ঢাকা, বুধবার 21 November 2018, ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

আসামে নাগরিক তালিকা: 'স্ত্রী-কন্যা বৈধ, কিন্তু বাবা বা স্বামী বাদ

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক:

"এটা কীভাবে সম্ভব যে বাবা বা স্বামী হিসাবে আমি বৈধ নাগরিক হলাম না, অথচ স্ত্রী, কন্যা আর এক পুত্রের নাম নাগরিক পঞ্জীতে উঠল! আবার এক ছেলের নাম আছে, অন্যজন বাদ!" বলছিলেন কাছাড় জেলার শিলকুড়ি এলাকার বাসিন্দা নিরঞ্জন সূত্রধর।

ছয় জনের পরিবার মি. সূত্রধরের। চারজনের নাম আজ তিনি খুঁজে পেয়েছেন জাতীয় নাগরিক পঞ্জীর চূড়ান্ত খসড়ায়। এক ছেলে আর তার নিজের নামও নেই।

অনেকটা একই কাহিনী পাশের জেলা হাইলাকান্দির বন্দুকমারা এলাকার বাসিন্দা মীনারা বেগমের।

তিনি জানালেন, "আমার শ্বশুর আর বাবার দুজনেরই নামই ছিল ১৯৫১ সালের নাগরিক পঞ্জীতে। বাকি যা কাগজ দরকার, সব দিয়েছিলাম। কিন্তু সাতজনের পরিবারের তিনজনের নাম এসেছে, বাকি চারজনের নাম নেই।"

"এক মেয়ের আর এক ছেলের নাম নেই, আমার নিজের নামও নেই। কিন্তু অন্য ছেলে মেয়েদের নাম রয়েছে," বলেন তিনি।

সম্পূর্ণ খসড়া তালিকা থেকে বাদ পড়েছে ৪০ লাখ ৭ হাজার ৭০৮ জনের নাম।

যেসব মানুষের নাম বাদ পড়েছে, তাদের সিংহভাগই বাংলাভাষী মুসলমান বলে মনে করা হচ্ছে, যদিও এ নিয়ে নির্দিষ্ট তথ্য এখনও দেওয়া হয় নি। বাদ পড়েছে অনেক বাঙালী হিন্দুর নামও।

 

তালিকায় পরিবারের সবার নাম খুঁজে পাননি হাবিবুর রহমান লস্কর

অন্যদিকে শিলচর শহরের মধুরবন্দ এলাকার মইনুল হাসানের মতো মানুষ, যারা পরিবারের সব সদস্যের নামই তালিকায় খুঁজে পেয়েছেন, তাদের সংখ্যাটা দুই কোটি ৮৯ লক্ষ।

মি. হাসানের সঙ্গে যে জায়গায় কথা হচ্ছিল, সেখানেই দাঁড়িয়ে ছিলেন যুবক হাবিবুর রহমান লস্কর। তিনি আবার পরিবারের সকলের নাম খুঁজে পেলেন না।

যেমন কাছাড়ের পাশের জেলা হাইলাকান্দির বাঁশধারের বাসিন্দা উজ্জ্বল রায়ও পরিবারের সকলের নাম খুঁজে পান নি।

তারা সকলেই বৈধ ভারতীয় নাগরিকত্বের স্বীকৃতি পেয়েছেন সোমবার সকালে, যখন আসামের রাজধানী গুয়াহাটিতে ভারতের রেজিস্ট্রার জেনারেল শৈলেশ প্রকাশ করলেন জাতীয় নাগরিক পঞ্জীর চূড়ান্ত খসড়া তালিকা।

মি. শৈলেশ আসাম ক্যাডারেরই অফিসার। তিনি আগে ছিলেন আসামের স্বরাষ্ট্র সচিব। নামের সঙ্গে কোনও পদবী ব্যবহার করেন না এই শীর্ষ কর্মকর্তা।

তিনি জানিয়েছেন যে ৩ কোটি ৩০ লক্ষ মানুষের আবেদন যাচাই বাছাইয়ের পরে দুই কোটি ৮৯ লক্ষ মানুষকে বৈধ ভারতীয় নাগরিকের স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে।

যদিও কর্তৃপক্ষ বলছেন, যাদের নাম বাদ পড়েছে, তাদের এখনই অবৈধ বিদেশী বলে চিহ্নিত করা হচ্ছে না, তারা নিজেদের দাবীর স্বপক্ষে প্রমাণ পেশ করার জন্যে আরও একবার সুযোগ পাবেন।

কাছাড় জেলা ছাড়িয়ে গিয়েছিলাম হাইলাকান্দির বন্দুকমারায়। একটি স্কুলে বেশ ভিড় করে নানা গ্রামের নারী পুরুষ দেখতে এসেছেন জাতীয় নাগরিক পঞ্জীতে নিজেদের নাম আছে কী না।

সেখানেই কথা হচ্ছিল বাঁশধার গ্রামের উরজ্জ্ব রায়ের সঙ্গে। তিনি বলছিলেন, পরিবারের ১৩ জন আবেদন করেছিলেন নাগরিকত্বের জন্য, ২ জন তালিকায় ঠাঁই পান নি।

"কেন যে দু'জনের নাম বাদ গেল, সেটাই তো বুঝতে পারছি না। একই নথি জমা দিলাম সবার জন্য, একজনের নাম থাকে, অন্যজনের নাম থাকে না! আবার আসতে বলছে যে কী কারণে নাম বাদ গেল, সেটা জানার জন্য," বলছিলেন মি. রায়।

 

নিরঞ্জন সূত্রধর (বামে): তালিকায় তার এক ছেলের নাম আছে, অন্যজন বাদ

পাশেই দাঁড়িয়ে ছিলেন আব্দুল মান্নান লস্কর। দিনমজুরী করেন। বলছিলেন, "পরিবারের কয়েকজনের নাম বাদ পড়েছে। কেন যে তালিকা থেকে নাম বাদ পড়ল, সেটা জানতে এক দিন কাজ কামাই করে আবারও আসতে হবে।"

সরকার বলছে, যাদের নাম বাদ পড়ল, তাদের চিন্তার কারণ নেই। একমাসের মধ্যে আবারও দাবী পেশ করা যাবে তথ্য নথি সহ। আর যাদের নাম বাদ পড়েছে, তাদের এখনই অবৈধ বিদেশী বলে চিহ্নিতও করা হবে না বা বন্দী শিবিরে পাঠানো হবে না।

আপাতত আসামের মানুষ সেই আশ্বাসেই ভরসা রাখছেন। কারণ যেভাবে নির্দেশ আসবে সরকারের, সেইভাবেই নথি জমা করে জাতীয় নাগরিক পঞ্জীতে নাম তোলার চেষ্টা করবেন এই ৪০ লক্ষ মানুষ।

কারণ তারা জানেন আসামে থাকতে গেলে নাগরিক পঞ্জীতে নাম তোলাটা খুব জরুরী। যাতে বাঙালী বলে তাদের দিকে কেউ আঙ্গুল তুলে আর না বলতে পারে যে তোমরা তো অবৈধ বাংলাদেশী - যেমনটা হয়ে এসেছে এত বছর।

-বিবিসি বাংলা

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ