ঢাকা, সোমবার 30 July 2018, ১৫ শ্রাবণ ১৪২৫, ১৬ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সরাইলে ফলদ বৃক্ষমেলা উদ্বোধন

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সংবাদদাতা : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে “অপ্রতিরোধ্য দেশের অগ্রযাত্রা ফলের পুষ্টি যোগাবে নতুনমাত্রা” শ্লোগানকে সামনে রেখে তিনদিনব্যাপী ফলদ বৃক্ষমেলা শুরু হয়েছে।
গতকাল রোববার সকালে উপজেলা পরিষদ চত্বরে প্রধান অতিথি হিসেবে তিনদিনব্যাপী মেলার উদ্বোধন করেন স্থানীয় সাংসদ জিয়াউল হক মৃধা।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর আয়োজিত মেলায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুর রহমান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে ইসরাত, সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইকবাল হোসেন, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জাহিরুল ইসলাম সরকার, সদর ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল জব্বার প্রমুখ। মেলায় বিভিন্ন ফলদ বৃক্ষের ১২ টি স্টল স্থান পেয়েছে।
আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের উদ্বোধন
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল রোববার সকালে উপজেলার নোয়াগাঁও ইউনিয়নের বছিউড়া গ্রামে প্রধান অতিথি হিসেবে আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের উদ্বোধন করেন স্থানীয় সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট জিয়াউল হক মৃধা।
তিনি বছিউড়া গ্রামের দরিদ্র সকিনা বেগম-(৫৫) ও মলিহা বেগম-(৬০) হাতে  ঘরের চাবি তুলে দেয়ার মাধ্যমে এই প্রকল্পের উদ্বোধন করেন।
‘যার জমি আছে ঘর নেই, তার নিজ জমিতে গৃহ নির্মাণ’ এই শ্লোগানকে সামনে রেখে উপজেলা নির্বাহী অফিসার উম্মে ইসরাতের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ সাইফুল ইসলাম, সমাজসেবা কর্মকর্তা মোঃ জহিরুল ইসলাম, সমবায় কর্মকর্তা মোঃ আলমগীর হুসাইন, উপজেলা জাপার সদস্য সচিব মোঃ হুমায়ুন কবির ও সরাইল প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক মোহাম্মদ মাহবুব খান বাবুল।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অ্যাডভোকেট জিয়াউল হক মৃধা এমপি বলেন, দেশের গৃহহীনদের মাথা গোঁজার ঠাই করে দেওয়াই  হচ্ছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মূল লক্ষ্য।
প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের আওতায় বিনা মূল্যে প্রত্যেক ইউনিয়নে ৯টি করে মোট ১৬২টি ঘর দেওয়া হবে। দরিদ্র অসহায় যাদের জায়গা আছে কিন্তু ঘর নেই, অন্যের বাড়িতে বসবাস করেন। এমন লোকজনই পাবেন এই ঘর। প্রতিটি ঘরের নির্মাণ ব্যয় ১ লাখ টাকা। সাথে রয়েছে একটি স্বাস্থ্য সম্মত  টয়লেট।
এদিকে নতুন ঘরের চাবি হাতে পেয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন সকিনা বেগম ও মলিহা বেগম।
তারা বলেন,  প্রধানমন্ত্রী আমাদেরকে মাথা গোঁজার ঠাই করে দিয়েছেন আল্লাহতায়ালা প্রধানমন্ত্রীকে শান্তিতে রাখুক। তারা বলেন, আগে মানুষের বাড়িতে থাকতাম। এখন নিজের ঘরে ঘুমাতে পারবো।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ