিবার্য কারণে কোনো নিবন্ধিত হজযাত্রী যেতে না পারলে তার বদলে অন্য কোনো নিবন্ধিত ব্যক্তিকে হজে পাঠানোর সুযোগ দেয়া হয় এজেন্সিগুলোকে। সেজন্য চিকিৎসকের সনদ ও অঙ্গীকারনামাসহ নির্ধারিত সময়ের মধ্যে আবেদন করতে হয়।
প্রত্যেক এজেন্সি তাদের মোট হজযাত্রীর মধ্যে সর্বোচ্চ আট শতাংশকে ওই নিয়ম মেনে প্রতিস্থাপন করতে পারে। এবার প্রতিস্থাপানের আবেদনের শেষ তারিখ ছিল ২৪ জুলাই। কল্যাণ পরিষদের সভাপতি আব্দুল্লাহ আল নাসের গতকাল শুক্রবার সকালে তোপখানা রোডের মেট্রোপলিটন হোটেলে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, বিভিন্ন কারণে প্রায় ১৮ হাজার নিবন্ধিত ব্যক্তি এবার হজে যেতে পারছেন না। ৮ শতাংশ রিপ্লেসমেন্ট করলেও আরও ৮ হাজার ঘাটতি থাকে। এক্ষেত্রে ১৫ শতাংশ রিপ্লেসমেন্ট করলে কোটা পূরণ সম্ভব।
তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত প্রাক-নিবন্ধন করেছেন ১ লাখ ৬৪ হাজার ৪০৮ জন। কিন্তু ২০১৯ সালেও বাংলাদেশ থেকে এবারের মতই হজযাত্রী সৌদি যাওয়ার সুযোগ পাবেন।
তাই সরকারের কাছে কোটা খালি না রেখে অপেক্ষামানদের মধ্যে থেকে ১৫ শতাংশ প্রতিস্থাপনের সুযোগ দিয়ে কোটা পূরণের দাবি জানান বাংলাদেশে হজ্জযাত্রী ও হাজী কল্যাণ পরিষদ। সংগঠনের সহ-সভাপতি মাওলানা তাজুল ইসলাম আশরাফীসহ নেতৃবৃন্দ এ সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ