ঢাকা, শনিবার 4 August 2018, ২০ শ্রাবণ ১৪২৫, ২১ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

সাবেক এমপি ও জামায়াত নেতা শাহজাহান চৌধুরী গ্রেফতার

চট্টগ্রাম ব্যুরো : সাতকানিয়া ও লোহাগাড়ার সাবেক এমপি ও বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী নেতা শাহজাহান চৌধুরীকে গতকাল শুক্রবার চট্টগ্রাম মহানগরীর খুলশী থানার ওয়ার্লেস মুরগি ফার্ম এলাকার একটি বাসা থেকে নগর গোয়েন্দা পুলিশ গ্রেফতার করেছে। নগর গোয়েন্দা পুলিশের উত্তর জোন ও বন্দর জোন যৌথভাবে এ অভিযান চালায় বলে জানা গেছে।
পুলিশের বিভিন্ন সূত্রের খবর,শুক্রবার দুপুরে খুলশী এলাকায় একটি সামাজিক অনুষ্ঠানে অংশ নিতে গেলে শাহজাহান চৌধুরীসহ ৭ জনকে আটক করা হয়। পুলিশের দাবী, শাহজাহান চৌধুরীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগে একাধিক মামলা রয়েছে। চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (অপরাধ ও অভিযান) আমেনা বেগম গণমাধ্যমকে জানান, গোপন সংবাদের ভিওিতে শাহজাহান চৌধুরীর অবস্থান জানতে পেরে গোয়েন্দা পুলিশ শাহজাহান চৌধুরীসহ অনান্যদের আটক করেছে।
 চট্টগ্রাম মহানগরী জামায়াতের আমীর ও সেক্রেটারির বিবৃতি-বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় মজলিশে শূরার সদস্য ও সাবেক এমপি এবং সংসদের সাবেক হুইফ জননেতা   শাহজাহান চৌধুরীকে পুলিশ অন্যায়ভাবে গ্রেফতারের তীব্র নিন্দা, ক্ষোভ, প্রতিবাদ ও অবিলম্বে নি:শর্ত মুক্তির দাবী জানিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী চট্টগ্রাম মহানগরীর আমীর মাওলানা মুহাম্মদ শাহজাহান ও মহানগরী সেক্রেটারি মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম এক যুক্ত বিবৃতি প্রদান করেন। বিবৃতিতে নগর জামায়াত নেতৃবৃন্দ বলেন, জননেতা আলহাজ্ব শাহজাহান চৌধুরীকে নগরীর খুলশী থানা এলাকার একটি ঘরোয়া অনুষ্ঠান থেকে সরকারের পুলিশ বাহিনী অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করে নিয়ে যায় আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ এবং অবিলম্বে নি:শর্ত মুক্তির দাবী জানাই।
নগর জামায়াত আমীর মুহাম্মদ শাহজাহান ও সেক্রেটারি মুহাম্মদ নজরুল বলেন, সরকার ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে একদলীয় ও প্রহসনের নির্বাচনে পরিণত করার লক্ষ্যে বিরোধী দলীয় নেতৃবৃন্দকে সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে গ্রেফতার ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় জড়িয়ে সীমাহীন অত্যাচার ও হয়রানি করছে। এই ষড়যন্ত্রের ধারাবাহিকতায় জামায়াতের কেন্দ্রীয় নেতা আলহাজ্ব শাহজাহান চৌধুরীকে গ্রেফতার করা হয়।
জামায়াত নেতৃবৃন্দ বলেন, বিরোধী দলের নেতা কর্মীদের উপর পুলিশের এই অন্যায়, অত্যচার, জুলুম-নির্যাতন ও ষড়যন্ত্র জাতি কোনভাবে মেনে নিবে না। নগর জামায়াত আমীর ও সেক্রেটারি অবিলম্বে জামায়াত নেতা আলহাজ্ব শাহজাহান চৌধুরীসহ বিরোধী দলীয় নেতা-কর্মী এবং জামায়াত-শিবিরের সকল নেতা-কর্মী নি:শর্ত মুক্তির দাবী জানান।
জামায়াত নেতা  শাহজাহান চৌধুরীকে গ্রেফতারের প্রতিবাদ ও মুক্তির দাবীতে চট্টগ্রাম মহানগরী জামায়াতের বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল--বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় মজলিশে শূরার সদস্য ও সাবেক এমপি এবং সংসদের সাবেক হুইফ জননেতা আলহাজ্ব শাহজাহান চৌধুরীকে পুলিশ অন্যায়ভাবে গ্রেফতারের প্রতিবাদে ও অবিলম্বে নি:শর্ত মুক্তির দাবীতে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী চট্টগ্রাম মহানগরীর উদ্যোগে এক বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল নগর প্রচার সম্পাদক মোহাম্মদ উল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।
 একজন জননন্দিত সাবেক সংসদ সদস্যকে এধরণের অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করায় তার নিন্দা ও তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে এক যৌথ বিবৃতি প্রদান করেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা জামায়াতের আমীর জাফর সাদেক ও নায়েবে আমীর মুহাম্মদ ইছহাক। বিবৃতিতে নেতৃবন্দ বলেন, আল্হাজ্ব শাহজাহান চৌধুরীর মত একজন সাবেক জাতীয় সংসদ সদস্য ও জামায়াত নেতাকে এভাবে একটি ঘরোয়া অনুষ্ঠান থেকে ডিবি পুলিশ কর্তৃক গ্রেফতার করা চরম অমানবিক ও ন্যাক্কারজনক ঘটনা।
শাহজাহান চৌধুরীকে গ্রেফতারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন ২০ দলীয় জোট নেতৃবৃন্দ-বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় মজলিশে শূরার সদস্য ও সাবেক এমপি এবং সংসদের সাবেক হুই শাহজাহান চৌধুরীকে পুলিশ অন্যায়ভাবে গ্রেফতারের নিন্দা জানিয়ে এক বিবৃতি প্রদান করেছেন ২০ দলীয় জোট নেতৃবৃন্দ বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি চট্টগ্রাম মহানগর সভাপতি ও ২০ দলীয় জোট নেতা মোহাম্মদ ইলিয়াস, জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি (জাগপা)’র কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি ও চট্টগ্রাম মহানগর সভাপতি আবু মোজাফফর মোঃ আনাছ, বাংলাদেশ ন্যাপের সভাপতি ওসমান গণি সিকদার, এনপিপির চট্টগ্রাম সভাপতি আনোয়ার সাদেক, বাংলাদেশ লেবার পার্টির কেন্দ্রীয় সহসভাপতি ও চট্টগ্রাম মহানগর সভাপতি আলাউদ্দিন আলী, জমিয়তে ওলামায়ে ইসলামের চট্টগ্রাম মহানগর সমন্বয়কারী এম এ কাসেম ইসলামাবাদী, মুসলিম লীগ’র ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কাজী নাজমুল হাসান সেলিম, জাতীয় পার্টির চট্টগ্রাম মহানগর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এডভোকেট এ এইচ এম জাহিদ, ইসলামী ঐক্যজোটর সদস্যসচিব আনোয়ার হোসেন রব্বানী, কল্যাণ পার্টির চট্টগ্রাম মহানগর সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ নুরুল আলম, বিজেপির চট্টগ্রাম মহানগর সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ কবীর লিটন, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা কল্যাণ পার্টির সভাপতি দিদারুল সুমন, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা কল্যাণ পার্টির আহবায়ক মো. মোজ্জাম্মিল হোসাইন, কল্যাণ পার্টির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. মহিউদ্দিন প্রমুখ। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, বর্তমান সরকার নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতেই ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীদের উপর নির্যাতন করছে। গুপ্তহত্যা, মামলা-হামলা ও গ্রেফতারের মাধ্যমে ক্ষমতা পাকাপোক্ত করতে চাচ্ছে। মানুষের জান-মালের নিরাপত্তা নেই। জনগণের মত প্রকাশের স্বাধীনতা নেই, নেই সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতাও। সরকার ক্ষমতাকে দীর্ঘস্থায়ী ও পাকাপোক্ত করতে বিরোধী দল-মত সহ্য করতে পারছে না। বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের দমন-নিপীড়নের মাধ্যমে কোনঠাসা করে একদলীয় শাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে সরকার একের পর এক অগণতান্ত্রিক কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে। সারা দেশে যখন সড়ক দুর্ঘটনায় হাজার হাজার মানুষ মৃত্যুমুখে পতিত হচ্ছে। সড়ক দুর্ঘটনা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে সাথে বাড়ছে মৃত্যু হার, বাড়ছে পঙ্গুত্বের সংখ্যা। এমন কোন দিন নেই, যে সড়ক দুর্ঘটনা হচ্ছে না। শিশু, ছোট বড় সকলেই সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে। সরকার সেদিকে দৃষ্টি না দিয়ে নিরীহ ২০ দলীয় জোটের নেতা কর্মীদের গ্রেফতারে মেতে উঠেছে। জামায়াত নেতা শাহাজাহান চৌধুরী জুমার নামায আদায় করতে মসজিদ যায় সেখান থেকে ডিবি পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। কেন তাদের গ্রেফতার করা হলো দেশবাসী তা জানতে চায়। নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে জামায়াত নেতা শাহাজাহান চৌধুরীসহ গ্রেফতারকৃত সকল নেতা-কর্মীর মুক্তি দাবি করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ