ঢাকা, শনিবার 4 August 2018, ২০ শ্রাবণ ১৪২৫, ২১ জিলক্বদ ১৪৩৯ হিজরী
Online Edition

ফ্লোরিডায় ব্যাটসম্যানদের বড় রান করা সম্ভব--সাকিব

স্পোর্টস রিপোর্টার : ওয়েস্ট ইন্ডিজের সেন্ট কিটসে টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচটি খেলে বাকি দুই ম্যাচ খেলতে বাংলাদেশ দল এখন অবস্থান করছে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায়। এখানে প্রথথমবারের মতো টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। এশিয়ার দ্বিতীয় দল হিসেবে ভারতের পর এই মাঠে ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। ইতিমধ্যে ফ্লোরিডায় পৌঁছে মাঠও দেখেছে বাংলাদেশ দল। আর অনুশীলনও করেছে পুরোদমে। ৫ ও ৬ আগস্ট বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে ছয়টায় শুরু হবে শেষ ম্যাচ দুটি। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজে বাংলাদেশের শুরুটা ভালো হয়নি। তাই এখানের শেষটা তাই রাঙাতে চায় টিম বাংলাদেশ। অধিনায়ক সাকিব ছাড়া এই মাঠে অন্য কোন খেলোয়াড়ের খেলার অভিজ্ঞতা নেই। সিপিএল খেলার সুবাদে সাকিব আল হাসান খেলেছেন এ মাঠে। তাই অনুশীলনের আগে ড্রেসিং রুমে এ মাঠে খেলার অভিজ্ঞতা সবাইকে শুনিয়েছেন সাকিব।  সাকিব জানান, এধানকার উইকেট ধীরগতির হবে! বাংলাদেশের পছন্দমতো। এটা অবশ্য সফরকারীদের সুবিধা দেওয়ার জন্য নয়। ফ্লোরিডার উইকেটই এমন। অতীত পরিসংখ্যান বলছে সে কথা। অনুশীলন শুরুর আগে সাকিব কথা বলেন এই শেষ দুই ম্যাচ নিয়ে। সাকিব বলেন,‘ আমেরিকায় বাংলাদেশের প্রথম ম্যাচ। সবার জন্য এক্সসাইটিং হওয়া উচিত। এখানে অনেক বাংলাদেশী ক্রাউড থাকে। সবার মজার সময় কাটবে বলে মনে করি।’ এই মাঠের উইকেট নিয়ে সাকিব বলেন,‘ আসলে বলা মুশকিল। শেষবার সিপিএলের যে ম্যাচ খেলেছি তার থেকে এবারের উইকেট যা দেখলাম তা ভিন্ন। অনুশীলনে বাকিটা  বোঝা যাবে। আজ সাইড উইকেটে অনুশীলন করছি। খুব  বেশি পার্থক্য থাকবে না। দেখতে এক মনে হলেও সব সময় অনুশীলন উইকেট আর ম্যাচ উইকেট একরকম হয় না। এটা বিচার করা যাবে অনুশীলনের পর। এখন পর্যন্ত দেখে বোঝা যাচ্ছে শেষ বছর থেকে এবারের উইকেট ভালো হবে।’ এই দুই ম্যাচে ব্যাটসম্যানদের বড় ইনিংস খেলা উচিত বলে মনে করেন সাকিব। সাকিব বলেন,‘ প্রথম ম্যাচে সুযোগ ছিল বেশ কিছু রান করার। কয়েকটা কারণে আমরা করতে পারিনি। ওই জায়গাগুলোতে যদি উন্নতি করি তাহলে এই ম্যাচ দুটিতে আরও রান করা সম্ভব। উইকেট যদি শেষ ম্যাচের মতো হয়ে থাকে তাহলে আমাদের ব্যাটসম্যানদের পক্ষে আরও ভালো করা সম্ভব হবে। আর ভুল কম করলে এমনিতেই ব্যাটসম্যানদের বড় রান করা সম্ভব।’ তবে ফ্লোরিডায় প্রথমবার এলেও এই দুই ম্যাচের সফরটা সবার জন্যই রোমাঞ্চকর হবে বলে মনে করেন টাইগার অধিনায়ক। অনেক বেশি বাংলাদেশী সমর্থকের উপস্থিতিতে মাঠ ও মাঠের বাইরে মজার পরিবেশ তৈরি হবে বলেই মনে করেন সাকিব। সাকিব বলেন, ‘সবার জন্যই সফরটা রোমাঞ্চকর হওয়া উচিৎ। এখানে অনেক বাংলাদেশী দর্শক থাকবে। সবার জন্যই সময়টা মজার হবে বলে আমি মনে করি।’ এসময় প্রথম ম্যাচে করা ভুলগুলো শুধরে আরো বড় সংগ্রহ গড়ার আশা প্রকাশ করেন সাকিব। তিনি বলেন, ‘প্রথম ম্যাচে আমাদের সুযোগ ছিল আরও বেশি রান করার। তবে  বেশ কিছু কারণে আমরা তা করতে পারিনি। তাই ওইসব জায়গায় আরও ভালো করা সম্ভব বলে আমি মনে করি। উইকেট যদি আগের ম্যাচের  চেয়ে ভালো আচরণ করে তাহলে আগে ব্যাট করে ভালো সংগ্রহ দাঁড় করানো সম্ভব।’ এই মাঠে টি-টোয়েন্টি ম্যাচের আগে একটি প্রস্তুতি ম্যাচও  খেলার সম্ভাবনা রয়েছে বাংলাদেশ দলের। এমনটাই জানান বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু। তবে এটি কোন নতুন পরিকল্পিত ম্যাচ নয়। আগে থেকেই ঠিক ছিল যুক্তরাষ্ট্রে গিয়ে একটি বিশ ওভারের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে টাইগাররা। তবে এটা নিশ্চিত নয়। আমেরিকার আমন্ত্রণমূলক এই একাদশে খেলেন মূলত ক্যারিবীয় বংশোদ্ভুত ক্রিকেটাররাই। যারা কিনা বিভিন্ন সময়ে নানান প্রয়োজনে স্থায়ী হয়েছেন ফ্লোরিডা বা আশেপাশের অঞ্চলে। এই প্রস্ততি ম্যাচটি হতে পারে নিজেদের ঝালিয়ে নেয়ার বড় এক সুযোগ। ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগের সৌজন্যে ৫টি ম্যাচ ফ্লোরিডার  সেন্ট্রাল ব্রোওয়ার্ড রিজিওনাল পার্ক স্টেডিয়ামে খেলেছেন সাকিব আল হাসান। এবার সেখানে বাংলাদেশকে নেতৃত্ব  দেবেন এই বাঁহাতি অলরাউন্ডার। ভেন্যুটি তার জন্য চেনা হলেও দলের অন্য সবার কাছে অচেনা। তবে এটা দলকে পিছিয়ে রাখবে মনে করেন না সাকিব। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে  শেষ দুটি টি- টোয়েন্টিতে গ্যালারিতে সমর্থকদের কাছ থেকে দারুণ সমর্থন আশা করছেন তিনি। গত বছর সিপিএলে জ্যামাইকা তাল্লাওয়াসের হয়ে এই  ভেন্যুতে দুটি ম্যাচ খেলেছেন সাকিব। দুটি ম্যাচে একটি করে উইকেট পাওয়ার পাশাপাশি দ্বিতীয়টিতে ৩২ বলে ৪৪ রানে ঝড় তুলে দলের জয়ে দারুণ অবদান রেখেছিলেন এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। গতবারের চেয়ে এই উইকেট ভিন্ন মনে করছেন সাকিব।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ