ঢাকা, বুধবার 1 August 2018, ১৭ শ্রাবণ ১৪২৫, ১৮ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

রংপুরে গঙ্গাচড়ার দুর্গম চরে গ্রেফতারকৃত ৪ জেএমবি ৭ দিনের রিমান্ডে

রংপুর অফিস : রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার  দুর্গম চরে গ্রেফতারকৃত ৪ জেএমবি সদস্যের ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে রংপুরে আদালত।
গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে গঙ্গাচড়া আদালতের বিচারক আরিফুল হক এই রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এর আগে গঙ্গাচড়া থানার এস আই তদন্ত কর্মকর্তা আব্দুল মতিন ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে আবেদন করেন।  সোমবার মধ্যরাতে কেন্দ্রীয় পুলিশের ইনটেলিজেন্স ব্রাঞ্চ ও বগুড়া পুলিশের গোয়েন্দা (ডিবি) ইউনিটের বিশেষ শাখা তাদের গ্রেফতার করে। মঙ্গলবার তাদের রংপুরে পাঠানো হয়। রিমান্ডের আসামীরা হলো গঙ্গাচড়ার কুড়িবিশ্বা দোলা পাড়ার সিরাজুল ইসলামের পুত্র রংপুর বিভাগের দাওয়াহ সদস্য আজহারুল ইসলাম ওরফে ওয়ানুর (৩২), গঙ্গাচড়ার চর বাগডোহড়া গ্রামের তৈয়ব আলীর পুত্র আকরামুজ্জামান ওরফে মুকুল (২৬), একই গ্রামের মমিন আলীর পুত্র এবং বাড়ির আশ্রয়দাতা  ফারুক (২২), জেএমবির সামরিক শাখার সদস্য আব্দুস সামাদের পুত্র আব্দুল হাকিম ওরফে মিলন।
গ্রেফতারের সময় তাদের নিকট থেকে ১টি একে ২২ রাইফেল, রাইফেলের ১টি ম্যাগজিন, ১৫ রাউন্ড গুলী ও ৩টি ম্যাগজিনসহ ২টি ৭.৬৫ বোরের বিদেশী পিস্তল, ২টি ছোরা ও নগদ ৫০ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়। এসব আসামী গ্রেফতারের সময় বেশ কজন জেএমবি সদস্য পালিয়ে যায়। পলাতকদের মধ্যে পুলিশ যাদের নাম পেয়েছে তারা হচ্ছে পুরাতন জেএমবির বাংলাদেশ এর প্রধান সমন্বয়ক খোরশেদ আলম ওরফে মাস্টার ওরফে জিয়া ওরফে মমিন ওরফে উদয় (৩৮) তার সহযোগি শহিদুল্লাহ ওরফে ইয়ামিন ওরফে গোপাল ওরফে নাদিম (৪৫), নুর হক ওরফে ওমর ওরফে ওসমান (৩০), ফুয়াদ (৩৮) ও হাদী (৩৮)। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, তারা চর এলাকায় ব্যাপক সাংগঠনিক তৎপতা চালাচ্ছিল। এদেরকে ধরার জন্য বেশকিছুদিন থেকে আইনশৃঙ্খলাবাহিনী তৎপর ছিল। সূত্র জানায় জেএমবিরা উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন জেলায় প্রশিক্ষণ নিয়ে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে অপারেশন চালাচ্ছেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আব্দুল মতিন জানান, গ্রেফতারকৃত আসামীদের ১০ দিনের রিমান্ড চাইলে আদালত ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে।  তিনি আশা প্রকাশ করে আরো বলেন গ্রেফতারকৃতদের কাছ থেকে গুরুত্ব পূর্ণ তথ্য পাওয়া যাবে।        
নবম শ্রেণির ছাত্রী উদ্ধার ॥ অপহরণকারি গ্রেফতার
রংপুরে নবম শ্রেণির ছাত্রীকে অপহরণের একমাস পর তাঁকে উদ্ধার ও অপহরণকারিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সোমবার রাতে রংপুর কোতয়ালী থানার পুলিশ ঢাকার সাভার থেকে অপহৃতকে উদ্ধার  এবং অপহরণকারিকে গ্রেফতার করে।
পুলিশ সূত্রে জানাগেছে, সদর উপজেলার হরকলি ছাড়পাড়া গ্রামের দিনেশ চন্দ্রের কন্যা পাগলাপীর স্কুল এন্ড কলেজের নবম শ্রেণির ছাত্রী চন্দনা রানীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ফুসলিয়ে গত ১ জুলাই অপহরণ করা হয়। গঙ্গাচড়া উপজেলার হরকলি ফকির পাড়া এলাকার জহির উদ্দিনের বিবাহিত পুত্র বিদেশ ফেরত মিলন মিয়া তাঁকে অপহরণ করে। এ ঘটনায় চন্দনা রানীর বাবা ৫ জনকে আসামী করে কোতয়ালী থানায় একটি মামলা করেন। মামলায় মূল আসামী করা হয় মিলনকে। রংপুর কোতয়ালী থানার এস আই আসাদুজ্জামান আসাদের নেতৃত্বে সোমবার রাতে ঢাকার সাভার এলাকায় অভিযান চালিয়ে অপহৃত চন্দনা রানী উদ্ধার ও অপরহরণকারি মিলন মিয়াকে গ্রেফতার করে রংপুরে নিয়ে আসেন। কোতয়ালী থানার ওসি (তদন্ত) মোক্তারুল আলম জানান, মেয়েটির বয়স কম থাকায় তাঁকে ফুসলিয়ে অপহরণ করা হয়েছিল। গ্রেফতারকৃত মিলনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ