ঢাকা, সোমবার 30 July 2018, ১৫ শ্রাবণ ১৪২৫, ১৬ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

টেলিফোনে লাভ নেই খালেদা জিয়া মুক্ত হলেই নির্বাচন -ড. মোশাররফ

স্টাফ রিপোর্টার: বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিপদে আছেন। কাদের সাহেব টেলিফোন করেন কিংবা বাড়িতে যান কোন লাভ নেই। আগামী নির্বাচন নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে হতে হবে। সংসদ ভেঙে দিতে হবে। সামরিক বাহিনীকে নির্বাচনের সময় আনতে হবে। প্রথম শর্ত হবে খালেদা জিয়ার মুক্তি।
গতকাল রোববার জাতীয় প্রেস ক্লাবে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী নাগরিক দল আয়োজিত এক প্রতিবাদ সভায় তিনি এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী নাগরিক দলের সভাপতি শাহজাদা  সৈয়দ মোহাম্মদ ওমর ফারুকের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সাবেক সংসদ সদস্য কর্নেল (অব.) আনোয়ারুল আজিম। বীর মুক্তিযোদ্ধা মেহেদী আহমেদ রুমি, বিএনপি নেতা মশিউর রহমান, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী নাগরিক দলের সাধারণ সম্পাদক জাবেদ ইকবাল,  এডভোকেট নিপুন রায়, শিক্ষককর্মচারী ঐক্যজোটের মহাপরিচালক সেলিম ভূঁইয়া প্রমুখ।
 মোশাররফ বলেন, জনগণের আজকের ভোটের প্রতি যে অনাস্থা সৃষ্টি হয়েছে, সে আস্থা ফিরিয়ে আনতে নির্বাচনকালে কিছু দিনের জন্য হলেও সেনাবাহিনী মোতায়েন করতে হবে। অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের জন্য এর বাইরে আর কোন কথা নেই।
তিনি বলেন, এবারে সংগ্রাম জনগণের ভোটের অধিকারের সংগ্রাম, জনগণের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রাম। এবার আর ২০১৪ সালের নির্বাচন হতে দেবে না জনগণ, তারা রাস্তায় নামবে আমরা তাদের পাশে থাকবো।
বিএনপির এ নেতা বলেন, ২০১৪ সালে প্রমাণ হয়েছে, বিএনপি যে নির্বাচনে যায় না, খালেদা জিয়া যে নির্বাচনে যায় না- সে নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হয় না। অর্থাৎ এই সরকারের অধীনে কোন সুষ্ঠু নির্বাচন হতে পারে না।
তিনি বলেন, সংসদ রেখে আরেকটি সংসদ নির্বাচন কোন গণতান্ত্রিক দেশে নাই, তাই সংসদ ভেঙে আগামী নির্বাচন হতে হবে।
সাবেক এই সংসদ সদস্য বলেন, কোন  স্বৈরাচারী নিজ থেকে ক্ষমতা থেকে সরে যায় না। আজকে আমাদের দেশকে জনগণকে বাঁচাতে আন্দোলনের কোন বিকল্প নাই।
তিনি বলেন, খালেদা জিয়াকে জেলে রেখে অনেকে ভেবে ছিল আমাদের দল বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবে, বিভিন্ন দলে উপদলে বিভক্ত হয়ে যাবে, সরকারও তাই ভেবে ছিল। কিন্তু আমারা সিনিয়র নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধভাবে দলকে সংগঠিত করেছি, আরো শক্তিশালী করেছি।
বিগত ১০ বছরে সরকার আমাদের যে পরিমাণ নিপীড়ন দমন করেছে, আমরা কি সরকারের কাছে মাথা নথ করেছি? মাথা নত নয় আন্দোলন করেই তা আদায় করতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ